পুল বিলিয়ার্ড

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে পুল বিলিয়ার্ড খেলা

খেলাধুলার দিক দিয়ে বিশ্বের প্রতিটি দেশের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গিয়ে ক্রিকেট, ফুটবল, বাস্কেটবল,টেনিস যেমন সবার মন কেরে নেওয়া খেলা সে দিক থেকে পিছিয়ে নেই ‘পুল’ বা বিলিয়ার্ড গেমস।

রাজধানীর ঢাকায় যেখানে পা ফেলার জায়গা পাওয়া যায় না, সেখানে খেলার মাঠ মানে অবিশ্বাস কিছু তাই অনেকেই এখন লক্ষ দিচ্ছেন ইনডোর গেমসে।
ইনডোর গেমস গুলোর মধ্যে পুল বিলিয়ার্ড অন্যতম ও প্রায় জনপ্রিয় একটি গেমস।

কয়েক বছর আগেও বাংলাদেশে খেলাটির জনপ্রিয়তা না থাকলেও, বর্তমানে এটি একটি জনপ্রিয় খেলা। বিশেষ করে তরুণদের কাছে। রাজধানীর ধানমন্ডি থেকে শুরু করে মোহাম্মদপুর, সিমান্ত সক্য়ার, হাতিপুল,বসুন্ধরা সিটি সহ আরো রয়েছে মতিঝিল,ওয়ারী,গেন্ডারিয়া,বেচারাম ডেউড়ি স্থানে অবস্থিত। বাংলাদেশ বিলিয়ার্ড ফেডারেশনে গিয়ে দেখা গেল অসংখ্য তরুণ মজে আছে বিলিয়ার্ড এর বোর্ড এ। কেউ আবার হাসি ঠাট্টায় মগ্ন আবার কেউ (পুল খেলার লাঠি) দিয়ে বল আঘাত করে সেটাকে পকেটে ফেলছেন আবার অনেকের কাছে খেলাটি দাঁড়িয়েছেন নেশায়।

প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত খোলা থাকে ফেডারেশন সহ অন্যান্য সকল পুল গেমস এর স্থান গুলো এতে ছেলে-মেয়ে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, চাকুরীজিবি সহ সব পেশার লোকজন আসে, অবসর কাঁটাতে আসাদের মাঝে এমনি একজন তরুন মোঃ অানাস নিউজ ঢাকা ২৪ কে বলেন, যখন অবসর পাই তখনই চলে আসি বন্ধুরা মিলে। ২৫ থেকে ৪০ টাকা লাগে এক গেম খেলতে। বাহিরে তো এমনিতেই অনেক টাকা খরচ করি তার উপরে নানান ঝামেলা ও আব্বু আম্মুর বোকা শুনতে হয় তার চাইতে এটা ভালো। বড়দের খেলাটা দেখছি ও শিখতেছি, আমার ভালই লাগে। অন্য দিকে আরেকটি বোর্ডে দেখা গেল কয়েকজন তুরুণিরা মিলে খেলছেন তারা জানান, পুল খেলা বেশ উপভোগ করেন তারা।এ জন্য নিয়মিতই খেলতে আসেন। খেলার নিয়ম কানুন ও তেমন কঠিন নয় বলে জানালেন তারা এছারা প্রত্যেক গেম সল্প মূল্যের বিনিময় খেলা যায়।

অন্য দিকে আরেক পুল গেম প্রেমী হাসান জানায় আমার বাসা এখান থেকে একটু দুর আজিমপুরে তবে পুল বিলিয়ার্ড খেলার জন্য আমি প্রতিদিন ধানমন্ডি চলে আসি আমার অভিযোগ যেহেতু এই খেলাটি দিন দিম জনপ্রিয় তা লাভ করছে সেহেতু এটি প্রতিটি এলাকায় একটি করে পুল বিলিয়ার্ড ক্লাব তৈরী করা দরকার তাহলে আর আমাদের এত কষ্ট করে প্রতিদিন আসা লাগবে না তেমনি এটি এক স্থান থেকে চাপ ও কমবে।
নগরের বিভিন্ন বিলিয়ার্ড সেন্টারে বিলিয়ার্ড, পুল,ও স্নুকার -এই তিন ধরনের খেলা চালু আছে। পুল খেলার টেবিলটি নয় ফুট দৈর্ঘ্য ও পাচঁ ফুট চওড়া। স্নুকার ও বিলিয়ার্ড টেবিলের দৈর্ঘ্য ১২ ও প্রস্থে ছয় ফুট। তিনটি খেলার মধ্যে পুলই বেশি বাগ মানুষ খেলে থাকে। পুল খেলতে ২৫-৪০ টাকা স্নুকার খেলতে ৬০ টাকা এবং বিলিয়ার্ড খেলার জন্য ঘন্টায় ২০০ থেকে ৩০০ টাকা গুনতে হয় প্রত্যেক গেম এ।

সুত্র:= নিউ স্পোর্টস

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ধুঁকতে ধুঁকতে কোয়ার্টারে উরুগুয়ে

  কোপা আমেরিকার সবচেয়ে বেশি ১৫ বার শিরোপা জিতেছে উরুগুয়ে। ২০১১ সালে সর্বশেষ শিরোপা জয়ের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!