রাবি-গুচ্ছে প্রথম-দ্বিতীয় সজল-সাদিয়া ঢাবিতে ২৯তম মোহসিনা মুন্নি

 

রানা আহম্মেদ অভি, ইবি।
ঝিনাইদহের শৈলকুপার শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজ ও বিপুল’স কেয়ার থেকে শিক্ষার্থীরা স্বয়ংসম্পূর্ণ দেশের বৃহত্তম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি), রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ও গুচ্ছভুক্ত দেশের ২২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে বিস্ময়কর ফলাফল করেছে। এ বছর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বি ইউনিটের তৃতীয় সিফটে প্রথম হয়েছে উপজেলার শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজের শিক্ষার্থী সজল আহম্মেদ (সজল)। অন্যদিকে গুচ্ছ বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭৯.২৫ পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন সাদিয়া নুসরাত স্নিগ্ধা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৯ তম হয়েছেন মোহসিনা মুন্নি। তারা সকলে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী বিপুল’স কেয়ারে কোচিং করেছেন।

জানা যায়, শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজ ঝিনাইদহ জেলার অন্যতম ও উপজেলার মধ্যে সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ইতিমধ্যে জায়গা করে নিয়েছেন । পাশাপাশি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি সহায়ক বিপুল’স কেয়ার থেকেও প্রতিবছর অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী দেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাচ্ছেন। ভর্তি সহায়ক ও উপজেলার সেরা কলেজের জন্য শৈলকুপা সম্মান বিশেষভাবে বাড়ছে বলে ধারণা করছেন অনেকে। এছাড়াও এই দুই প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে এলাকার নাম দেশজুড়ে ছড়িয়ে যাচ্ছে বলে মতামত প্রকাশ করেছে উভয় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকেরা।

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় বি ইউনিটে দ্বিতীয় স্থান করা সাদিয়া নুসরাত স্নিগ্ধা বলেন,যা পেয়েছি সবকিছুর জন্য আলহামদুলিল্লাহ। শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজ ও সুশৃঙ্খল নিয়মমাফিক অ্যাডমিশন জার্নির জন্য বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি সহায়ক বিপুল’স কেয়ারকে অন্তরের অন্তরস্থল থেকে ধন্যবাদ। কলেজের প্রিয় অধ্যক্ষ আসাদুর রহমান শাহিন স্যার ও মঈন স্যান, লাভলু স্যার ও ভর্তি সহায়ক বিপুল’স কেয়ারের অ্যাড. বিপুল আমরান স্যার আমার এ যাত্রায় সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব বলে মনে করি।

তিনি আরো বলেন, জীবনের এ পথচলায় প্রতিটি শিক্ষকের মূল্যবান উপদেশগুলো বটবৃক্ষের মতো আমাকে আগলে রেখেছে । দেশসেরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাওয়ার পর রাজশাহী ও গুচ্ছতে পরীক্ষা দিয়ে অসাধারণ ফলাফল করেছি। আমি আমার পরিবারের পছন্দের রাজশাহী আইনে ভর্তি হতে চাই।

রাবিতে তৃতীয় সিফটে প্রথম সজল আহম্মেদ বলেন, সবকিছুর জন্য আলহামদুলিল্লাহ। ঢাবিতে ও রাবির এ ইউনিটে আমি তেমন ভালো ফলাফল করতে পারিনি সে জন্য ভাগ্যকে দোষারোপ করেছিলাম। প্রিয় অ্যাড. বিপুল আমরান স্যারের কথামতো আমি বি ইউনিটে ফরম তুলে সেকানে যে এত ভালো কিছু অর্জন করতে পারবো কখনো ভাবতেই পারিনি। আমি এ সাফল্যের জন্য পরিবারের অনুপ্রেরণার পর সবচেয়ে স্থান দেব আমারে কলেজের সকল শিক্ষাক ও অ্যাড. বিপুল আমরান স্যারকে। আমি আমার সম্মানিত স্যারদের কাছে সারাজীবন কৃতজ্ঞ থাকবো।

এছাড়াও তিনি আরো তার অন্তরঙ্গ বন্ধুদের অনুপ্রেরণা ও উৎসাহের কথা তুলে ধরেন। তার বন্ধু সাব্বির, গৌরব, আকাশ, টিপু, রিয়াজ ও আশিক স্যার প্রতিটি ধাপে সহযোগিতা করেছে বলে জানান তিনি। সর্বোপরি জানান রব আল্লাহর দয়াময়তা ও প্রশংসা করেন।

এ বিষয়ে মোহসিনা মুন্নি বলেন, আমি এবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় “খ” ইউনিট থেকে মেধাক্রম(২৯) নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছি এবং আইন বিষয়ে ভর্তির জন্য মনোনীত হয়েছি। আমার আজকে যতটুকু সফলতা,আমার এই স্বপ্ন পুরণ, সেইটা শুধু মাত্র সম্ভব হয়েছে আমার পরিবার আর আমার শিক্ষকবৃন্দের জন্য।আর অবশ্যই আল্লাহর রহমত তো আছেই। আমার স্কুল-কলেজের সকল শিক্ষকবৃন্দের কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি যারা আমাকে আলোর পথ দেখিয়েছে। আর এই তালিকায় যার কথা না বললেই নই,তিনি শ্রদ্ধেয় বিপুল আমরান স্যার। আমি সত্যি গর্বিত যে উনার মতো একজন পথপ্রদর্শক পেয়েছি আমার কলেজ জীবনের শুরু থেকে।সেই সাথে প্রিয় প্রতিষ্ঠান “বিপুল’স কেয়ার” এর অগ্রগতির কথা উল্লেখ করতেই হচ্ছে। আমি এই প্রতিষ্ঠান এর একজন সদস্য হিসেবে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি।

