বসুন্ধরা

বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকীতে বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজে আলোচনা সভা

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪৩ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজ।

বুধবার সকাল ১০ টায় মেডিকেল কলেজ প্রঙ্গনে এ আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। উক্ত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের সভাতিত্ব করেন বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ আবু উবাইদ মুহাম্মদ মুহসিন। আলোচনা সভায় অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ও মাইক্রোবায়লোজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডাঃ মোঃ নুরুল আলম, ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডাঃ বেলায়েত হোসেন, বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ ওয়াহিদা হাসিন প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্ত্যরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন দিক স্মৃতিচারন করেন। আলোচনা সভায় সভাপতি তার বক্তব্যে উদাহরন ¯^রুপ বলেন ব্রিটিস মানবতাবাদী আন্দোলনের লোকান্তরিত নেতা লর্ড ব্রেলার রকয়ে আমাদেও জাতির পতিাকে নিয়ে একবার বলেছিলেন শেখ মুজিব জর্জ ওয়াসিংটন,মহাত্মাগান্দি এবং ডেব বেলারার চাইতেও বেশী উচু মানের নেতা ছিলেন। আবার কিউবার নেতা ফিদেল কাস্ট্রো একবার বলেছিলেন আমি কখনো খালি চোখে হিমালয় পর্বত দেখিনি। কিন্তু আমি দেখেছি শেখ মুজিবকে। শেখ মুজিবের যে বিশাল ব্যাক্তিত্ব তার যে সাহস সেটাই আমার কাছে হিমালয়। এর মানে শেখ মুজিব দেখা মানে আমার হিমালয় দেখা হয়ে গেছে। আবার বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী হেরল ইউলসান বাংলাদেশের একজন সাংবাদিককে লিখেছিলেন এটা সুনিশ্চিতভাবে তোমাদের জন্য এটি বড় ধরনে জাতীয় বিকান্দ ঘটনা। শেখ মুজিবের বিশাল ব্যাক্তিত্ব ছিল এবং দৃঢ়তাছিল। শেখ মুজিব স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে আসার তিন মাসের ভিতরেই ভারতীয় সৈন্য ফেরত পাঠাতে সক্ষম হয়েছেলিন। এ রকম বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন বক্তরা। এ সময় বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজের সকল শিক্ষার্থী ও অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মাওলানা জমির উদ্দিন দোয়া মোনাজাত করেন।
অপরদিকে বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল জাতির পিতার ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে হাসপাতাল প্রঙ্গনে সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮ পর্যন্ত ফ্রি চিকিৎসার ব্যবসাস্থা করেছে। ফ্রি চিকিৎসার মধ্যে রয়েছে ব্লাড পরিক্ষা, ফ্রি চিকিৎসার মাধ্যমে চোখের ছানি নির্নয় কওে রোগি বাছাই করা ও সকল বিভাগের রোগি দেখা। বসুন্ধরা

আদ্-দ্বীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডাঃ ওয়াহিদা হাসিন বলেন, আমাদের এখানে সাধারনত্ব শিশু-গাইনি ও চক্ষু রোগি বেশী। দেশের অন্যান্য হাসপাতালের চেয়ে আমাদের এখানে রোগিরা মনোরম পরিবেশে ও অল্প খরচে চিকিৎসা সেবা পেয়ে থাকে বলে আমরা অল্প সময়েই আমাদের হাসপাতালের নাম ছড়িয়ে পড়েছে।জাতির পিতার শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আমাদের ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্পের সার্বিক সহযোগিতা করেছেন আমাদের হাসপাতালের প্রোফেসর ডাঃ গোলাম রহমান দুলাল, ডাঃ রুহুল আমিন, ডাঃ সঞ্জয় কুমার সাহা,গাইনি বিভাগের প্রোফেসর ডাঃ আরিফা জাহান সুমা ও বসুন্ধরা আদ্-দ্বীন হাসপাতালের উপ ব্যবস্থাপক মোঃ সিদ্দিকুর রহমান সুমন। তিনি আরো বলেন,বিকেল ৪টা পর্যন্ত শিশু ও গাইনী রোগির সংখ্যাইছিল বেশী। এ পর্যন্ত সকল বিভাগের ৭৫০ রোগিকে ফ্রি চিকিৎসা দিতে পেরেছি এবং প্রায় এক শত চক্ষু রোগিকে পরিক্ষা করে মাত্র ২৫জন চোখে ছানি পড়া রোগি বাছাই করা হয়েছে। যা আমাদের হাসপাতালের সম্পূর্ন খরচে তাদের অপারেশন করা হবে।

এ.এইচ.এম সাগর

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কমল- মমতা দম্পতির সংগ্রামী জীবনের গল্প

আব্দুর রশিদ ও সজিবুল ইসলাম হৃদয়ঃ “কোনদিনও কোন কালেও পুরুষের তরবারী একলা হয়নিকো জয়ী শক্তি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!