পুলিশ-শ্রমিক হামলা

কেরানীগঞ্জে পুলিশ-শ্রমিক হামলা-পাল্টা হামলা ॥ শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত-১ আহত কমপক্ষে-৫০

বুড়িগঙ্গা প্রথম সেতু (চীন মৈত্রী সেতু) টোল মুক্ত করার দাবীতে ট্রাক-অটোরিক্সা সিএনজি মালিক শ্রমীকরা দু’দিন সড়ক অবরোধ বন্ধ রাখার পর গতকাল শুক্রবার সকালে ব্রীজের দক্ষিন প্রান্তে হাসনাবাদ ইকুরিয়া এলাকায় জড়ো হওয়ার প্রস্তুতি নেয়। এ সময় দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানা ও দাঙ্গা পুলিশ তাদের উপর হামলা চালায়।

এ সময় শ্রমিকারা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশকে লক্ষ কওে ইট পাটকেল ছুড়লে পুলিশ হামলা পাল্টা গুলি ছুড়ে। পুলিশের ছোড়া গুলিতে পথচারী, শ্রমিক, গার্মেন্টকর্মিসহ গুলিবিদ্ধ হয়ে ১০/১ ৫জন গুরুতর আহত হয়। গুলিবিদ্ধ সতীর্থদেও দেখে বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে চতুর্দিক থেকে হামলা চালায়।

বিক্ষোভকারীদের হামলায় দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার ওসিসহ প্রায় ২৫/৩০ জন আহত হয়। আহতরা হচ্ছে : সোহেল (২২), সাজু (৫০), বাকুম (৪৫), আকাশ (২২) , মানিক, মাসুদ, আলামিন,তাসলিমা, লাইজুল ইসলাম,সিদ্দিক ও অজ্ঞাতনামা এক প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক গুলিবিদ্ধ, দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ শাহজামান, এস এস আই রিপনসহ প্রায় প্রায় ২৫জন।

আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। ইকুরয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোহেল নামের এক ট্রাক হেলপার মার যান। নিহত সোহেলের গ্রামের বাড়ি বরিশাল জেলার মেহেন্দীগঞ্জ থানার গুলগুলিয়ার চর এলাকায়। তার পিতার নাম মোঃ মফিজ উদ্দিন। সে পরিবার নিয়ে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার হাসনাবাদ এলাকায় ভাড়া থাকতেন।তার বুকের মাঝখানে গুলিবিদ্ধ লাগে।


আন্দোলনরত শাওন নামের এক শ্রমিক সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমরা শান্তিপূর্ন ভাবেই আন্দোলন করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। পুলিশ এসে আমাদের উপর হামলা চালায়, আমরাও পরে পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল ছুড়ি। এক পর্যায়ে পুলিশ আমাদেও উপর গুলিছুরতে থাকে। পুলিশের গুলিতে আমাদের ৭/৮ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এদেও মধ্যে একজন প্রতিবন্ধী ভিক্ষুক ও একজন গার্মেন্ট কর্মি। আমাদের দাবী ন্যায্যদাবী । আমাদের দাবী মানতেই হবে।

টোলমুক্ত আন্দোলন কমিটি ও ঢাকা জেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি এমদাদুল হক দাদন বলে, গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন যানবাহন থেকে যে হারে সেতুর টোল আদায় করা হচ্ছিল গত মঙ্গলবার থেকে হঠাৎ করে টোলের হার কয়েকগুন বৃদ্ধি করে ইজারাদার কর্তৃপক্ষ। এমনকি যে সব গাড়ী (সিএনজি, মোটরসাইকেল) ফ্রি চলাচল করতো সেসব গাড়ীর জন্য টোল আদায়ের সিদ্ধান্ত নেয় তারা। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন পরিবহন শ্রমিক ও চালকরা। ওই দিনই এর প্রতিবাদ জানিয়ে সিএনজি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিল। কিন্তু বিষয়টির যৌক্তিক কোন সমাধান না করায় বুধবারও সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করা হয়।

