ট্রেনে কাটা

বালিয়াকান্দিতে ট্রেনে কাটা পরে ৩ জুট মিল শ্রমিক নিহত আহত অন্তত ১০ জন

রাজবাড়ীর কালুখালী-ভাটিয়াপাড়া ট্রেন রুটের বালিয়াকান্দিতে ট্রেন ও শ্রমিক টানা ইঞ্জিন চালিত কটাং গাড়ীর সংঘর্ষে জুট মিলের ৩ শ্রমিক ট্রেনে কাটা পরে নিহত ও ১০জন আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে কালুখালী থেকে ছেড়ে আসা ভাটিয়াপাড়াগামী ট্রেন উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের শোলাকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌছালে কোন গেটম্যান না থাকায় ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলার চরনওপাড়া রাজ্জাক জুট মিলের ইঞ্জিন চালিত শ্রমিক পরিবহনের কটাং গাড়ী প্রবেশ করে। এসময় দুঘর্টনার শিকার হয়।

এসময় ঘটনাস্থলেই উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের বাঘুটিয়া গ্রামের শহীদ শেখের ছেলে সরোয়ার শেখ (২০), এলেম সরদারের ছেলে ইমরান সরদার (২২), জামালপুর ইউনিয়নের তুলশীবরাট গ্রামের শুকুর আলী শেখের ছেলে শাকিল শেখ (২০) নিহত হয়। আহত হয়েছে, জামালপুর ইউনিয়নের আলোকদিয়া গ্রামের হারুন শেখের স্ত্রী পপি খাতুন (৩৫), তুলশীবরাট গ্রামের জহুরুল মিয়া স্ত্রী রাফেজা বেগম (২২), মিঠুন বিশ্বাসের স্ত্রী শেফালী বেগম (২৪), বিল্লাল মন্ডলের স্ত্রী আছিয়া বেগম (২৫)সহ অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। আহতদেরকে মধুখালী হাসপাতালে নিলে তাদেরকে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফরিদপুর হাসপাতালে প্রেরন করে।

বেচে যাওয়া পপি খাতুন জানান, রাজ্জাক খান জুট মিলের ১৪-১৫জন শ্রমিক কাজ শেষে ইঞ্জিন চালিত কটাং গাড়ীতে বাড়ী ফিরছিলেন। ট্রেন আসা দেখে ড্রাইভারকে দেরী করতে বললেও ড্রাইভার বলে বসে থাকেন চলে যেতে পারবো। এসময় ট্রেনটি এসে গাড়ীটি ধাক্কা দিয়ে প্রায় আধা কিলোমিটার নিয়ে যায়। যে যার মতো গাড়ীর মধ্যে থেকে ঝাপ দেয়।
মধুখালী হাসপাতালের আরএমও ডা. কবির হোসেন জানান, ৯-১০জন আহত রোগী আসলে তাদের চিকিৎসা শেষে ফরিদপুর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদা জানান, কালুখালী থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি ভাটিয়াপাড়া অভিমুখে যাচ্ছিল। বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের শোলাকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে রেল ক্রসিংয়ে কোন গেটম্যান না থাকায় রাজ্জাক খান জুট মিলের কটাং গাড়ী রাস্তা পার হওয়ার সময় সংঘর্ষে ট্রেনে কাটা পরে ঘটনাস্থলে ৩জন নিহত হয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশ ও বালিয়াকান্দি ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি শান্ত করেন। রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা, রাজবাড়ী সহকারী পুলিশ সুপার ফজলুল করিম ঘটনাস্থলে যান। পরে রাজবাড়ী জিআরপি থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা ঘটনাস্থলে যান। তিনি বলেন, রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী খবর পেয়ে নিহতদের বাড়ীতে যান এবং শান্তনা দেওয়াসহ আর্থিক সহযোগিতা করেন।

 

রাজবাড়ি প্রতিনিধি।

নিউজ ঢাকা ২৪

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম পারভেজ হাসান সরকারের

  ফকরুদ্দীন আহমেদঃময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় আদিকাল থেকে করে আসা দেশের সুনামধন্য রাজনীতিবিদ ও গুণিজন মরহুম …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!