ছাত্রলীগ

এশাকে পুনরায় পদে ফেরাল ছাত্রলীগ

ছাত্রী নির্যাতনের অভিযোগে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি সুফিয়া কামাল হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইশরাত জাহান এশাকে তার আগের পদে ফিরিয়েছে ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগ বলছে, তদন্ত কমিটির রিপোর্ট অনুসারে সম্পূর্ণ নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ায় তার ওপর আরোপিত বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে স্বপদে পুনর্বহাল করা হলো।

এরআগে কোটা সংস্কার আন্দোলনের মধ্যে গত মঙ্গলবার মধ্যরাতে সুফিয়া কামাল হলে আন্দোলনকারী এক শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে এশার বিরুদ্ধে।

ওই অভিযোগ ওঠার পর হলের সাধারণ শিক্ষার্থীদের তুমুল বিক্ষোভের মুখে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় ও সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এশার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ধরে ধরে নির্যাতন চালাচ্ছিলেন। মোর্শেদা আক্তার নামে এক শিক্ষার্থীর পাও কেটে দেন তিনি।

media

অন্যদিকে এশার পক্ষে যারা, তারা বলছেন, মোর্শেদার পা কেউ কাটেনি, বরং এশার কক্ষের জানালার কাচে লাথি মারতে গিয়ে তার পা কেটে যায়।

এসব অভিযোগ পাল্টাপাল্টি অভিযোগের মধ্যে এশার পাশে দাঁড়ান ছাত্রলীগের সাবেক কয়েকজন নেতা। তারা এশার এক আত্মীয়ের বাড়িতে গিয়ে তার গলায় ফুলের মালা পরিয়ে দিয়ে আসেন।

মঙ্গলবার রাতে এশার বিরুদ্ধে বিক্ষোভে ফুঁসে ওঠা ছাত্রীরা তার গলায় জুতার মালা পরিয়েছিলেন।

ছাত্রলীগের সাবেক যে নেতারা এশার পাশে দাঁড়িয়েছেন তাদের দাবি ছিল এশার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে তাকে সসম্মানে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরিয়ে আনতে হবে।

আরো পড়ু: আমি জেল থেকে বলছি

 

সুত্র : জাগো নিউজ।

 

=====================================

জেমস:

 

জেল থেকে বলছি – সুরের জাদুকর – জেমস

পুরো নাম ফারুক মাহফুজ আনাম জেমস। বাংলাদেশের এই বিখ্যাত রক সংগীত শিল্পীর জন্ম ১৯৬৪ সালের ২ অক্টোবর রাজশাহী বিভাগের নওগা জেলায়।তবে তিনি বেড়ে ওঠেন চট্টগ্রামে।তার বাবা ছিলেন একজন সরকারী কর্মচারী, যিনি পরবর্তীতে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সংগীত জেমসের পছন্দ হলেও তার পরিবারের তা পছন্দ ছিল না।নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় গানের জন্য পরিবারের সাথে অভিমান করে ঘর ছেড়েছিলেন কিশোর বয়সে।আশির দশকে চট্টগ্রাম আজিজ বোর্ডিং এর ১২/১২ নাম্বার একটি ছোট কামড়ায় শুরু করেন সংগ্রামী জীবন।এখান থেকেই তার সংগীত ক্যারিয়ার শুরু।কিছু বন্ধুদের নিয়ে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ফিলিংস নামক একটি ব্যান্ড যার বর্তমান নাম হচ্ছে নগরবাউল।তার ব্যান্ড দলের প্রধান গিটারিস্ট ও কন্ঠদাতা তিনি নিজেই।গান তৈরীর নেশায় আজিজ বোর্ডিং-এ তিনি কাটিয়েছেন অনেক বিনিদ্র রাত।

১৯৮৬ সালে ঢাকায় এসে ‘স্টেশন রোড’ নামক প্রথম এলবাম প্রকাশ করেন তারপর ‘জেল থেকে বলছি’।জেমস তার সুরের মাধুর্য দিয়ে ফুটিয়ে তুলেছেন নীরব হাহাকার,প্রেম আকুতি,অন্যায় প্রতিবাদের ভাষা।

