নদী ভাঙ্গন

পদ্মায় ফের নদী ভাঙ্গন, ভেঙ্গেছে শহর রক্ষা বাধের অন্তত ২ শ মিটার স্থায়ী পাইলিং

রাজবাড়ীর পদ্মায় আকস্মিকভাবে নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে শহর রক্ষা বাধের স্থায়ী পাইলিং এর প্রায় দুই শত মিটার এলাকা। মারাত্বক হুমকিতে রয়েছে শহর রক্ষা বাধ, বসত বাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

রাজবাড়ী জেলার দৌলতদিয়া থেকে পাংশা উপজেলার শিয়ালডাঙ্গি পর্যন্ত ৮৫ কিলোমিটার নদীপথ। গত বর্ষা মৌসুমে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ভাঙ্গনে নদী গর্ভে চলে গেছে শত শত বিঘা ফসলী জমি ও বসতবাড়ি। পদ্মার পানি দ্রুত কমে যাওয়ার ফলে নতুন করে বুধবার সন্ধ্যায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে জেলা সদরের গোদার বাজার এলাকায়। মুহুর্ত্বের মধ্যে নদী গর্ভে চলে গেছে শহর রক্ষা বাধের স্থায়ী পাইলিং এর প্রায় দুই শত মিটার এলাকা। এতে আতঙ্কিত হয়ে পরেছে এলাকাবাসী।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোদার বাজার এলাকার বাসিন্দা হাচিনা বেগম বলেন,পদ্মার রাজবাড়ী অংশে নদী খননের ফলেই এই ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়েছে। হঠাৎ করে ভাঙ্গন শুরু হওয়ায় এলাকায় আতঙ্ক ছরিয়ে পরেছে। ভাঙ্গন কবলীত এলাকার বাসিন্দা দুশ্চিন্তায় রয়েছে। অনেকে তাদের আসবারপত্র গুছিয়ে বসত বাড়ি নিতে নিতে শুরু করেছে।
পাংশা উপজেলার বাসিন্দা হারুন অর রশিদ খান জানান, রাজবাড়ীতে কোন দর্শনীয় স্থান না থাকায় মানুষ একটু বিনোদনে জন্য নদীর শহর রক্ষা বাধে আসে। এখন নদী যে ভাবে ভাঙ্গছে তাতে শহর রক্ষা বাধও যেকোন সময়ে ভেঙ্গে যেতে পারে। তিনি আরো জানান, পদ্মার ভাঙ্গনে দিন দিন রাজবাড়ী জেলার অনেক কিছু হারিয়ে যাচ্ছে। এক সময় নদী অনেক দুরে ছিলো এখন সেই নদী শহর ছুই ছুই অবস্থা।
এ ব্যপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ হাফিজুর রহমান বলেন, বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ জানানো হয়েছে। চাওয়া হয়েছে বরাদ্দ, বরাদ্দ পাওয়া গেলেই কাজ শুরু করা হবে।

 


রাজবাড়ীতে বেরেছে পেয়াজ চাষ, ভারতীয় পেয়াজ আমদানি নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকেরা

 

 মসলা জাতীয় খাদ্য পন্য হিসেবে পেয়াজ অন্যতম। তাই দেশের বাজারে পেয়াজের ঘারতি পুরনের লক্ষে রাজবাড়ীর কৃষকেরা দিনদিন বারিয়েছে পেয়াজ আবাদ। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় পেয়াজের ভালো ফলন নিয়ে খুশি থাকলেও ভারতীয় পেয়াজ আমদানি নিয়ে দুশ্চিন্তায় রাজবাড়ীর কৃষকেরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের তথ্যমতে, দেশের চাহিদা ১৩ শতাংশ পেয়াজের যোগান দেওয়া হচ্ছে রাজবাড়ী থেকে আর পেয়াজ চাষে কৃষকদের দেওয়া হচ্ছে আধুনিক পরামর্শ। রাজবাড়ীতে গত বছর ২৮ হাজার ২২৫ হেক্টর জমিতে পেয়াজের আবাদ হয়েছিলো। এ বছরও রাজবাড়ীতে পেয়াজ চাষে লক্ষ মাত্রা ধরা হয়েছে ২৮,২৫০ হেক্টর । এ থেকে ২ লক্ষ ৮১ হাজার ৮ শত মেট্রিক টন পিয়াজ উৎপাদিত হবে বলে আশা করছেন তারা
সরেজমিনে, রাজবাড়ী জেলার কালুখালি উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের বিজয়নগর,কৃষœনগর, লস্করদীয়া, চররাজপুর,এলাকায় গিয়ে দেখা যায় মাঠের পর মাঠ পিয়াজের আবাদ হয়েছে।

রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের কৃষক ফরিদ শেখ জানান,এ বছর চার বিঘা জমিতে পেয়াজের আবাদ করেছি । প্রতি বিঘা জমিতে পেয়াজ আবাদ করতে কমপক্ষে ৪০ হাজার টাকা খরচ হয় আর প্রতিবছর ভারতীয় পেয়াজ আমদানির ফলে লাভ তো দুরের কথা আসল টাকা ওঠাতেই বেগ পেতে হয়। তাই এ বছর পেয়াজের দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তিনি।
কালুখালী উপজেলার বিজয় নগর এলাকার কৃষক হাসান শেখ জানান, বর্তমানে পেয়াজের বাজার মূল্য ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি এভাবে থাকলেও কৃষকেরা লাভবান হবে। আর মাত্র এক সপ্তাহ পরে পেয়াজ তোলা শুরু হবে ঠিক তখনই সরকার পেয়াজ আমদানি করে যে কারনে কৃষকে ৮ থেকে ১০ টাকা কেজি দরে পেয়াজ বিক্রি করতে হয়, লোকসানে পরে কৃষক।

 


অপর এক কৃষক সোহরাব শেখ জানান, পেয়াজ রোপনে প্রচুর খরচ হয়ে থাকে, তাছারা কালুখালী উপজেলার কৃষকেরা পেয়াজ তোলার পর সরাসরি ঢাকার শ্যাম বাজারে নিয়ে ি বক্রি করে। এতে পন্য পরিবহনেও একটা খরচ হয়। রাজবাড়ীর অনেক কৃষকই ব্যাংক থেকে কৃষি লোন নিয়ে পেয়াজ আবাদ করে। ভালো দাম না পাওয়ায় লোন পরিশোধ করতে বেগ পেতে হয় তাদের। পেয়াজের ন্যয্য মূল্য পেতে পেয়াজ আমদানি বন্ধ করতে হবে।
এ ব্যপারে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর রাজবাড়ীর উপ-পরিচালক মোঃ ফজলুর রহমান বণিক বার্তাকে বলেন, রাজবাড়ীর মাটি অত্যান্ত উর্বর হওয়ায় ২৮ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে পেয়াজের আবাদ লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে। পেয়াজ চাষে রাজবাড়ীর কৃষকদের জমি চাষ থেকে শুরু করে আধুনিক সকল বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে।

এ বছর রাজবাড়ীতে ২ লক্ষ ৮১ হাজার ৮ শত মেট্রিক টন পিয়াজ উৎপাদিত হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।


 

গোয়ালন্দে ডাচ বাংলা এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের উদ্বোধন

 রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে বৃহস্পতিবার ডাচ বাংলা ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং শাখার উদ্বোধন করা হয়েছে। শাখাটির পরিচালনায় রয়েছে স্থানীয় প্রতিষ্ঠান একুশ ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড মটরস।

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে গোয়ালন্দ বাজার প্রধান সড়কের জিজে ভবনে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের উদ্বোধন উপলক্ষে আলোচনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবায়েত হায়াত শিপলু, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোয়ালন্দ ঘাট থনার অফিসার ইনচার্জ এজাজ শফী। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম মন্ডল, গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ মোয়াজ্জেম হোসেন, রাবেয়া ইদ্রিস মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আ. কাদের শেখ, সুলতান উদ্দিন আহমেদ, নাজিরুল ইসলাম দুলু, সুলতান নুর ইসলাম মুন্নু প্রমুখ।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন একুশ ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড মটরস এর পরিচালক সালাউদ্দিন মাহমুদ রেজা। পরে ফিতা কেটে শাখাটির উদ্বোধন করেন ডাচ্ বাংলা ব্যাংকের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মুহা. সাখাওয়াত হোসেন।

আয়োজকরা জানান, এ শাখাটিতে সঞ্চয়ী হিসাব খোলা, নগদ টাকা জমা ও উত্তোলন, ডিপিএস, এফডিয়ার, এটিএম কার্ড প্রদান, অন্য একাউন্ট থেকে টাকা হস্তান্তর, পিন দিয়ে রেমিটেন্সের টাকা গ্রহণ, বিল পে, এসএমএস ব্যাংকিং এবং ব্যালেন্স অনুসন্ধানসহ যাবতীয় সেবা দেওয়া হবে। এ ব্যাংকিং ব্যবস্থা পরিচালিত হবে বায়োমেটিক পদ্ধতির একাউন্টের মাধ্যমে।

 

শেখ রনজু আহাম্মেদ।
রাজবাড়ী প্রতিনিধি।

নিউজ ঢাকা২৪।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ঝিকরগাছায় বাল্য বিবাহ বন্ধ  করলো উপজেলা প্রশাসন

আক্তার মাহমুদ, ঝিকরগাছা : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ বন্ধ হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!