ফুলবাড়ীতে সংবাদ সম্মেলন করে পৌর মেয়রের দায়িত্ব হস্তান্তর

মোঃনূর ইসলাম(আশিক)ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুর ফুলবাড়ী পৌরসভার পরপর দুইবার নির্বাচিত পৌর মেয়র মোঃ মুরতুজা সরকার মানিক গত ২৮ ডিসেম্বর-২০২০ইং সালে পৌর নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর আজ শনিবার সকাল ১১টায় ফুলবাড়ী পৌসভায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তার দায়িত্ব হস্তান্তর করেন।

সংবাদ সম্মেলনে পৌর মেয়র মোঃ মুরতুজা সরকার মানিক তার ১০ বছরের সফলতা ও ব্যার্থতা নিয়ে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি বিগত ২০১১ইং সালে সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রথম বারের মতো ফুলবাড়ী পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হই এবং গত ২০১৫ইং সালে ২য় বার (সতন্ত্র) প্রার্থী হিসেবে পৌর মেয়র নির্বাচিত হই। আমার এই ১০ বছর পৌরসভায় দায়িত্ব পালনের সংক্ষিপ্ত কিছু তথ্য আপনাদের সম্মূখে তুলে ধরছি। আমি প্রথম ২০১১ সালে নির্বাচিত হওয়ার পর পূর্বের ১ কোটি ২২ লক্ষ ৮৫ হাজার ৬শত ৩৬টাকা বকেয়া থাকা অবস্থায় দয়িত্বভার গ্রহণ করি। সেই সময় ফুলবাড়ী পৌরসভা তৃতীয় শ্রেনীতে ছিলো। আমি দায়িত্ব নেবার পরেই পৌরসভার আয় বৃদ্ধি করে পৌরসভাটিকে ১ম শ্রেনীতে উর্ত্তিন করি। এবং একটি পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গ্রহন করে নগরীক সেবা বৃদ্ধি ও অবকাঠামো উন্নয়নের উদ্যোগ নেই।

উদ্যোগ সমূহের মধ্যে বিগত ১০ বছরে পৌরকর (হোল্ডিং ট্যাক্স),ব্যবসা লাইসেন্স,জন্ম-মৃত নিবন্ধন কম্পিউটারাইজ করি। পৌরসভাকে মার্চ/২০১৫ইং সালে ‘‘খ’’ শ্রেনী এবং সেপ্টেম্বর/২০১৫ইং সালে ‘‘ক’’ শ্রেনীতে উন্নীত করি। পৌরসভাকে আধুনিক ভবন নির্মান করা হয়েছে। কর্মকর্তা/কর্মচারীর প্রশিক্ষণ প্রদন ব্যবস্থা নেই।অফিসের বিভিন্ন কর্মকান্ডের স্বচ্ছতা ও জবাব দিহিতা বৃদ্ধির লক্ষে বিভিন্ন কমিটি গঠন যেমন ঃ ওয়ার্ড কমিটি, শহর সমন্বয় কমিটি ও স্থায়ী কমিটির পরামর্শের মাধ্যমে পৌরসভা পরিচালনা করি।

নাগরিক সেবার যেমন-পরিচচ্ছন্নতা কর্মীদের দিয়ে সাধ্যমত ড্রেন ও রাস্তা-ঘাট পরিস্কার রাখার ব্যবস্থা গ্রহন করি। আলোকিত শহর গড়তে লাইটিং সেবা বৃদ্ধি করি । রজমানে পৌরবাসীর জন্য ইফতারের আয়োজন করি । পৌর শহরের সকল ঈদগাহ মাঠ নামাযের উপযোগী করতে পরিস্কার পরিছন্নসহ সামিয়ানার ব্যবস্থা করি। ঈমাম মোয়াজ্জেমের ঈদ সম্মানি ভাতার ব্যবস্থা গ্রহন করি পাশাপাশি পুজা উদযাপনে পৌর শহরের প্রতিটি মন্ডবে আর্থিক সহয়াতা ও পুরহিত ও জোগাড়ীকে আর্থিক সম্মানী প্রদান করি। পৌরসভার মাইকিং সেবা চালু করণ

করোনা কালিন সময় – জনগনকে সচেতন করতে মাইকিং করা,বিভিন্ন স্থানে জীবানু নাশখ ঔষধ ছিটানো,মাস্ক বিতরণ, হ্যান্ড সেনেটাইজার বিতরণ। আর্থিক সহয়তা প্রদান, ত্রান বিতরণ সহ বিভিন্ন প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহন করি। অবকাঠামো উন্নয়ন ঃ পৌর ভবন নির্মান, টিএন্ডটি গেটের সামনে গন সৌচাগার নির্মান ও রেলগেটে (নির্মানাধিন),পানির পাইপ স্থাপন ও পাম্পের ঘর নির্মান।

