স্বপ্ন

ইসলাম কি বলে স্বপ্ন সম্পর্কে

স্বপ্ন সম্পর্কে মানুষের মধ্যে কম বেশী কৌতুহল সর্বজনীন। কম বেশী আমরা সকলে স্বপ্ন দেখতে পাই। কিন্তু সবগুলো স্বপ্ন আমরা সৃতিতে ধরে রাখতে পারিনা। আল­ামা ইমাম গাজ্জালী (রহ:) বলেন, এই জগত ব্যাতিত আরও একটি জগত আছে। তাহার নাম “আলমে আরওয়াহ”বা অদৃশ জগত । মানুষ যখন ঘুমায় তখন পার্থিব জগতের চিন্তা হতে মন অবসর গ্রহন করে“আলমে আরওয়াহয়”বা অদৃশ্য জগতে ভ্রমন করে, সেখানে যাহা দেখে তাই সপ্ন

রাসুল(স:) বলেন, স্বপ্ন তিন প্রাকার হয়ে থাকে।

এক শয়তানী স্বপ্ন। এতে শয়তানের পক্ষ থেকে কিছু বিষয় জাগ্রত হয়। শয়তান আনন্দ ও ভয়াবহ উভয় প্রকার দৃশ্য ও ঘটনাবলী স্মৃতিতে জাগিয়ে দেয়।

দ্বিতীয় প্রকার স্বপ্ন হল মানুষ জাগ্রত অবস্থায় যা কিছু দেখে, নিন্দ্রায় গিয়েও তাই দেখে। অথ্যাৎ কোন সময় মানুষ জাগ্রত অবস্থায় যে সব বিষয় ও ঘটনা প্রত্য¶ করে সে গুলোই সপ্নে নামান প্রকার আকৃতি নিয়ে দৃষ্টি গোচর হয়। এ ধরনের সপ্নে ভিক্তিহীন ।

তৃতীয় প্রকার সপ্ন সত্য ও বিশুদ্ধ। এটি আল­াহর পক্ষ থেকে এক প্রকার ইলহাম তথা ইশারা। যা বান্দাকে সু সংবাদ দানের উদ্দেশ্যে করা হয়। যেমন হজরত ইব্রাহিম (আ:) কে আল­াহ সপ্নে দেখালেন“তুমি তোমার প্রিয় বস্তুকে আমার উদ্দেশ্য কোরবানী কর”।(সূরা আস সফফাত)
এই সপ্ন দেশ অনুসরন করে তিনি তার পুত্রকে কোরবানী করেছেলেন।

রাসুল (স:) সপ্নকে গুর“ত্ব দিতেন। হজরত আনাস (রা:) হতে বর্নিত রাসুল (স:) বলেন,“যে আমাকে সপ্নে দেখবে সে সত্যিই আমাকে দেখবে কেননা আমার আকৃতি শয়তান ধারন করতে পারেনা”।
কোন মুমনি ব্যক্তির সপ্ন মিথ্যা হতে পারেনা। রাসুল (স:) বলেন, “মুমিন ব্যক্তির সপ্ন একটি সংযোগ বিশেষ। এর মাধ্যমে সে তার পালন কর্তার সাথে বাক্যালাপ করার গৌরব অর্জন করে”। (তিবরানী)

কিয়ামতের নিকটবর্তী হলেও মুমিনদের সপ্ন মিথ্যা হবেনা। হজরত আবু হুরায়রা (রা:) বর্নিত রাসুল(স:) বলেন, “নবী (স:) ইন্তেকালের পর পর সু সংবাদ প্রদানের মাধ্যম ছাড়া আর কিছুই থাকবে না। সাহাবীরা প্রশ্ন করলেন, সু সংবাদ প্রদান কারী মাধ্যম কি? তিনি বললেন,ভাল ¯^প্ন”।(বুখারী)

রাসুল(স:) ফজরের নামাজ পর সাহাবীদের দিকে মুখ করে বসতেন। এবং প্রায় সময় সাহাবিরা ¯^প্ন দেখলে তার তাৎপর্য বলে দিতেন। তিনি নিজে সপ্ন দেখতেন এবং সাহাবীদের নিকট হুবহু বর্ননা করতেন।

সপ্ন ভাল মন্দ উভয়ই ধরনের হয়ে থাকে । রাসুল (স:) বলেন, “তোমাদের মধ্যে কেউ পছন্দনীয় বা ভাল সপ্ন দেখে তাহলে সে আল­াহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করবে । প¶াš—রে অপছন্দনীয় বা খারাপ সপ্ন দেখে আল­াহর দরবারে আশ্রয় চাইবে এবং অযু করে পবিত্র কোরআন গুর“ত্বপূর্ন সূরা তেলয়াত করে শুবে।

মো: আবু তালহা তারীফ
নিউজ ঢাকা ২৪।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

বইমেলার পর্দা নামলো আজ

বইমেলার পর্দা নামলো আজ , তবে শেষ দিনেও আশা পূরণ হয়নি প্রকাশকদের শিপংকর শীল: প্রকাশনা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!