এ বিষয়ে শিক্ষাজ্ঞানে প্রসিদ্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি সহায়ক প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক অ্যাড. বিপুল আমরান। তিনি বলেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাস করেও পার্শ্ববর্তী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ছোঁয়ায় পেয়ে এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষা অর্জনের আগ্রহ খুবই বেশি বাড়ছে। আমাদের আধুনিক কোন শিক্ষা ব্যবস্থা না থাকলেও শিক্ষার্থীদের প্রতি নিবিড় পর্যবেক্ষণে প্রতিবছর ঢাবি, রাবি, জাহাঙ্গীরনগর ও গুচ্ছ অধিভুক্ত ক্যাম্পাসগুলোতে প্রায় অর্ধশতাধিকের উপরে শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন। রাবিতে প্রথম ও গুচ্ছে দ্বিতীয় হওয়া সজল- সাদিয়া নুসরাত স্নিগ্ধা ও ঢাবির মোহসিনা মুন্নি শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজের কলেজে অধ্যয়ন করেছেন। বিশেষ করে এ অঞ্চলে উচ্চশিক্ষা অর্জনে আমাদের পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজের অসামান্য অবদান রয়েছে।

এছাড়াও তিনি আরো বলেন, এলাকায় যত মানুষ শিক্ষিত হবে তত এলাকার উন্নতি হবে। এবছর এ সেরা দুজন বাদে ঢাবি রাবিতে পাঁচ থেকে ছয়জন আইনের মতো সেরা বিষয় পাবেন বলে আশাবাদী। আশাবাদী আমাদের থেকে সবমিলিয়ে অর্ধশতাধিক উচ্চশিক্ষার গণ্ডিতে প্রবেশ করতে পারবেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্সপ্রাপ্ত বেশিভাগ শিক্ষার্থী আমাদের কাছে উচ্চমাধ্যমিক থেকে ইংরেজি ও বাংলা পড়তে আসতেন। সবচেয়ে বিশেষ সুবিধা এ অঞ্চলে উন্নত নগরীর মতো বিলাসবহুল খরচ নেই। সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রদানে আমাদের গরিব ও অর্থনৈতিক সমস্যার শিক্ষার্থীদের বিশেষ সুবিধা পাচ্ছেন। টাকার কারণে কখনো উচ্চশিক্ষার প্রচেষ্টা বন্ধ হবেনা এ ধারণা।

উপজেলার সেরা শেখপাড়া দুঃখী মাহমুদ কলেজের অধ্যক্ষ আসাদুর রহমান শাহিন বলেন, এবারে সজল আহম্মেদ, সাদিয়া নুসরাত স্নিগ্ধা ও মোহসিনা মুন্নির ফলাফল জানতে পেরে খুবই ভালো লেগেছে। প্রতিবছরে উচ্চশিক্ষায় উপজেলা থেকে যে সংখ্যক শিক্ষার্থী সুযোগ পাচ্ছে তাদের মধ্যে সিংহভাগ আমাদের কলেজের শিক্ষার্থীরা। মূলত এমন কৃতী শিক্ষার্থীদের জন্যই ফলাফলের দিক থেকে বার বার উপজেলার সেরা কলেজ হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়েছি। দীর্ঘ প্রায় দুই বছরের নিবিড় পর্যবেক্ষণের কারণে আমাদের এ শিক্ষার্থীদের এ অসামান্য অবদান বলে মনে করছি। আমাদের কলেজে অনন্য সরকারী কলেজের মতো উচ্চ দালান অট্টালিকা না থাকলেও আমাদের শিক্ষকদের প্রচেষ্টা রয়েছে ব্যাপক। আমাদের শিক্ষকেরা ব্যাচে ব্যাচে ভাগ করে শিক্ষার্থীদের তত্ত্বাবধানে রাখেন।

তিনি আরো বলেন, শিক্ষা কার্যক্রমের বেশিভাগ তথ্য কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শেখ মো. রবিউল লাভলুর কাছে হিসাব থাকে। আমরা গরিব শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সুবিধা দিয়ে থাকি। বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের পারিবারিক অর্থনৈতিক অবস্থা বিবেচনা করে অনেকের থেকে শুধু নামমাত্র ভর্তি ফি নিয়ে ফরম ফিলাপের সুযোগ করে দিয়ে তাদের উচ্চ শিক্ষা অর্জনের ধাপগুলো এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করছি। আমাদের পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী আইনজীবী বিপুল আমরান শিক্ষার্থীদের পর্যবেক্ষণ ও টিউটরিং করেন। কলেজ ও তাদের সমন্বয়ে প্রতিবছরে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী এ অঞ্চল থেকে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে। এবছরে যে সজল-সাদিয়া প্রথম দ্বিতীয় হলেন এটা দুই প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ের হয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে [sharethis-inline-buttons]

Check Also

জবিতে ইংলিশ ডিপার্টমেন্ট ডিবেটিং ক্লাবের প্রশিক্ষণ পেলো ১৫০শিক্ষার্থী  

ফেরদৌসী তামান্না,জবি প্রতিনিধি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংলিশ ডিপার্টমেন্ট ডিবেটিং ক্লাবের আয়োজনে দিনব্যাপী ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার …

error: Content is protected !!