শেরপুরের নকলায় আচরণবিধি লঙ্ঘনে আরো এক কাউন্সিলর প্রার্থীর জরিমানা

রাইসুল ইসলাম রিফাত (শেরপুর প্রতিনিধি): শেরপুর জেলার নকলা উপজেলায় নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় এক কাউন্সিলর প্রার্থীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

২৭ জানুয়ারি বুধবার বিকেলে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী বিচারক সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আহাম্মদের নেতৃত্বে পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের চরকৈয়া এলাকায় এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়।

পৌরসভা নির্বাচন আচরণ বিধিমালা ২০১৫-এর ১৭(৩১) ধারা লঙ্ঘন করে বিশাল প্যান্ডেল করে ভোটারদের মাঝে খাবার পরিবেশন করার দায়ে অনুষ্ঠেয় পৌরসভা নির্বাচনে ৭নং ওয়ার্ডের উটপাখি প্রতীকের সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী মো. বেলায়েত হোসেনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আহাম্মদ এ অর্থদন্ডাদেশ প্রদান করেন। এসময় নকলা থানায় কর্মরত পুলিশ বিভাগের বেশ কয়েকজন সদস্য, উপজেলা ভূমি অফিসের সার্টিফিকেট পেশকার রাশেদুল কিবরিয়া রাশেদসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা উপস্থিত ছিলেন।

আদালত সূত্র জানা গেছে, ৭ নং ওয়ার্ডের উটপাখি প্রতীকের সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী বেলায়েত হোসেন নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে জনসমাগম সৃষ্টি করেন এবং বিশাল প্যান্ডেলের নিচে ভোটারদের মাঝে খাবার পরিবেশনের আয়োজন করায় পৌরসভা নির্বাচনের আচরণ বিধি লঙ্ঘন হয়। তাই পৌরসভা নির্বাচন আচরণ বিধিমালা ২০১৫-এর ১৭(৩১) ধারা তাকে ৫ হাজার জরিমানা করা হয়।

অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে ৭ নং ওয়ার্ডের উটপাখি প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. বেলায়েত হোসেন এবিষয়ে বলেন, আমার নির্বাচনী প্রচারনার কাজে নিয়োজিত কর্মী-সমর্থকরা সারা দিন-রাত হেটে এলাকায় প্রচার কাজে ব্যস্ত থাকেন। তাই তাদেরকে নিয়মিত কিছু খাবার খাওয়াতে একটি প্যান্ডেল করেছিলাম। তাতে পৌরসভা নির্বাচনের আচরণ বিধি লঙ্ঘন হওয়ায় হওয়ায় আমি স্বেচ্ছায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্ধারিত জরিমানা নিজে হাতে পরিশোধ করেছি।

অনুষ্ঠেয় নির্বাচন অতিনিকটে চলে আসায় প্রার্থীরা বা প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকরা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করতে পারেন, তাই পৌর সভার বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী আচারণ বিধি মানা হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জাহিদুর রহমান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আহাম্মেদের নেতৃত্বে প্রায়শই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জাহিদুর রহমান বলেন, নির্বাচনী আচারণ বিধি লঙ্ঘন করলে কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। নির্বাচন পরিচালনা ও সুষ্ঠু ভাবে সমাপ্ত করার লক্ষে এ নির্বাচন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কেরানীগঞ্জে সাড়ে ৭ হাজার পিস ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদ থেকে সোমবার রাতে ৭৫০০ পিস ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা জেলা …

error: Content is protected !!