স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সংবিধান অনুযায়ী একাদশ নির্বাচন হবে, বিএনপি-জামাতের কোন চক্রান্ত কাজে আসবে না স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ীই হবে। বিএনপি-জামাত যতোই চক্রান্ত করুক কোন কাজে আসবে না। মঙ্গলববার দুপুরে কেরানীগঞ্জের জিনজিরাস্থ ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল পরিদর্শন কালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সঠিক প্লান না থাকার কারনে ২০০৬ সালে তৈরি হলেও এখন পর্যন্ত জিনজিরার ৬ তলা এই হাসপাতাল ব্যবহার করা হচ্ছে না। নষ্ট হচ্ছে সরকারী স্থাপনা। দেরিতে হলেও আমরা এ হাসপাতালের কার্যক্রম চালু করতে পেরেছি। ইতিমধ্যে আমরা এখানে আউটডোর চালু করেছি। আর আগামী নির্বাচনের আগেই হাসপাতালের কার্যক্রম সম্পূর্ন চালু করার উদ্দ্যেগ নিয়েছি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আজকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আছে বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, দেশে সকল দিকে উন্নত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী কেরানীগঞ্জের সন্তানের মাধ্যমে সাড়া বাংলাদেশের বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করেছেন। বাংলাদেশের মানুষ এখন নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পায়। দেশকে জঙ্গী মুক্ত করেছেন। অত্যান্ত সাহসের সাথে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু করেছেন। পদ্মা সেতু এখন দেশের মানুষের স্বপ্ন  না বাস্তবায়নে রুপ নিচ্ছে। একটি দেশের উন্নয়ন এক দিন দুই দিনে হয় না। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে একটি শ্রেনী দেশকে অন্ধকারের দিকে নিয়ে গেয়েছিলো। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ অন্ধকার থেকে আলোকিত হয়েছে।

সামনে নির্বাচন আসছে। দেশের সকল মানুষ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। দফা হচ্ছে একটাই নির্বাচন বাস্তবায়নের দফা, অন্যা কোন দফা দিয়ে কোন চক্রান্ত করে লাভ হবে না। ঐক্যের নামে জোট করে বিএনপি-জামাতের নির্বাচন বানচালের কোন চক্রান্ত কাজে আসবে না।

এ সময় বিদ্যুৎ ও জ্বালানী প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সারা বাংলাদেশে স্বাস্থ্য খাতে উন্নয়নের ছোয়া বইছে, সেই উন্নয়নের ছোয়া যাতে কেরানীগঞ্জের মানুষ পায় সেই জন্য আমরা বাংলাদেশের সফল  স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ভাইকে এখানে আনা হয়েছে। বিগত দিনে বিএনপি জামাত জোট শুধু মাত্র রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কোন ধরনের পরিকল্পনা বা ভিষন ছাড়াই এই স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলো তৈরি করেছে। শুধুমাত্র ভোটের জন্য বিএনপি জামাত জোট এই ধরনের বহু স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপনা করেছেন। সঠিক প্লান না থাকার জন্য মন্ত্রনালয়ের পক্ষেও এগুলা চালু করা সম্ভব হয়নি। এ সময় কেরানীগঞ্জের স্বাস্থ্যকেন্দ্র গুলোকে আরো উন্নত করার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্হ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, বিভাগীয় পরিচালক পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় কামরুন নাহার, অতিরিক্ত সচিব, হাসপাতাল বাবুল কুমার সাহা, সিভিল সার্জন, ঢাকা ডাঃ মোঃ এহসানুল করিম, ঢাকা জেলা প্রশাসক আবু ছালে মোহাম্মদ ফেরদৌস খান,উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাহে এলিদ মইনুল আমিন, কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ, উপজেলা স্বাস্হ্য কর্মকর্তা ডাঃ মীর মোবারক হোসেন, জিনজিরা ২০ শয্যা হাসপাতালের ইনচার্জ ডাঃ হাবিবুর রহমান, জিনজিরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সাকুর হোসেন সাকু, শুভাঢ্যা ইউনিয়ন চেয়ারম্যন ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠান শেষে হাসপাতাল প্রাঙ্গনে তুলশী ও কামিনী গাছের চারা রোপন করেন মন্ত্রীদ্বয়। এরপর স্বাস্থ্য মন্ত্রী এবং বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী কোন্ডা ইউনিয়নের কোন্ডা ১০ শয্যা হাসপাতাল পরিদর্শন করে সেটাও চালু করার আশ্বাস দেন।

 

এ.এইচ.এম সাগর।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ অনুদান পেলো কেরানীগঞ্জের ৬২২টি মসজিদ

করোনাভাইরাসের কারনে স্থবির হয়ে পরেছে পুরো । করোনা পরিস্থিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সকল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!