দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন দাম নিয়ন্ত্রণ করতে হবে

বেশ কিছু দিন যাবত রাজধানী ঢাকা সহ সারা দেশের বাজারগুলোতে বেড়েই চলছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র এবং খাদ্য দ্রব্যের দাম।সয়াবিন তেল লিটারে বিক্রি হচ্ছে ১৫৫-১৬০ টাকা।চিকন চালের কেজি ৬৫-৭০ টাকা।

বেড়ে গিয়েছে চিনি,পেঁয়াজ সহ অন্যান্য জিনিসের দাম।ব্রয়লার মুরগি কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা।অস্বাভাবিক হারে এসব প্র‍য়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় বিপাকে আছে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত শ্রেনীর মানুষজন।

তবে এ ক্ষেত্রে পুরান ঢাকার বিভিন্ন মেসে থাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আছে চরম দুর্ভোগে।মেস বাসায় থেকে নিজেরা অথবা বুয়া দিয়ে রান্না করিয়ে তাদের খেতে হয়।

চাল,ডাল,তেল,পেয়াজ,ব্রয়লার মুরগি সহ অন্যান্য জিনিসপত্রের দাম অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়ায় বাজার করতে তাদের গুনতে হচ্ছে মোটা অংকের টাকা।যা বেশির ভাগ শিক্ষার্থীদের সাধ্যের বাইরে।

 

এক বেলা খাবার জন্য আগে গড়ে খরচ হতো ৩০-৩৫ টাকা সেই খরচ বেড়ে এখন ৬০ টাকা পর্যন্ত হচ্ছে।বাজারমূল্যের হঠাৎ এই পরিবর্তনে খাপ খাইয়ে নিতে পারছেনা শিক্ষার্থীরা । বেশির ভাগ শিক্ষার্থীদের আয়ের উৎস টিউশন।

টিউশনির টাকায় সব খরচ চালানোর পর খাবারের জন্যও গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ।যার কারনে বেশির ভাগ শিক্ষার্থীই চরম দুশ্চিন্তা নিয়ে দিন কাটাচ্ছে।বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ক্যান্টিনেও এত অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থীর নিয়মিত খাবারের ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়।

শিক্ষার্থীদের এই দুরাবস্থা যেন দেখার নেই কেউ।সরকারের কাছে আবেদন থাকবে অতিদ্রুত নিয়মিত বাজার মনিটরিং করে নিত্যপ্র‍য়োজনীয় দ্রব্যের নির্দিষ্ট দাম ধার্য করে দেওয়ার।

লেখক- ফাইয়াজুল আজাদ রুদ্র, শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-

ভাষা আন্দোলন দিবস বা রাষ্ট্রভাষা দিবস নামেও পরিচিত। ১৯৫২ সালে তদান্তধীন পূর্ব বাংলায় আন্দোলনের মাধ্যমে …

error: Content is protected !!