আঁশফল বা কাঠলিচু খুবই সুস্বাদু ফল

 

আঁশফল বা কাঠলিচু ক্রান্তীয় অঞ্চলের গাছ। এটি লিচু জাতীয় খুবই সুস্বাদু ফল। দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার উদ্ভিদ। কাঠলিচু ফল গাছ মধ্যম আকারের চিরসবুজ গাছ। ফলবিহীন গাছ দেখলে মনে হবে লিচুগাছ।

জন্মস্থান: এ ফলের জন্মস্থান দক্ষিণ-পশ্চিম ভারতে হলেও বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের অনেক জায়গায় এ গাছ দেখা যায়। ৬ থেকে ৮ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। ছোট করেও রাখা যায়।

 

পরিচিতি: আঁশফল স্থানভেদে কাঠলিচু, ছোট লিচুু বা লংগান নামেও পরিচিত। তবে আভিধানিক নাম আঁশফল। এ ফল ও লিচু গাছের ফল ধরার সময় একই। ফল দেখতেও অনেকটা লিচুর মতো, গোলাকার। বীজও গোলাকার। তবে আকারে ছোট, রসাল অংশ খুবই কম। লিচুর চেয়ে আমিষের পরিমাণ বেশি।

প্রাপ্তিস্থান: বাণিজ্যিকভাবে চাষ না হলেও গ্রামের হাট-বাজারে আঁশফল বিক্রি হতে দেখা যায়। আমিষগুণে ভরা এ ফলের কদর থাকলেও পরিচিতি কম। শহরাঞ্চলেও আঁশফল গাছ দেখা যায়। তবে শহরের অনেকেই জানেন না, এ ফল খাওয়া যায়।

 

চাষপদ্ধতি: এর গাছ গরম ও ঠান্ডা দুটোই সহ্য করতে পারে। চাষের জন্য বিশেষ কোনো মাটির প্রয়োজন হয় না। সাধারণত এপ্রিল-মে মাসে বীজ সংগ্রহ করতে হয়। এ গাছ সাধারণত ছায়াবৃক্ষ হিসেবে বেশি পরিচিত। ফলনের সময় আগস্ট-সেপ্টেম্বর।

পুষ্টিগুণ: এ ফলে প্রচুর শর্করা, ভিটামিন-সি এবং খনিজ উপাদান আছে। প্রতি ১০০ গ্রাম অংশে-

 

• ৭২ গ্রাম পানি
• ১০৯ কিলোক্যালরি শক্তি
• ৮.০ মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি
• ২৮০ আইইউ ভিটামিন-এ
• ২.০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম
• ৬.০ মিলিগ্রাম ফসফরাস
• ১.০ গ্রাম প্রোটিন
• ০.৫ গ্রাম ফ্যাট বিদ্যমান।

ভেষজগুণ: কাঠলিচুর শুকনো শাঁস পাকস্থলীর প্রদাহে, অনিদ্রা দূর করতে এবং বিষের প্রতিষেধক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। গাছের পাতা এলার্জি, ক্যান্সার, ডায়াবেটিস ও কার্ডিওভাসকুলার রোগ নিরাময়ে ব্যবহার করা হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

খামারি

অনলাইন বিক্রিতে আস্থা নেই খামারিদের

সারা দেশের ন্যায় আসন্ন ঈদ উল আযহা উপলক্ষে কেরানীগঞ্জের পশুর খামারগুলোও প্রস্তুত রয়েছে পশু বিক্রির …

error: Content is protected !!