টোল আন্দোলনে শ্রমিক নিহত হওয়ার পর বুড়িগঙ্গা চীন মৈত্রী সেতু ফাঁকা ॥ থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে

শুক্রবার সকালে বুড়িগঙ্গা (১ম) চীন মৈত্রী সেতু টোল মক্তির দাবীতে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে এক শ্রমিক নিহত ও উভয় পক্ষের অর্ধাশতাধিক আহত হওয়ার ঘটনার পর ব্রীজের টোল বন্ধ রয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দুই একটি গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেলেও টোল নিতে দেখা যায়নি।

হতাহতের ঘটনায় থানা পুলিশের পক্ষ থেকে একটি মামলা নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। শ্রমিক নেতাদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে নিহত সোহেলের শ্বশুর বাদী হয়ে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানায় একটি হত্যার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অপরদিকে পুলিশ বলছে নিহতের স্বাজনরা লাশ দাফন করে এসে অভিযোগ দিলে আমরা মামলা নিবো না হয় পুলিশ বাদী হয়ে আরেকটি হত্যা মামলা নেওয়া হবে। সোহেলের লাশ শুক্রবার রাতেই ময়না তদন্ত শেষে পুলিশের সহযোগতায় নিহতের স্বজনদেরসহ দেশের বাড়িতে পাঠয়ে দেওয়া হয়।

গতকাল শনিবার সকালে সরজমিন বুড়িগঙ্গা ২ম সেতু( চীন মৈত্রী সেতু ) উপর গিয়ে দেখা যায় ফাঁকা। মাঝে মধ্যে দু’একটি গাড়ী চলাচল করতে দেখা গেলেও টোল ঘরে টোল আদায়ের লোক দাড়িয়ে থাকলেও কোন টোল নিতে দেখা যায়নি। নতুন করে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা যাতে না ঘটে সে জন্য অতিরিক্ত পুলিশকে দেখা যাচ্ছে ব্রীজ ও আশপাশ এলাকায় বসে থাকতে।

এরপর দক্ষিন কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদ এলাকায় নিহত সোহেলের ভাড়া বাসায় গিয়ে তার ঘর তালা বদ্ধ দেখা যায়। পরে বাড়ির অন্যান্য ভাড়াটিয়ার সাথে কথা হলে তারা জানান রাতেই পুলিশ সোহেলের লাশ দেশের বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছে। তার স্বজনরাও লাশের সাথে দেশের বাড়িতে চলে গেছে।

চীন মৈত্রী সেতু

একটি সুত্রে জানা যায়, বুড়িগঙ্গা (১ম) চীন মৈত্রী সেতু জাতীয় পার্টির ক্ষমতা থাকা কালিন এরশাদ সরকার এর উদ্ধোধন করে। সে সময় থেকে এই ব্রীজের টোল ইজারার মাধ্যমে প্রতি বছর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়ে থাকে। প্রথমে প্রায় এক কোটি থেকে ইজারা শুরু করে বর্তমানে কে আলম সিপিং ২১ কোটি ২৯ লাখ টাকায় ইজারা নেন। যার ফলে চাপ পড়ে ব্রীজে চলাচল প্রতিটি যানবাহনে।
দুপুরে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার সামনে দেখা হয় বাংলাদেশ আন্ত জিলা ট্রাক চালক ইউনিয়নের সভাপতি ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন এর সহ সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম এর সাথে। তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, যতদিন পর্যন্ত শ্রমিকদের টোল মুক্তির আন্দোলনের স্থায়ী সমাধান না হবে সে পর্যন্ত শ্রমিকদের আন্দোলন চলবেই। আমি আশা করি সরকার অতি শিগ্রই এটার একটি স্থায়ী সমাধান দিবেন।

