আম্পায়ারিং বিতর্কে এবার মাহমুদউল্লাহর শাস্তি

 

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) ক’দিন আগেই আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মানতে না পারায় তুলকালাম কাণ্ড ঘটিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। এজন্য বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারকে তিন ম্যাচ নিষেধাজ্ঞাসহ আর্থিক জরিমানাও গুনতে হয়েছে। এবার আম্পায়ারিং বিতর্কে জড়ালেন দলের সবচেয়ে ‘শান্তশিষ্ট’ বলে খ্যাত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।
বুধবার (২৩ জুন) অনুষ্ঠিত হয় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স বনাম প্রাইম ব্যাংক ম্যাচ। ওই ম্যাচেই ঘটে এ ঘটনা। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসেন্তোষ জানানোয় ‘অসদাচরণের’ অভিযোগ এনে জরিমানা করা হয় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। শাস্তি হিসেবে ২০ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হলো তাকে।
ম্যাচ রেফারি রকিবুল হাসান বলেছেন, ‘মাহমুদউল্লাহ আম্পায়ারদের সিদ্ধান্তে চ্যালেঞ্জ করেছে, বডি ল্যাঙ্গুয়েজ খারাপ ছিল। মাহমুদউল্লাহ আগের ম্যাচেও পেনাল্টি পেয়েছে। এজন্য এখানে পেনাল্টি ডাবল হয়ে গেছে। ২.৮ আচরণবিধি ভঙ্গ করায় তাকে শাস্তি এই দেওয়া হলো।’
বুধবারের ম্যাচে অলক কাপালিকে আউটের জোরালো আবেদন করেছিল গাজী গ্রুপ। নাসুম আহমেদের শর্ট বল হালকা টার্ন করে উইকেটকিপারের গ্লাভসে যায়। স্লিপে থাকা মাহমুদউল্লাহ আবেদন করতে করতে এগিয়ে আসেন, আর কভার থেকে আরিফুল আবেদন করে সাড়া না পাওয়ায় অবাক। উইকেটকিপার আকবর আলী আম্পায়ারের ঠিক সামনে। তাদের আবেদন যেন থামছেই না! বিষয়টা এতটাই নিশ্চিত ছিল যে, সবাই মিলে হাঁটু গেড়ে বসে আম্পায়ার মাহফুজুর রহমানের কাছে আউটের আবেদন জানান। কিন্তু এত জোরাল আবেদনও আম্পায়ার মাহফুজুর রহমান সাড়া দেননি।

উল্লেখ্য, সাকিবের রাগারাগির সেই ম্যাচেও আম্পায়ার হিসেবে ছিলেন মাহফুজুর রহমান।
শেষ পর্যন্ত আবেদনে সাড়া না পেয়ে কিছুটা শিশুসুলভ আচরণই করেন মাহমুদউল্লাহ। মাটিতে ঘুষি, গড়াগড়ি করে তিনি থার্ড ম্যানে গিয়ে কিছুক্ষণ বসেও থাকেন চুপচাপ। আম্পায়ার তাকে বারবার খেলা চালু করতে বললেও তিনি বসেই থাকেন। কিছুক্ষণ পরে খেলা শুরু হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ধুঁকতে ধুঁকতে কোয়ার্টারে উরুগুয়ে

  কোপা আমেরিকার সবচেয়ে বেশি ১৫ বার শিরোপা জিতেছে উরুগুয়ে। ২০১১ সালে সর্বশেষ শিরোপা জয়ের …

error: Content is protected !!