শিশুকে কুপিয়ে হত্যা

কেরানীগঞ্জে পাঁচ বছরের শিশুকে কুপিয়ে হত্যা

কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধিন ভাংনা মজিবনগর এলাকায় পাঁচ বছরের এক শিশুকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত শিশুর নাম মোঃ রোহান ওরেফে সোহান। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে।

পুলিশ শনিবার ভোর রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে গিয়ে নিহত শিশুর সুরতহাল রিপোর্ট করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করেছে। এ ঘটনায় গতকাল শনিবার দুপুরে নিহত শিশুর মামা মোঃ জাহিদ হোসেন বাদী হয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে।

জানা যায়, একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে বাবা মোঃ শহিদ বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। সে এখন কথাবার্তা কিছু বলছে না। শিশু রোহান ওরফে সোহান নিহতের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে ভাংনা মজিবনগর এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

সুত্রে জানাযায়,শুক্রবার রাত ১০ টার সময় সোহানের মা তাছলিমা আদরের একমাত্র ছেলে রোহানকে আম খাওয়াচ্ছিলেন। এরপর হঠাৎ ছেলে রোহানকে খুজে পাচ্ছেন না মা তাছলিমা। বাড়ির পাশে বাবা শহিদ মিয়া চায়ের দোকান করেন। মা দৌড়ে দোকানে গিয়ে শিশুর বাবার কাছে জানতে চায় রোহান দোকানে এসেছে কি না। বাবা না করলে তখন শিশু রোহানকে খোজাখুজি শুরু হয়।

এর প্রায় আধ ঘন্টাপর এলাকারই সোহান নামের এক হিন্দু বাচ্চা ছেলে জানায় বাড়ির পিছনে একটি পরিত্যাক্ত জায়গায় বাচ্চার কান্না শোনা যাচ্ছে। সেখান দিয়ে সে আসতেছিলেন শব্দ শুনে ভয়ে দৌড়ে চলে এসেছে। তখন শিশু রোহানের স্বজনরা সেখানে গিয়ে রক্তাক্তবস্থায় রোহানকে দেখতে পায়। সেখান থেকে তাকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য প্রথমে স্থানীয় সাজেদা ক্লিনিক পরে মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি করেন।

মিটফোর্ড হাসপাতালে শিশুর অবস্থার অবনতি হলে পরবর্তিতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।

নিহতের মামা মামলার বাদী মোঃ জাহিদ হোসেন জানান, তার বোন তাছলিমা ভাংনা মজিব নগর জনৈক লিটনের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। বাড়ির পাশেই ভগ্নিপতি মোঃ শহিদ চায়ের দোকান করে। শুক্রবার রাতে হঠাৎ ভাগ্নে রোহান নিখোজ হয়। এর আধঘন্টা পর ভাগ্নে রোহানকে বাড়ির একশ গজ পিছনে একটি পরিত্যাক্ত জায়গার ভাউন্ডারির ভিতর থেকে উদ্ধার করি।

তার মাথার দুই পাশে, বুকে ধারালো অস্ত্রের আঘাত এব মুখের ভিতর বালু ঢুকানোছিল। যাতে করে আঘাত করার সময় কোন ডাকচিৎকার করতে না পারে। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে গেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোহানকে মৃত ঘোষনা করে। আমার ধারনা এলাকায় কিছু ওদের শত্রু রয়েছে। তারাই পরিকল্পিতভাবে রোহানকে হত্যা করেছে। আমি তাদের শাস্তি চাই।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ আমিরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে শনিবার ভোর সোয়া ৫টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে গিয়ে নিহত শিশুর সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য ওই হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছি। নিহতের মাথার দুই পাশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে কাটা জখম, বুকের মাঝখানে একটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এ ব্যাপারে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, এ ঘটনায় নিহতের মামা বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। পাশাপাশি পুলিশ ঘটনাস্থল তদন্ত করে এ হত্যার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান চলছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

লক ডাউনে ক্রেতাশূন্য কেরানীগঞ্জ গার্মেন্টস পল্লী ; দিশেহারা ব্যবসায়ীরা

লক ডাউনে হাজার কোটি টাকার লোকসানের আশংকা দোকান খুললেও ক্রেতাদের সমাগম নেই  ক্রেতা না থাকার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!