শিশু সাহিল অপহরনের ছয় ঘন্টার মধ্যে অপহরনচক্র গ্রেফতার

শিশু সাহিল অপহরনের ছয় ঘন্টার মধ্যে অপহরনচক্র গ্রেফতার

মোঃ রুবেল পেশায় একজন ফল ব্যবসায়ী। তিনি তার স্ত্রী এবং সন্তানদের নিয়ে গোলাম বাজার সানোয়ার বিল্ডিং এর ছয় তলায় ভাড়া থাকেন। গতকাল রাতে আনুমানিক সাড়ে আটটার দিকে তার ছোট সন্তান সাহিল বাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ির নিচে রাস্তার যায়। পরর্বতীতে তার সন্তান সাহিল বাসায় ফিরে না। তখন তিনি বাসার নিচতলা সহ পরিচিত বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেন। তার ছেলেকে খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে রাত আনুমানিক ৯:৫১ঘটিকার সময় ০১৯৯০৫১৩৫৬৭ নম্বর থেকে তার ব্যবহৃত হোয়াটস অ্যাপ নম্বর ০১৯৪৮২০৮১১৪ তে অজ্ঞাতনামা একজন ব্যাক্তি তার ছেলে সাহিলকে আটক করে রাখার ভিডিও পাঠায়।

ভিডিও পাঠানোর কিছুক্ষন পরে অজ্ঞাতনামা কয়েকজন ব্যাক্তি ০১৭৮০৩৭৩৮৭১,০১৪০৫৬৪৬১১৮,০১৭৭৮০৩২৫০৫ নম্বর থেকে তার ব্যবহৃত ০১৭৮৬৬৬৫৫১২, ০১৯৪৮২০৮১১৪ নম্বরে একাধিক বার ফোন করে তাকে জানায় তার ছেলে সাহিল কে তারা তার বাসার সামনে থেকে অপহরন করেছে। তার ছেলেকে জীবিত পেতে হলে তাদেরকে পাঁচ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দিতে হবে৷ অন্যথয় তার ছেলে সাহিল কে জানে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এখন পযন্ত তার ছেলের কোনো সন্ধান পায় নি।

আসামীরা তার ছেলে সাহিল (৮) কে তার বাসা ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন গোলাম বাজার এলাকার সানোয়ার ভূঁইয়া বিল্ডিং এর সামনে রাস্তার উপর থেকে অপহরন করে অজ্ঞাতস্থানে আটক রেখে মুক্তিপন দাবী করে। এই ঘটনার বিষয়ে পরিবারের লোকজনদের সাথে আলোচনা করে সাহিলের বাবা মোঃ রুবেল বাদী হয়ে থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ করলে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার মামলা নং ৬২, তারিখ -২৪/০৬/২০২৪ ইং ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০(সংশোধনী ২০২০) এর ৭/৮/৩০ রুজি করা হয়।

উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার জনাব আসাদুজ্জামান বিপিএম,পিপিএম(বার) দ্রুত সংঘবদ্ধ অপহরনকারী চক্রকে সনাক্ত করার জন্য দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। তৎপ্রেক্ষিতে জনাব আমিনুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার,ক্রাইম এন্ড অপস এর সার্বিক তত্বাবধানে জনাব শাহাবুদ্দিন কবীর বিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কেরানীগঞ্জ সার্কেল এর নেতৃত্বে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার একটি চৌকস তদন্ত টিম সংঘবদ্ধ হয়ে অপহরনকারী চক্রকে ধরার জন্য ব্যাপক কার্যক্রম শুরু করে।

তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় অত্র মামলার ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় জনাব মোহাম্মদ মামুন অর রশিদ, পিপিএম,অফিসার ইনচার্জ এর নেতৃত্বে এস আই হিরন সহ একটি আভিযানিক দল কেরানীগঞ্জ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে মামলা রুজির ছয় ঘন্টার মধ্যে অপহরনকারী চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করে তাদের হেফাজতে মামলার ভিকটিম সাহিল কে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

শিশু সাহিল অপহরনের ছয় ঘন্টার মধ্যে অপহরনচক্র গ্রেফতার
অপহরনচক্র গ্রেফতার

গ্রেফতারকৃত আসামীদের নাম ও ঠিকানা ১.মো- আল-আমিন,২৭  পিতা আবুল খায়ের, মাতা জাহানারা বেগম, সাং – খান্দারপার, থানা -মোকসেদপুর,জেলা – গোপালগঞ্জ, বর্তমান ঠিকানা – বাসা – ১১১৬, উত্তর কাফরুল(স্বাধীনতা পার্কের পাশে), থানা – কাফরুল, ডিএমপি ঢাকা

২. নুর ইসলাম, ৩৫ পিতা – আবুল কাশেম, মাতা – মমতাজ বেগম,সাং সোনারপুর, থানা – কাজিরহাট, জেলা বরিশাল, বর্তমানে – ৭৩৪,ইব্রাহিমপুর,উত্তর কাফরুল, থানা – কাফরুল ডিএমপি ঢাকা।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মামুন উর রশিদ এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমার টিম এস আই হিরন সহ একটি আভিযানিক দল কেরানীগঞ্জ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ছয় ঘন্টার মধ্যে অপহরনকারী চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। এবং মামলার ভিকটিম সাহিল কে উদ্ধার করতে সক্ষম হই।

আরো পড়ুনঃ জুলাই এর দিকে চীন সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Check Also

প্রাণিসম্পদ

প্রাণিসম্পদ পরিচালকের বিরুদ্ধে চুরির মামলা

মারধর, হত্যাচেষ্টা, চুরির অভিযোগে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মলয় কুমার সুরসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অধিদপ্তরের …