এক পর্যায়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে পুলিশ আমাদের আশ্বস্ত করেছেন বিষয়টি সমাধানের। তাদের আশ্বাসে দুই দিনের জন্য সড়ক অবরোধ তুলে নেয়া হয়। আমরা দুইদিন অপেক্ষা করার পর কোন সমাধান না পেয়ে (আজ) শুক্রবার সকালে ব্রীজের দক্ষিন প্রান্তে ফের আন্দোলন করার জন্য জড়ো হওয়ার প্রস্তুতিকালে পুলিশ হামলা চালিয়ে পথচারী, গার্মেন্টকর্মিসহ আমাদের আন্দোলনকারীর কয়েক সদস্যকে গুলি করে আহত করে। আহতদের মধ্যে সোহেল নামেন এক ট্রাক হেলপার মারা গেছে।

তিনি আরো বলেন, টোলমুক্ত আন্দোলনের সাথে আমার ভাইয়ের রক্ত ঝড়লো কেন প্রশাসনের কাছে তারা জবাব চান। আমাদের আন্দোলন প্রশাসনের সাথে না। তারা কেন গুলি চালিয়ে নিড়িহ শ্রমিককে হত্যা করেছে। প্রশাসন যদি এর সুষ্ঠ জবাব দিতে না পারে তাহলে আমরা কঠোর আন্দোলন যাবো।

bty

বুড়িগঙ্গা চীন-মৈত্রী সেতুর ইজারাদার প্রতিষ্ঠান কে. আলম শিপিং লাইন এর পরিচালক মাইনুদ্দিন চিশতী বলেন, এতদিন সড়ক ও জনপদ বিভাগ নিজেরাই সেতুর টোল আদায় করতো। সরকারের কাছ থেকে গত মঙ্গলবার তারা সেতুর ইজারার দায়িত্ব বুঝে নেন। এবং সরকার নির্ধারিত হারে টোল আদায় করছেন। তিনি আরও বলেন. আমরাতো টোল বৃদ্ধি করিনি। সড়ক ও জনপদ বিভাগ যে হার নির্ধারন করে দিয়েছে, আমরা সেই হারেই টোল আদায় করছি।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ, তিনি আন্দোলনকারীদেও উদ্যেশে বলেন, আপনারা আমাদের সময় দেন , আমি বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীকে সাথে নিয়ে সড়ক ও সেতু মন্ত্রীর সাথে কথা বলে অটোরিক্সা সিএনজির ও হোন্ডা টোল মুক্ত এবং অন্যান্য যানবাহনের টোল কমানোর কথা বলবো। পাশাপশি তিনি ইজারাদেও বলেন, যে পর্যন্ত এ বিষয়টি সমাধান না হচ্ছে আপনারা সিএনজি থেকে টোল নেওয়া মুক্ত থাকবন।

সাংবাদিকদের সাথে আলাপ কালে শাহীন আহমেদ বলেন, আগে টোল ছিল বড় গাড়ি ২৫ টাকা এখন সেটা ২৫০ টাকা করা হয়েছে। সিএনসি টোল ফ্রি ছিল এখন সেখানে ২৫ টাকা টোল নিচ্ছে। এটা অস্বাভাবিকই বটে। একজন সিএনজি চালক এক ট্রিপে ৫০ টাকা ভাড়া পায় সে যদি ২৫ টাকা টোল দিয়ে দেয় বাকি ২৫ টাকা থেকে সে জমা দিবে কি খাবে কি। বিষয়টা নিয়ে আমরা দ্রুতই সমাধান করছি সে পর্যন্ত টোল বন্ধ থাকবে। পরে উপজেলা চেয়ারম্যানের আশ্বাসে আন্দোলন কারীরা তাদের বিক্ষোভ বন্ধ করে।

এ বিষয়ে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ শাহজামান বলেন, টোলমুক্ত দাবিতে সড়ক অবরোধ করা হয়েছিল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গেলে আন্দোলনকারীরা পুলিশের উপর চরাও হয়। পুলিশ তাদেও জানমাল রক্ষার্থে ফাকা গুলি ছুড়লে বিক্ষোভকারীরা আরো মারমুখি হয়ে উঠে। এতে করে আমি সহ আমার প্রায় ২৫/৩০ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। আহতদেও চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ.এইচ এম সাগর

নিউজ ঢাকা ২৪

আরো পড়ুন: সিএনজি টোল ফ্রি দাবীতে সড়ক অবরোধ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

শিক্ষার্থীর জালে ধরা পড়ল বিরল প্রজাতির মাছ

এম.এম.জাহিদ হাসান হৃদয় (আনোয়ারা, চট্টগ্রাম): চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় এক বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীর জালে ধরা পড়লো …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!