১৯৯২ সালে জেমস বাংলাদেশের মডেল ও অভিনেত্রী রথীকে বিয়ে করেন।২০০১ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়, পরবর্তীতে বেনজীরকে বিয়ে করেন।
তখন ১৯৯৩ সাল, ‘জেল থেকে বলছি’ নিয়ে আসা গানটি দিয়ে আবার ঝলকানি দিয়ে জানান দেন জেমস আছে।এই গানটি দিয়ে নতুন প্রজন্মের শ্রোতাদের নিকট ভ্যারিয়েশন ও ইমেজ তৈরি করেন।এ সময়টাকে অডিও বাজারের চরম সফল যুগ বলা হয়।

বাংলাদেশের সংগীত বাজারে যখন ‘জেমস’ আলোচিত একটি নাম তখন তার গায়কী ধরণ নিয়ে কিছু ভয়াবহো সমালোচক তৈরী হয় এবং তার বিরোধিতা করতে শুরু করেন।১৯৯৬ সালে সেইসব সমালোচকদের মুখে ছুড়ে মারেন কবি শামসুর রহমানের কবিতা থেকে নেওয়া ‘সুন্দরীতমা’ গানটি।কবির অনুমতি নিয়েই জেমস কবিতাকে সুরের মাধুর্যতা দিয়ে গানে রুপ দিয়েছেন।

বাংলাদেশের সীমানা ছাড়িয়ে ভারতেও পেয়েছেন সমান জনপ্রিয়তা। ২০০৬ সালে ভারতের বিখ্যাত প্রযোজক,পরিচালক মহেষ ভ্যাটের গ্যাংস্টার ছবিতে ভিগি ভিগি গান গেয়ে হয়েছেন কোটি জনতার প্রিয় শিল্পী। এরপর একই প্রযোজকের ও লামহে মেট্রো ছবিতে কণ্ঠ দিয়ে কাপিয়েছেন পুরো ভারত।সর্বশেষ ওয়ার্নিং ছবির টাইটেল গানে কণ্ঠ দিয়েছেন।

এরই মধ্যে মুম্বাই স্টুডিওতে রেকর্ড করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন নিজের জনপ্রিয় গানগুলো হিন্দী ভার্সনে করার যা অনেক দিন থেকেই করার কথা চলছিল।যে গানের তালিকায় থাকছে – মা,কবিতা,বাবা,জেল থেকে বলছিসহ জনপ্রিয় দশটি গান।

যে আজিজ বোর্ডিং থেকে আজকের জেমসের উথান হয়েছিল সেই আজিজ বোর্ডিংকে উৎসর্গ করে গেয়েছেন আমার প্রিয় আজিজ বোর্ডিং গানটি।

জেমস বাংলাদেশের সকল সংগীত প্রিয় মানুষের কাছে (গুরু) নগরবাউল নামে পরিচিত।সুরের মাধুর্য দিয়ে তিনি কোটি কোটি সংগীত প্রেমীর হৃদয় স্পর্শ করেছেন।আজকের বিশ্ব তারকা জেমসের দুঃখ তার সাফল্য বাবা-মা কেউই দেখে যেতে পারেন নি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

রক্তের বন্ধনে আলো ছড়াচ্ছে ‘ব্লাড ডোনার্স ফ্যামিলি

জহিরুল ইসলাম মিলন, টাঙ্গাইল (ধনবাড়ী) প্রতিনিধিঃ- টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে গতবছর করোনার প্রভাব যখন বেড়ে বাংলাদেশ সরকার …

18 comments

  1. Your way of telling the whole thing in this post is truly
    fastidious, all be able to without difficulty know it, Thanks
    a lot.

  2. Terrific post however I was wondering if you could write a litte
    more on this topic? I’d be very grateful if you could elaborate
    a little bit more. Cheers!

  3. Have you ever considered writing an e-book or guest authoring on other blogs? I have a blog based upon on the same ideas you discuss and would love to have you share some stories/information. I know my viewers would enjoy your work. If you’re even remotely interested, feel free to shoot me an e mail.|

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!