ত্রিশালে প্রাণ ফিরছে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান গুলোতে খুশি শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ

 

তাসনীমুল হাসান মুবিন, স্টাফ রিপোর্টারঃশিক্ষার শহর ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা গুলোতে কর্মচাঞ্চল্য ফিরতে শুরু করেছে। মহামারী করোনার কারণে দীর্ঘ ৭৭ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক ত্রিশাল স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসাগুলো খোলার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে। সকলের মাঝে যেন আনন্দ বিরাজ করছে। ত্রিশাল সরকারি নজরুল একাডেমি ঘুরে দেখা গেছে মাঠে অনেক ছেলেরা খেলাধূলা করছে।

শিক্ষকেরা হাসিমুখে পারষ্পরিক কুশলাদি বিনিময় করছেন। শিক্ষকদের দেখে ছাত্ররা খেলা ছেড়ে দৌড়ে কাছে আসছে। কথা বলছে আবার খেলায় ফিরে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠান খোলার প্রতিক্রিয়ায় সরকারি নজরুল একাডেমির প্রধান শিক্ষক একেএম কামরুল হাসান (বিএসসি) বলেন,”প্রতিষ্ঠান খোলে দেওয়ায় সরকার প্রধানকে ধন্যবাদ জানাই। কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাজীবন চালু হওয়ায় সকল শিক্ষার্থী, অভিভাবকদের মত আমরাও বেজায় খুশি। আশা করি কোমলপ্রাণ শিক্ষার্থীদের কোলাহলে আবার মুখরিত হবে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ।”
এরপর বীররামপুর জান্নাতুল উলুম আলিম মাদ্রাসা,ত্রিশালে গিয়ে দেখা গেল অফিস কক্ষে আট-দশ জন শিক্ষক খোশগল্পে ব্যস্ত।

বাইরে দাখিল ও আলিম শিক্ষার্থীদের পদচারণা। কিছু ইবতেদায়ী ও দাখিল স্তরের শিক্ষার্থীরাও এসেছে মাদ্রাসার খোঁজখবর নিতে।সবার মাঝেই যেন উৎসবের আনন্দ। একজন শিক্ষক আশরাফুল ইসলামের (ইংরেজি প্রভাষক) সাথে কথা বললে তিনি জানান,” ঘরে বসে বসে আর সময় কাটেনা।তাই মাদ্রাসায় আসলে ভালো লাগে।ছাত্র ও শিক্ষকদের সাহচর্যে আবারো আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে।এটা সকলের জন্য খুশির খবর।”

ত্রিশাল পৌরসভার একজন ছাত্র অভিভাবক মাহমুদউল্লাহ বলেন তিনি তার ছাত্রদের নিয়ে মহাবিপদে আছেন।স্কুল ছাড়া বাচ্চারা পড়তেই চায়না।দিন দিন তারা অবাধ্য হয়ে উঠছে।স্কুল খোলায় তাই তিনি কিছুটা চিন্তামুক্ত হতে পারবেন বলে আশা করছেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

তিন জেলার মানুষ বিনামূল্যে পাবে চক্ষু চিকিৎসা

জবি প্রতিনিধি: পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও ও মানিকগঞ্জ এই তিন জেলায় অসহায়দের বিনামূল্যে চক্ষুসেবা দিতে চারটি চক্ষু …

error: Content is protected !!