‘সিনিয়র রোভার মেট’ নির্বাচিত হলেন জবির ২২ রোভার

জবি প্রতিনিধি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপের ২২ রোভার ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ‘সিনিয়র রোভার মেট’ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন।বুধবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপের সভাপতি কামরুল হাসান এবং সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপের ইউনিট সমূহের কার্যক্রম গতিশীল করার লক্ষ্যে গত ১৮ জুন রোভার-ইন-কাউন্সিলের মিটিংয়ে বর্তমান শিক্ষাবর্ষে রোভারিং কার্যক্রমের সক্রিয়তা, লগবই পর্যালোচনা ও মৌখিক পরীক্ষার ভিত্তিতে তাদেরকে সিনিয়র রোভার মেট হিসেবে নির্বাচিত করা হয়েছে।

সিনিয়র রোভার মেট হিসেবে নির্বাচিতরা হলেন, কামরুল হাসান ( ব্যবস্থাপনা শিক্ষা ইউনিট-২১), মোল্লা মামুন হাসান (হিসাব বিজ্ঞান ইউনিট-১৯), মামুনুর রশিদ (আইন ইউনিট-০৩),আনোয়ার হোসেন (ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি ইউনিট-০৯),মোঃ নবাব হোসেন (রসায়ন ইউনিট-১৩), এস কে জামিরুল (ইংরেজি ইউনিট-০৫),হাবিলুল বাশার (ভূগোল ও পরিবেশ ইউনিট-১৭), হোসাইন মোহাম্মদ গোলাম রাজিক (গনিত ইউনিট-১৫), শরিফুল ইসলাম খান (উদ্ভিদ বিজ্ঞান ইউনিট-১৬), আব্দুল্লাহ্ আল মামুন (মনোবিজ্ঞান ইউনিট-১৮), হাসানুর রহমান (ফিন্যান্স ইউনিট-১৪), রিয়াদ হোসেন (সমাজবিজ্ঞান ইউনিট-০৭), এস. এম. শাহাদাত হোসেন অনু (রাষ্ট্রবিজ্ঞান ইউনিট-০৬), সাগর সরকার (অর্থনীতি ইউনিট-০৮),রনি দেবনাথ
(মার্কেটিং ইউনিট-১২),মারুফ আহম্মদ (পরিসংখ্যান ইউনিট-১০), ইসরাফিল হোসেন (দর্শন ইউনিট-১১), অয়ন আল আশরাফী (শিক্ষা ও গবেষনা ইনস্টিটিউট ইউনিট-০১), নাহিদ হাসান রাসেল (চারুকলা ইউনিট-২), রাসেল আকন্দ (বাংলা ইউনিট-৪),রহিমা আক্তার মিম (গার্ল- ইন- রোভার ইউনিট-০২) এবং নাজিয়া আফরোজ (গার্ল-ইন-রোভার ইউনিট-০১)।

সিনিয়র রোভার মেট হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের ১২ব্যাচের শিক্ষার্থী মো: নবাব হোসেন বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপ বাংলাদেশের সর্বোচ্চ “প্রেসিডেন্ট’স রোভার স্কাউট(পিআরএস.)” অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত গ্রুপ।জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপের সিনিয়র রোভার মেট হিসেবে নির্বাচিত হওয়া একটি গর্বের ও আনন্দের বিষয়।সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার একটি অন্যতম মাধ্যম।সাংগঠনিক দায়িত্ব ও নেতৃত্বের ক্রমবিকাশ ঘটে এখানে।

পদোন্নতি পাওয়া আরেক সিনিয়র রোভার মেট গণিত বিভাগের ১৪ ব্যাচের শিক্ষার্থী শরিফুল ইসলাম খান বলেন, আমি সর্বদাই চেয়েছি শৃঙ্খলার মাঝে থেকে নিজেকে মানব সেবায় জড়িত রাখতে। আর স্কাউটিং আমাকে এই কাজটি অনেকটাই সহজ করে দিয়েছে।তাই আমি চেষ্টা করব এর থেকে প্রাপ্ত জ্ঞান কে কাজে লাগিয়ে ভবিষ্যৎ জীবনে সৎ ও নিষ্ঠার সাথে মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাব।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

অসহায়দের সহায়তায় ‘স্মাইল শাটেল’

জবি প্রতিনিধি: মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য এই অমায়িক কথাটার মর্ম আজকাল তেমন একটা …

error: Content is protected !!