গ্রীনভ্যালী পার্ক

পর্যটন জগতে নতুন নাম নাটোরের গ্রীনভ্যালী পার্ক

সজিবুল ইসলাম হৃদয়ঃ নাটোরের লালপুর উপজেলায় বর্নিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদ্ভোধন হলো লালপুুর বাসীর স্বপ্নের প্রতিষ্ঠান গ্রীনভ্যালী পার্ক লিঃ।

শুক্রবার (২৫ জানুয়ারি) ফিতা কেটে গ্রীনভ্যালী পার্কের উদ্বোধন করেন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আদম আলীর সহধর্মিনী ও পুলিশ সুপার আলমগীর কবির পরাগের মা আজমিরা খাতুন।

পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নুরীয়া পারভীন জানান, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পর্যটনের জগতে লালপুরকে প্রতিষ্ঠা করার প্রয়াসই গ্রীনভ্যালী পার্ক লিমিটেড। সারা দেশের বিভিন্ন স্থানের স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত ৩৮জন পরিচালকের সম্মিলিত উদ্যোগ এই পার্ক। পরিচালকদের শেয়ার আর ঋণের টাকায় মানব সেবার ব্রত নিয়ে প্রতিষ্ঠিত পার্কের লভ্যাংশের সিংহভাগ ব্যয় হবে সমাজকল্যাণ মূলক কর্মকান্ডে। পর্যায়ক্রমে প্রতিষ্ঠা করা হবে আন্তর্জাতিক মানের বিদ্যালয়, শিশু পরিবার, বৃদ্ধাশ্রম ও হাসপাতাল প্রভৃতি।

উদ্বোধন পরবর্তী আলোচনা অনুষ্ঠানে পার্কের চেয়ারম্যান আঞ্জুমান্দ আরা পুষ্প’র সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল, নাটোরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন, বিপিএম,পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বড়াইগ্রাম সার্কেল) মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ, লালপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নজরুল ইসলাম জুয়েল, পুলিশ পরিদর্শক মোনয়ারুজ্জামানসহ পার্কের পরিচালগণ, বিভিন্ন স্থান থেকে আগত অতিথিবৃন্দ এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

কবি জীবনানন্দ দাশের নাটোরের বনলতা সেন, রানী ভবানী নাটোরের রাজবাড়ি , গণভবন (দিঘাপতিয়া রাজবাড়ী) , চলনবিল, মিনি কক্সবাজার পাটুল আর কাচাগোল্লার জন্য আগে থেকেই দেশবাসীর কাছে বিখ্যাত হয়ে আছে নাটোর। এবার নাটোরকে আরো এক ধাপ রাঙিয়ে তুলতে দেশের বিপুল সংখ্যক বিনোদনপ্রেমী ও দর্শনার্থীদের মনের খোরাক মেটাতে নাটোরের লালপুর উপজেলায় তৈরি হয়েছে গ্রীনভ্যালী পার্ক।

শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত সবাই নিশ্চিন্তে বিনোদনের জন্য আসতে পারেন এ পার্কটিতে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান পিকনিক স্পট হিসেবে সুন্দর, পরিপাটি ও সকল সুবিধার দিক মাথায় রেখে পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন পার্কটিকে।

প্রায় ৩০ একর জমির উপর বিস্তৃত নয়নাভিরাম লেক, অত্যন্ত মনোরম পরিবেশ, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন্ডিত সুস্থ্য বিনোদনের ব্যবস্থা সহ পার্কটিতে পাওয়া যাবে পিকনিক স্পট, শ্যুটিং স্পট, এ্যাডভেঞ্চার রাইডস, কনসার্ট এন্ড প্লে-গ্রাউন্ড, নিজস্ব বিদ্যুৎ সুবিধা, নামাজের সু-ব্যবস্থা, সিকিউরিটি সার্ভিসের ব্যবস্থা, ডেকোরেটর সুবিধা, গাড়ি রাখার ব্যবস্থা, ক্যাফেটেরিয়া, শপ কর্ণার, সভা-সেমিনার এর জায়গা, আবাসিক ব্যবস্থাসহ নানা ধরনের সুবিধা।

বিনোদনের জন্য রয়েছে স্পীডবোট, প্যাডেল বোট, বুলেট ট্রেন, মিনি ট্রেন, নাগরদোলা, পাইরেট শীপ, ম্যারিগোরাউন্ড, হানি সুইং ইত্যাদি। প্রতিটি রাইডের আনন্দ উপভোগ করতে গুনতে হবে ৫০টাকা। এছাড়া গ্রীনভ্যালী পার্কে প্রবেশ মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে জনপ্রতি ১০০/- টাকা। তবে লালপুরবাসীর জন্য ২০টাকা ছাড়ে ৮০টাকায় পরিদর্শনের সুযোগ রাখা হয়েছে।

নাটোর, রাজশাহী, পাবনা ও কুষ্টিয়া জেলার প্রায় মধ্যবর্তী এলাকা লালপুর হওয়ায় সড়ক, রেল ও নদী পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা বেশ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবে। সড়ক পথে দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে নাটোর জেলার লালপুরে আসার সুব্যবস্থা রয়েছে। বাস, সিএনজি, অটোরিক্সা ও ব্যক্তিগত বা রিজার্ভ যানবাহনে লালপুর পৌঁছে মাত্র এক কিলো মিটার পাকা রাস্তা। দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে আন্তনগর বা সাধারণ ট্রেনে আব্দুলপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনে নেমে মাত্র ১০কিলো মিটার রাস্তা সিএনজি, অটোরিক্সা বা ভ্যানে পার্কে যাওয়া যাবে।এছাড়া পদ্মা নদীর উপকূলবর্তী জনপদ লালপুর। পদ্মা নদীতে যাতায়াতকারী নৌযানে লালপুর ঘাটে নেমে মাত্র এক কিলো মিটারের রাস্তা পেরিয়ে পার্কে পৌঁছা যাবে।

উল্লেখ্য, গ্রীনভ্যালী পার্ক যে কোন অনুষ্ঠানের জন্য ডেকোরেটর সামগ্রী, চেয়ার, টেবিলসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি ভাড়ার ব্যবস্থা রয়েছে। বিভিন্ন প্যাকেজ সুবিধায় ২০টি টেবিল, ২০০ চেয়ার, লাক্সারী দুটি রুম ও বড় শেড ৩০হাজার টাকায় পাওয়া যাবে। উন্মুক্ত স্থানে ৫হাজার টাকা ভাড়ায় পিকনিক করা যাবে। এর সাথে পানির ট্যাপ ও ওয়াশ রুমের বাড়তি সুবিধাও থাকছে। এছাড়া বাস-৫০০টাকা, হাইস মাইক্রো- ৩০০টাকা, মাইক্রোবাস- ২০০টাকা, সিএনজি-১০০টাকা এবং মোটরসাইকেল- ৫০টাকা পার্কিং ফি নির্ধারিত রয়েছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

বিচ্ছিন্ন কয়েকটি ঘটনার মধ্য দিয়ে কেরানীগঞ্জে শেষ হলো ইউপি নির্বাচন

কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে ঢাকার কেরানীগঞ্জে শেষ হলো তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন ২০২১। তৃতীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!