১০ বছর ধরে ধসে পড়া ব্রিজটির নজর পড়ছে না সংশ্লিষ্টদের!

পলাশ সাহা,নেত্রকোনা (দুর্গাপুর) প্রতিনিধিঃ নেত্রকোনা জেলার  দুর্গাপুর উপজেলার বিরিশিরি ইউনিয়নের হারিয়াউন্দ গ্রামে প্রায় ১০ বছর আগে বন্যার প্রবল স্রোতে ধসে যাওয়া ব্রিজটির নির্মাণ ও গ্রামীণ সংযোগ সড়কটির মেরামতের উদ্যোগ নেয়নি সংশ্লিষ্টরা। ধসে পড়া ব্রিজটির কারণে ওই এলাকার মানুষের জনভোগান্তি চরমে আকার নিলেও যেন দেখার কেউ নেই। দীর্ঘ দিনের ধসে পড়া ব্রিজটি পুননির্মাণ না হওয়ায় জনমনে দেখা দিয়েছে চরম ক্ষোভ। সোমবার সকালে সরেজমিন ঘুরে এমন চিত্রই দেখা যায়। গত বছরের বন্যায় বিরিশিরি ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক সেতুটি পুননির্মাণ হয়নি। ফলে গ্রামীণ জনপদের লোকজন ভোগান্তির মধ্যে রয়েছে। বিশেষ করে ওই ইউনিয়নের এলজিএসপি (লোকাল গভর্ন্যান্স সাপোর্ট প্রজেক্ট) প্রকল্পের অর্থায়নে নির্মিত বিভিন্ন জায়গার বক্স কালভার্ট বছর না যেতেই ভেঙে পড়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, এক জায়গায় বছরের পর বছর প্রকল্প দিয়ে অর্থের অপচয় করছে একটি মহল। অথচ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীন ওই ধসে পড়া সেতুটি নির্মাণের এখনো কোনো উদ্যোগ নেয়নি বলে জানান স্থানীয়রা। দীর্ঘ দিন ধরে সংস্কারহীন হারিয়াউন্দ গ্রামের ভেতর দিয়ে গ্রামীণ রাস্তাটি বসতিদের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্ষা মৌসুমে ঘরবন্দি দিন কাটে অনেক পরিবারের। প্রায় ১০ বছর ধরে এভাবে পড়া থাকা ব্রিজটি কবে ঠিক করা হবে, তা নিয়ে আশঙ্কা করছে ভুক্তভোগীরা। বছরের পর বছর শেষ হলেও ওই গুরুত্বপূর্ণ সড়ক সংস্কারের কাজে হাত দেয়নি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। ব্রিজটি নির্মাণের বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ওই জায়গাটি কয়েকবার পরিদর্শন করেছি। ৬০ ফুট দৈর্ঘ্যর সেতু নির্মাণ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ওখানে বন্যার প্রবল স্রোতের কারণে এরকম ব্রিজ টেকসই করবে না। এখানে গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।’ এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রাজীব উল আহসান বলেন, ‘দীর্ঘ দিন ধরে ওই ব্রিজটি পড়ে রয়েছে। এটি আমি দেখেছি। সরেজমিন পরিদর্শণ করে উপজেলা প্রকৌশলী মাধ্যমে একটি গার্ডার ব্রিজের প্রস্তাবনা পাঠানো হবে।’

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

মাধবপুরে নিষিদ্ধ রিং জাল দিয়ে মা মাছ শিকার

শেখ জহান রনি, মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের মাধবপুরে ভয়ঙ্কর চায়না রিং জালের ফাঁদে দেশীয় প্রজাতির …

error: Content is protected !!