মাধবপুর প্রবাসীর সহায়তায় নতুন ঘর পেল প্রতিবন্ধী মাহমুদা

শেখ জাহান রনি, মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজলার ধর্মঘর ইউনিয়নের হাপানিয়া গ্রামর অতিদরিদ্র প্রতিবন্ধী মাহমুদা খাতুনক তিন শিশু সন্তান রেখে ১২ বছর আগে চলে যায় স্বামী ফজর আলী। অবুঝ তিনটি শিশু সন্তান নিয়ে তার বাড়িতে অতি কষ্ঠে দিন কাটাত মাহমুদা খাতুন। হাপানিয়া গ্রাম ৭ শতাংশ ভিটমাটি থাকলেও এখানে বসবাস করার মত ঘর ছিলনা। আত্বীয়স্বজনদের আশ্রয়ে এতদিন জীবন চলত মাহমুদার । মাহমুদার এই অতিকষ্ঠের কথা শুনে ধর্মঘর ইউনিয়নের মধ্যপ্রাচ্য থাকা রেমিটেন্স যোদ্ধা মাহমুদার ঘর তৈরির কাজে এগিয়ে আসেন স্থানীয় যুবক সাইফুল ইসলাম জুনায়েদ বলেন, মাহমুদা তিনটি শিশু সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এ কথা শুনে ধর্মঘর পশ্চিমাঞ্চলের প্রবাসে থাকা কয়েকজন প্রবাসি বন্ধুরা একত্র হয়ে মাহমুদার পরিবারের জন্য ঘর তৈরীর করার সিন্ধান্ত একমত হন। মাহমুদার ছেলে শরিফুল ইসলাম বলেন, আগে আমাদের থাকার কোন ঘর ছিলনা। এখন প্রবাসিদের সহযোগিতায় আমরা সুন্দর একটি ঘর পেয়েছি।

কুয়েত প্রবাসী রেমিটেন্স যোদ্ধা জসিম উদ্দিন বলেন, এ ধরনের অসহায় মানুষের জন্য ঘর তৈরি করে দিতে
পরলে অমরা নিজদের ধন্য মনে করি। সবাইক তার সামর্থ্য অনুযায়ী অসহায় মানুষের পাশে দাড়াঁনো উচিত। মাধবপুর উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন বলেন, এখন করোনাকালীন সময়ে প্রবাসী একজন অসহায় মানুষর থাকার জন্য ঘর তৈরি করে দিয়েছেন এটি একটি মহৎ কাজ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

তিন জেলার মানুষ বিনামূল্যে পাবে চক্ষু চিকিৎসা

জবি প্রতিনিধি: পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও ও মানিকগঞ্জ এই তিন জেলায় অসহায়দের বিনামূল্যে চক্ষুসেবা দিতে চারটি চক্ষু …

error: Content is protected !!