স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী

মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন করতে না পারলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করা যাবে না: স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, মাদক কে কন্ট্রোল না করতে পারলে প্রজন্মের পর প্রজন্ম শেষ হয়ে যাবে। আমরা যে উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছি সেখানে হোচট খাবো। আমাদের সবাইকে মাদকের বিরুদ্ধে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। ৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার কেরানীগঞ্জের বসুন্ধরা আবাসিক রিভার ভিউ এলাকায় বাংলাদেশ পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্টের আধুনিক মানের মাদকাশক্তি নিরাময় ও মানসিক স্বাস্থ্য পরামর্শ কেন্দ্র ’ওয়েসিস’ এর উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জঙ্গী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষনা করেছিলেন। সেখানে আমরা সফল হয়েছি। মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী জিরো টলারেন্সের কথা বলেছেন। মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আমাদের জয়ী হতেই হবে, না হলে আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করতে পারবো না। যাদের নিয়ে আমরা স্বপ্ন দেখছি ২০৩০,২০৪১। মাদক আমাদের দেশে তৈরী হয় না। মাদকের ভয়াল থাবায় ধ্বংশ হয়ে যায় একটি পরিবার। মাদকের বিরুদ্ধে শুধু সরকার নয় , জনগন জনপ্রতিনিধি সবার এগিয়ে আসতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডাকে জঙ্গী দমনে যে ভাবে সকলে একসাথে কাজ করে জঙ্গী দমন করতে পেরেছি । তেমনি মাদকের বিরুদ্ধে সকল শ্রেনী পেশার মানুষ এক হয়ে কাজ করে মাদক নির্মূল করতে হবে। অসমর্থিত হিসাবে এদেশে ৮০ লক্ষ লোক মাদকাশক্ত। এদের চিকিৎসা দেয়ার জন্য শিল্পাঞ্চলে একটি হাসপাতাল রয়েছে। এই হাসপাতালটিতে অনেক কিছুই নেই,অনেক অসুবিধা রয়েছে তারপরেও এটি চলছে। আমরা সবাইকে চিকিৎসা দিতে চাই। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সব জায়গায় মাদক দ্রব্য নির্মূলে কাজ করছে। মাদক নিয়ন্ত্রনে সাধারন জনগন সবাইকে সহযোগীতা করতে হবে

উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রী জাহিদ মালেক, বিদ্যুৎ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডাঃ আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরসীদ আলম,মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডল, ঢাকা জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম, কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন আহমেদ, মনোবিদ মেহেদি কামাল, গোলাম রাব্বানী, প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান। অনুষ্টানটির সভাপতিত্ব করেন পুলিশের আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ।

উল্লেখ্য উন্নত ও আাধুনিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ পুর্লিশ কল্যান ট্রাস্টের উদ্দ্যোগে দেশের সবচেয়ে আধুনিক মাদক নিরাময় ও পূর্নবাসন কেন্দ্র ওয়েসিস কেরানীগঞ্জের বসুন্ধরা রিভারভিউ আবাসিক এলাকায় উদ্ভোধন করা হয়েছে। গত ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ইতিমধ্যে রোগী ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। পুনর্বাসন কেন্দ্রটির পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন পুলিশ সুপার ডা. এসএম শহীদুল ইসলাম পিপিএম। সাততলা বিশিষ্ট ৬০ শয্যার এই পূর্নবাসন কেন্দ্র ২৪ ঘন্টাই খোলা থাকবে। এতে রয়েছে অত্যাধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা।#

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

সোনাইমুড়ীর থানারহাট হাই স্কুল অ্যালামনাইয়ের নতুন কমিটি ঘোষণা

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী থানারহাট হাই স্কুল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের নতুন কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী দুই …

error: Content is protected !!