বুড়িগঙ্গা নদীর দুই তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নবম দিনে তৃতীয় পর্বের অভিযান শেষ হয়েছে

বুড়িগঙ্গা নদীর দুই তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নবম দিনে তৃতীয় পর্বের অভিযান শেষ হয়েছে ।

নাব্যতা সংকটের কারনে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করতে কিছুটা দেড়ি হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১২ টার দিকে পশ্চিম হাজারীবাগের ঝাউচর থেকেউচ্ছদ অভিযান শুরু হয়ে চলে একটানা বিকাল ৫ টা পর্যন্ত।

রাজউকের একটি টিম প্রথমবারের মতো উচ্ছেদ অভিযানে অংশ নেয় । অভিযানে একটি চারতলা ও ৭টিদ্বিতল ভবনসহ ২৫টি আধাপাকা স্থাপনাসহ মোট ৫৯টি অবৈধ স্থাপনা ধ্বংশ করেবিআইডাব্লিউটিএ। এর মধ্যে সোনালী ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে করা হয়েছিল ৪ তলা ভবনটি।

বিআইডাব্লিউটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আগামী সপ্তাহ থেকে চারদিন করে উচ্ছেদ অভিযান চলবে এবং উচ্ছেদের সময় সীমা ১৯শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত বলা হলেও এসময় আরো বাড়ানো হবে।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট মোস্তাফিজুর রহমানবলেন, নাব্যতা সংকটের কারনে অভিযান শুরু করতে একটু বিলম্বিত হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত আমর চার তলা ভবন সহ প্রায় অর্ধশতাধিক অবৈধস্থাপনা উচ্ছেদ করেছি।এদিকে বরাবরে মত উচ্ছেদ অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছেন স্থানীয়রা। কেবল উচ্ছেদকরলেই হবে না, নদী রক্ষায় দৃশ্যমান পদক্ষেপ দেখতে চান স্থানীয় জনগন।

বিআইডাব্লিউটিএ যুগ্ম পরিচালক (ঢাকা বন্দর) এ. কে. এম আরিফ উদ্দিন বলেন, নদীতীরের সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে বদ্ধপরিকর বিআইডাব্লিউটিএ। চারতলা ভবনটি সোনালী ব্যাংকের নিকট দায়বদ্ধ থাকলেও নদীর তীরে ভবন নির্মানের ক্ষেত্রেবিআইডাব্লিউটিএর অনাপত্তিপত্র নিতে হয়। এ ক্ষেত্রে ভবন মালিকের পক্ষে থেকে তা নেয়া হয়নি। তাই ভবনটি উচ্ছেদ করা হয়েছে। কোন প্রকার বাধা ছাড়াই তৃতীয় ধাপেরআমাদের উচ্ছেদ অভিযান শেষ হয়েছে। ।

আগামী সোমবার থেকে তীর দখল করে গড়ে ওঠা আবাসন কোম্পানিগুলো বিরদ্ধে অভিযান নামবে বিআইডাব্লিউটিএ। এর আগে গত ৮ দিনে প্রায় দেড় সহস্রাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে বিআইডাব্লিউটিএ ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

গুলশান থানা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে চলছে “বঙ্গবন্ধু টেলিমেডিসিন সেবা”

জবি প্রতিনিধি: করোনা মহামারীর শুরু থেকেই গুলশান থানা ছাত্রলীগ ছিল সাধারণ মানুষের পাশে। গুলশান থানা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!