নিহত সোহেলের ব্যাপারে তিনি বলেন, সোহেল একজন ট্রাকের হেলপার ছিলেন। শ্রমিক আন্দোলনে সে শহিদ হয়েছে। তার এ আত্মত্যাগকে আমরা কখনো ভুলতে পারবো না। শুক্রবার সকালে শ্রমিকরা আন্দোলন করার সময় ব্রীজের ইজারাদার কে. আলম, খোরশেদ আলম এবং তাদের সহযোগী আজিম, ফারহাদসহ আরো ১০/১৫ জন হাসনাবাদ এলাকায় আসে। যতটুকু জেনেছি ইজারাদার মোঃ খোরশেদ আলম সে নিজেই গুলি করে হত্যা করে সোহেলকে। আমি সোহেল হত্যার বিচার চাই। খুনিদের ফাঁসি চাই। শুক্রবার রাতেই নিহত সোহেলের শ্বশুরকে বাদী করে আমরা একটি হত্যার মামলার অভিযোগ দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার ওসি বরাবর আবেদন করেছি।

বুড়িগঙ্গা ১ম সেতু (চীন-মৈত্রী) ইজারাদার মোঃ খোরশেদ আলম এর সাথে মোইল ফোনে কথা হলে তিনি জানান, ব্রীজের টোল প্লাজা মহানগর এলাকায়। পুলিশের সাথে শ্রমিকদের সংঘর্ষ হয়ে ঢাকা জেলার দক্ষিন কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদ এলাকায়। আমার বাড়ি ধানমন্ডি এলাকায় । শুক্রবার জুম্মার দিন বলে আমি বাড়িতে ছিলাম। আমি ঘটনাটি পরে শুনেছি,আমিতো সেখানে যাই নাই তাহলে গুলি করি কিভাবে। আমার ব্যাপারে যে তথ্য দিয়েছে সেটা সম্পূর্ন ভুল তথ্য।

ঘটনার পর থেকে টোল না নেওয়ার ব্যাপারে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ঘটনার পর পর আমি ঢাকা জেলার সড়ক বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আব্দুর সবুরের সাথে কথা বললে তিনি জানান, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত টোল নেওয়া বন্ধ রাখতে হবে, তাই আমরা এখন কোন গাড়ি থেকে টোল নিচ্ছি না।

দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার ওসি শাহজামান বলেন, আমিসহ আমার অনেক দারোগা পুলিশ আহত হয়েছে। তাদের চিকিৎসা দিয়ে মামলা করতে দেরি হচ্ছে। এ ঘটনায় কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। পুলিশের কাজে বাধা, পুলিশকে হত্যা করার চেষ্টা, মারপিট,ভাংচুরের অভিযোগ এনে একটি মামলা প্রস্তুতি চলছে।

নিহত সোহেলের পক্ষে অভিযোগের কথা জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, তারা লাশ দাফন করার জন্য দেশের বাড়িতে গেছেন। দেশ থেকে ফিলে এসে মামলা দিলে আমরা মামলা নিবো না হয় পুলিশ বাদ হয়ে আরেকটি হত্যা মামলা নেওয়া হবে। নিহত সোহেলের পরিবারকে পুলিশের পক্ষ থেকে নগদ ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। এবং লাশ নেওয়ার জন্য এ্যামবুলেন্সও করে দেওয়া হয়েছে।

কেরানীগঞ্জ সার্কেল এ এস পি রামানন্দ সরকার বলেন, নিহত সোহেল কার গুলিতে হত্যা হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আজ কোন প্রকার ঝামেলা নাই। এ বিষয়ে একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এ.এইচ.এম সাগর।
নিউজ ঢাকা ২৪।

 

এ বিভাগে : টোল কে কেন্দ্র করে শ্রমিক নিহত ভাংচুর আহত-৩০ পুলিশ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

টাঙ্গাইলে মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলার আসামিদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ

নাসির উদ্দিন,জেলা প্রতিনিধিঃ বঙ্গবন্ধু হত্যার অন্যতম প্রতিবাদকারী টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!