‘মাঠের দিকে কুনজর দিলে শিক্ষার্থীরা মাঠ রক্ষায় ঝাঁপিয়ে পড়বে’

জবি প্রতিনিধি: ‘ধুপখোলায়  আমাদের একমাত্র খেলার মাঠ।  বাণিজ্যিক স্থাপনা নির্মাণ করে খেলার মাঠ ধ্বংস করে কোন স্থাপনা করা চলবে না। ডিএসসিসি আমাদের মাঠ দখল করে যে পিলার দিয়েছে তা অনতিবিলম্বে উঠাতে হবে। মাঠের দিকে কুনজর দিলে শিক্ষার্থীরা তাদের মাঠ রক্ষায় ঝাঁপিয়ে পড়বে।’
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মার্কেট নির্মাণ উদ্যোগের প্রতিবাদে আয়োজিত  মানববন্ধনে এসব কথা বলে নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধন শেষে অবিলম্বে মাঠ রক্ষার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন শিক্ষার্থীরা ।
 রোববার (২০ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলনের সাথে একাত্মতা পোষণ করে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
স্মারকলিপিতে বলা হয়, ৮০ দশক হতে সেই তৎকালীন প্রেসিডেন্ট হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের  আমল থেকে ধুপখোলা মাঠের একটি অংশ তৎকালীন জগন্নাথ কলেজ পরবর্তীতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ হিসেবে বিভিন্ন মাধ্যম কর্তৃক স্বীকৃতি পেয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে জবিয়ানদের একমাত্র খেলার মাঠ হিসেবে ধুপখোলা মাঠের নির্ধারিত অংশে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করে আসছে এমনকি জবির প্রথম সমাবর্তনও সে মাঠে হয়েছে ।
স্মারকলিপিতে আরও বলা হয়,জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দখল করে ডিএসসিসির বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ চলবে না।জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ রক্ষার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।
এ বিষয়ে জগন্নাথ  বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো ইমদাদুল হক বলেন,  বিশ্ববিদ্যালয়ের খেলার মাঠ রক্ষা করতে যা যা করা দরকার সব করবো। এই ঘটনা জানার সাথে সাথেই আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সিটি কর্পোরেশনকে চিঠি দিয়েছি এবং মেয়রের সাথে ফোনে কথা বলেছি। সিটি কর্পোরেশনের সাথে আমরা বৈঠক করব। বৈঠক করে সমস্যার সমাধান করতে পারবো বলে আশা করি।
উল্লেখ্য, পুরান ঢাকার ধুপখোলায় অবস্থিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ  দখল করে সেখানে মার্কেট   নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন। যার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে গত ১০ জুন দক্ষিন সিটি কর্পোরেশনের ৪৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শামসুজ্জোহা ও সিটি কর্পোরেশনর সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার হরিদাস মল্লিক মাঠের ভেতর ম্যাপ অনুযায়ী মাঠের  চার কর্ণারে খুঁটি বসিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে মাঠে খুঁটি বসানোর ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।
সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ে জবির ২১ গবেষক

অপূর্ব চৌধুরী: বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় মর্যাদাপূর্ণ অবস্থান করে নিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ২১ জন শিক্ষক। …

error: Content is protected !!