বস্তি উন্নয়ন ঃকানাহার বস্তিতে রাস্তা,সেনেটারী টয়লেট নির্মান, স্টেশনপাড়া বস্তিতে রাস্তা,সেনেটারী টয়লেট নির্মান খালাসিপাড়ায় রাস্তা,সেনেটারী টয়লেট নির্মান,চকচকায় রাস্তা,সেনেটারী টয়লেট নির্মান,বস্তির অসহায় নারীদের সাভলম্বি করে গড়ে তুলতে সেলাই মেশিন প্রশিক্ষন, সেলাই মেশিন বিতরণ ও নগদ অর্থ প্রদান করি। পশুপালনের প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়।
শোভাবর্ধন ঃপৌর শহরকে দর্শনীয় করতে শহরের ছোট যমুনা নদীর ব্রীজে উন্নতমানের লাইটি দিয়ে আলোকিত করার ব্যবস্থা গ্রহন করি। ঢাকামোড়ে শাপলা চত্ত্র ও পানির ফোয়ারার ব্যবস্থা করি। স্টেশনসহ গুরুত্বপূর্ণ সড়কে উন্নতমানের লাইট দিয়ে আলোকিত করি।

নাগরীক সেবা সমূহ ঃ পরিচচ্ছন্নতা কর্মীদের দিয়ে সাধ্যমত ড্রেন ও রাস্তা-ঘাট পরিস্কার রাখার ব্যবস্থা গ্রহন করি। আলোকিত শহর গড়তে লাইটিং সেবা বৃদ্ধি করি । রজমানে পৌরবাসীর জন্য ইফতারের আয়োজন করি । পৌর শহরের সকল ঈদগাহ মাঠ নামাযের উপযোগী করতে পরিস্কার পরিছন্নসহ সামিয়ানার ব্যবস্থা করি।

ঈমাম মোয়াজ্জেমের ঈদ সম্মানি ভাতার ব্যবস্থা গ্রহন করি পাশাপাশি পুজা উদযাপনে পৌর শহরের প্রতিটি মন্ডবে আর্থিক সহয়াতা ও পুরহিত ও জোগাড়ীকে আর্থিক সম্মানী প্রদান করি। পৌরসভার মাইকিং সেবা চালু করণ
উৎসব সমূহ ঃ পৌরবাসীকে আনন্দ বিনোদনের লক্ষে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে প্রতিবছর বৈশাখী মেলার আয়োজন করি। সকল জাতীয় দিবস উদযাপনের সক্রিয় ভুমিকা পালন করি।
শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করতে মেধাবি শিক্ষার্থীদের প্রতিবছর সম্মাননা ক্রেস্ট ও সনদ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহন করি।

উলেখ্যরাস্তা উন্নয়ন সমূহ ঃ মধ্যপাড়া রাস্তা হতে তেতুলিয়া গ্রামের শেষ পর্যন্ত, তেতুয়িলা মাদ্রাসা থেকে মধ্য তেতুলিয়ার শেষ পর্যন্ত। আফতাবগঞ্জ রোড হতে তেতুলিয়াড়ার মুল রাস্তা নির্মান। সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মতি সাহেবের বাড়ী থেকে পূর্ব রামচন্দ্রপুর পর্যন্ত রাস্তা নির্মান।স্বজনপুকুর গ্রামের রাস্তা নির্মান। রেল গেট মসজিদ থেকে শিয়ালীডাঙ্গা গ্রামের শেষ মাথা পযন্ত রাস্তা নির্মান। চকশাহাবাজপুর গ্রামের মুল রাস্তা নির্মান। রেলগেট থেকে বুন্দিপাড়া হয়ে কানাহার কবরস্থানের গেট পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। রেল গেটে থেকে রেল স্টেশন পর্যন্ত রান্তা নির্মান। ঢাকারোড থেকে বারোকোন গ্রামের শেষ পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। কাঁটাবাড়ী বারোকোন সংযোগ রাস্তা নির্মান। বাংলাস্কুল মোড় হতে জনাব আয়েজের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। বিনয় মাস্টারের বাড়ী হতে বিএম কলেজ হয়ে পৌরসভামোড় পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। বাংলাস্কুল মোড় হয়ে কাটিহারের ব্রীজ পর্যন্ত রাস্তা নির্মান।

পুরাতুন বিদ্যুৎ অফিস মোড় থেকে ননীগোপাল মোড় হয়ে নিমতলা মোড় পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। রাজ্জাক ঢাকাইয়ার বাড়ী হতে উপজেলা অডিটরিয়ম পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। মাসুদের দোকান থেকে বিষ্ট বাবুর খুলি পর্যন্ত রাস্তা নিমান। ননীগোপল মোড় থেকে উপজেলা পরিষদ পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। উপজেলা পরিষদ গেট থেকে চকচকা হাইফাই মোড় পর্যন্ত রাস্তা নির্মান। চকচকা হাইফাই মোড় থেকে খয়েরবাড়ী বর্মচারী সংযোগ রাস্তা নির্মান্।চকচকা কলাবাগান থেকে হিন্দুপাড়া পর্যন্ত রাস্তা নির্মান । ওয়াল্টন শোরু

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ টায় চুনকুটিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শুভাঢ্যা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত …

error: Content is protected !!