পরিশ্রমী নারী রুকিয়ার সংগ্রামী জীবন !

মুশফাকুর রহমান,সিলেট প্রতিনিধি: সিলেটের বিয়ানীবাজারের মুড়িয়া ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী নওয়াগ্রাম মৌজার পূর্ব চাতলপার গ্রামের আশিক আলীর স্ত্রী রুকিয়া বেগম (৫০)। তিনি তার স্বামী,কর্ম অক্ষম ১ ছেলে ও ৩ মেয়েকে নিয়ে বিপাকে পড়া স্বত্তেও নিজের কঠোর প্রচেষ্টায় হয়ে উঠেন একজন সফল খামারী।

২০১৬ সালে নিজের মাটির ব্যাংকে সঞ্চয় করা ৮ হাজার টাকা দিয়ে ক্রয় করেন একটি বাছুর।নিজের দুঃখ কষ্ট নিয়েই সেই বাছুরটিকে অতি যত্নে লালন পালন শুরু করেছিলেন তিনি। সেই বাছুরটিই অতঃপর গাভীতে পরিনত হয়।

কঠোর পরিশ্রম ও ধৈর্য ধারণ করে দারিদ্রতাকে উপেক্ষা করে সফলতার স্বপ্ন বুনন শুরু করা রুকিয়ার খামারে আজ আছে ৮টি গাভী ও ৪টি বাছুর। এই ৪টি গাভী প্রতিদিন ৪লিটার দুধ দেয়। দুধ বিক্রি করে তার সংসার চলে স্বাচ্ছন্দ্যে।

রুকিয়া বেগমের ২ মেয়ে ও ১ ছেলে ভিন্ন ভিন্ন বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে। ২০২০সালে একটি গরু বিক্রি করে বড় মেয়েটিকে বিবাহ দেন তিনি।

রুকিয়া বেগম কে খামার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, আমি কষ্ট করে গাভী লালন পালন শুরু করেছি।কিন্তু সরকারি কোন প্রণোদনা পাচ্ছিনা। যদি প্রণোদনা বা সহায়তা পেতাম তাহলে আমি আরো বড় খামার করতে পারতাম।

মুড়িয়া ইউনিয়ন প্রাণিসম্পদ অফিসের প্রতিনিধি তোফায়েল আহমদ মিফতা বলেন, রুকিয়া বেগমের গাভীর খামার আমার দেখা। সরকারি কোন প্রণোদনা আসলে অবশ্যই তাকে দিবো।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

প্রধান শিক্ষক এখন গরু খামারের কেয়ারটেকার

তাসনীমুল হাসান মুবিন,স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহের ত্রিশালের আলহেরা একাডেমী এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক …

error: Content is protected !!