বৃদ্ধকে হত্যার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ইরাদসহ গ্রেফতার ৩

 

এস,এম,শামীম(ফুলপুর)ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ-
ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে বালু নিয়ে ১২নং স্বদেশী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদের নেতৃত্বে গত বুধবার বিকেলে আব্দুল কাদির (৭৫) নামে এক বৃদ্ধকে রামদা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা ও তিনজনকে আহত করার অভিযোগে চেয়ারম্যান সহ তিন জনকে আটক করেন হালুয়াঘাট থানা পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, উপজেলার স্বদেশী গ্রামের সঞ্জু মিয়া ওরফে সাইদ হোসেন সিদ্দিকী এর পুত্র স্বদেশী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ(৩৫), বালিজুড়ি গ্রামের সুরুজ আলীর পুত্র সোহেল মিয়া (২৫) ও ফুলপুর উপজেলার সণচুর গ্রামের আবুল হোসেনের পুত্র শাহজাহান মিয়া(২৬)।

হালুয়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমাদুল হাসান জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন হালুয়াঘাট সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ খলিলুর রহমান। বুধবার অপরাহ্নে উপজেলার গাজীপুর গ্রামে কংশ নদী থেকে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে উত্তোলিত বালু নিয়ে বিরোধের জের ধরে হত্যাকান্ডের এ ঘটনা ঘটে। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত স্বদেশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদসহ তিন জনকে আটক করা হয়।

এ ঘটনায় নিহতের পুত্র ফরিদ মিয়া বাদী হয়ে স্বদেশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদসহ ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে হালুয়াঘাট থানায় একটি হত্যা মামলার অভিযোগ দায়ের করেন। যাহার মামলা নং-১।
তিনি আরোও বলেন সহকারী উপ-পুলিশ পরির্দশক জাকির হোসেন ও আবুল খায়ের সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে চেয়ারম্যান সহ অন্যান্য ব্যক্তিদের গ্রেফতার করার জন্য অভিযান পরিচালনা করার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঘটনার কয়েক ঘন্টার মাঝেই সাদুর বাজার নামক স্থান থেকে তিন জনকে আটক করেন।

আটককৃত ব্যক্তিদেরকে ১ অক্টোবর রোজ বৃৃৃহস্পতিবার বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়। উক্ত চেয়ারম্যানের নামে পুলিশের উপর হামলা, মাদক ও হত্যা মামলাসহ অত্র থানায় ৭টি মামলা ও ৪টি জিডি রয়েছে।

উল্লেখ , কংশ নদী খননের সুযোগে হালুয়াঘাট উপজেলার গাজীপুর গ্রামের প্রায় ৭ একর জমি ভাড়ায় নিয়ে স্থানীয় মামুন মিয়া ও তার লোকজন বালু উত্তোলন করে রাখেন।

গত বুধবার সকালে স্বদেশী ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদের লোকজন বালু নিতে ভেকু ও ট্রাক নিয়ে আসেন। জমির মলিকগণ প্রকৃত মালিক ও ভাড়া ছাড়া বালু দিতে অস্বীকৃতি জানান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদ ও তার লোকজন ঐ দিন বিকেলে জমির মালিক আব্দুল কাদির, বোন জামাই শরাফ উদ্দিন, পুত্র দুলন ও ফরিদকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। ফুলপুর হাসপাতালে আনার পথে আব্দুল কাদিরের মৃত্যু ঘটে।

আহত শরাফ উদ্দিন জানান, বালু উত্তোলনকারীগণ গত ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এক বছরের ভাড়া পরিশোধ করলেও বর্তমান বছরের ভাড়া বাকি থাকায় বালু দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পরিকল্পিত ভাবে চেয়ারম্যান ও দলবল হামলা করেছে। চেয়ারম্যান জিহাদ সিদ্দিকী ইরাদের বিরুদ্ধে মাদকসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

গোয়ালন্দে পুলিশ সদস্যকে মারপিটের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

শেখ রনজু আহাম্মেদ রাজবাড়ী প্রতিনিধিঃ গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাটে সরকারী কাজে বাঁধা প্রদান ও কর্তব্যরত …

error: Content is protected !!