এ্যাড. শরীফ উদ্দিন

স্বৈরাচার বিরুদ্ধে লড়ে ৬’বার কারাবরণ করেন এমপি প্রার্থী এ্যাড. শরীফ উদ্দিন

লক্ষ্মীপুরের রামগতির সন্তান এ্যাডভোকেট একেএম শরীফ উদ্দিন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় যুব ও ক্রীড়া উপ-কমিটির সদস্য। ছাত্র জীবনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগে(জাসদ) যুক্ত হয়ে রাজনীতিতে পদচারণা তাঁর। শুরুটা ১৯৮৮ সালে। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র অবস্থায় তিনি সকল সকল স্বৈরাচার সরকারের বিরুদ্ধে
আন্দোলন করতে গিয়ে এ পর্যন্ত ৬’বার কারাবরণ করেছেন।

তাঁর সমর্থকরা জানান, ছাত্র রাজনীতির শুরু থেকেই তিনি অনেক জেল, জুলুম, নির্যাতনে পর ইতি মধ্যে আইন পেশায় অনেক সুনাম অর্জন
করেছেন। তৃণমূল রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণে রামগতি-কমলনগরের মানুষের কাছে বেশ পরিচিতি রয়েছে তাঁর। অত্যন্ত সাধারণ জীবন-যপন করেন তিনি। তিনি একজন সুবক্তা বটে।

তিনি ছাত্রলীগের ১৯৯৩ সালে আলেকজান্ডার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় সভাপতি, ১৯৯৫সালে থানা কমিটির প্রচার সম্পাদক, ১৯৯৭সালে থানা আহবায়ক, ১৯৯৮সালে জেলা কমিটির সহ-সভাপতি এবং ২০০১সালে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে রাজপথের আন্দোলন সংগ্রামে দলের পাশে ছিলেন। ২০০৩ সালে কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক, ২০০৪-২০০৫সালে কেন্দ্রীয় কমিটির
যুগ্ম আহ্বায়ক নিবাচিত হন।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে তিনি এল.এল.বি এবং এল.এল.এম ডিগ্রী অর্জন করে ২০০৭সাল থেকে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে আইন পেশায় যুক্ত আছেন। ২০০৬ সালে ছাত্র রাজনীতি থেকে অবসর নেন। তিনি ২০০৬ সালের পর থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাথে নিবিড় ভাবে কাজ করে আসছে।
তিনি ২০১৪সালের ৫জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণতন্ত্র রক্ষার স্বার্থে তিনি সতন্ত্রভাবে এম.পি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেন। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে তিনি দল, বল, অনুগত, নেতাকর্মীদের নিয়ে বাংলদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন।

আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচন লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী। ইতিমধ্যে দলীয় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে তিনি দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।
এ বিষয়ে তিনি বলেন, অবহেলিত, রামগতি-কমলনগরের মেহনতি মানুষ, নদীভাঙা ভূমিহীন, বাস্তুহারা, সমস্যা, বেকার সমস্যা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন, নদীতে জলদস্যুতা বন্ধ করে মানুষের খেদমত করার প্রত্যয় নিয়ে আমি কাজ করতে চাই। বঙ্গবন্ধু কন্যা, মাদার অব হিউম্যানিটি এবং বিশ্বনেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়ন করার প্রত্যয়ে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী হয়ে অংশ নিতে চাই। আমি আশান্বিত মাননীয় প্রধান আমাকে নৌকার প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করে দলের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে দলের লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করার সুযোগ দিবে।

নিউজ ঢাকা।

আর

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

আনোয়ারায় সদর ইউনিয়নে ভিজিডি কার্ডের চাউল  বিতরণ

  এম.এম.জাহিদ হাসান হৃদয়ঃচট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার ৭নং সদর ইউনিয়নে ২০২১-২২ অর্থবছরের বরাদ্দ কৃত ৭৬ জন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!