পুরান ঢাকা মেতেছে ঐতিহ্যবাহী সাকরাইন উৎসবে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃপুরান ঢাকায় অন্যতম এক আমেজ দেখা যায় ঐতিহ্যবাহী সাকরাইন তথা ঘুড়ি উৎসবে। পৌষ মাসের শেষ দিনে পুরান ঢাকার বাসিন্দারা রঙ বেরঙের কাগজ কেটে মেতে উঠে পাখি,ফুল, বিভিন্ন দৃশ্যপট ও ঘুড়ি বানানোর নেশায়। উড়ন্ত রঙিন ঘুড়িতে দিনব্যাপী ছেয়ে থাকে পুরান ঢাকার আকাশ।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা উনিশ শতকের শুরুতে পৌষ সংক্রান্তি বা সাকরাইন উৎসব পালন করলেও কালের বিবর্তনে ধর্ম-বর্ণ পেরিয়ে এটি এখন পুরান ঢাকাবাসীর কাছে একটি আনন্দদায়ক ও নান্দনিক উৎসবে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম এই দিনটিকে বেশ উৎসবমুখর আয়োজনের মধ্য দিয়েই উদযাপন করে।

সকাল থেকেই পুরান ঢাকার আকাশে ছিল রঙ বেরঙের নানা ঘুড়ির হীরক রাজত্ব। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে ঘুড়ির আধিক্য।উৎফুল্লতার সাথে ঘুড়ি উড়াতে দেখা যায় ছোট থেকে শুরু করে বিভিন্ন বয়সী মানুষকে। আকাশে অন্ধকার নামতেই মনোমুগ্ধকর আলোকসজ্জায় ফুটে উঠে সমগ্র পুরান ঢাকা।পাশাপাশি উচ্চস্বরে চলতে থাকে সাউন্ড সিস্টেম।

পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়া, দয়াগঞ্জ,লক্ষ্মীবাজার,
শাঁখারিবাজার,ধূপখোলা,
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, সদরঘাট সহ বিভিন্ন অলি গলিতে সাকরাইনের প্রস্তুতিস্বরূপ বাসার ছাদে সুতা শুকানো ও বোনার ধুম শুরু হয়েছিল তিন চার দিন আগে থেকেই।

ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে অনেকেই এই সাকরাইন উৎসব দেখতে পুরান ঢাকায় আসে।গাবতলী থেকে হেময় দেব পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ায় তার পিসির বাসায় এসেছেন আজকের এই উৎসব উপভোগ করার জন্য।তিনি বলেন, আজকের এই দৃষ্টিনন্দন দৃশ্য দেখার জন্য এসেছি। ঘুম থেকে উঠার পরেই আকাশে হরেক রকমের ঘুড়ির সমারোহ দেখছি। উপভোগ করতে পারছি আজকের এই বিশেষ দিন।

পৌষ মাসের শেষ দিন উপলক্ষে নতুন চাল দিয়ে নানা রকমের পিঠা খেয়ে ঘুড়ি উড়ানোর এই রেওয়াজ প্রায় ৪০০ বছর পুরনো।

এবারের সাকরাইন উৎসবে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অভিষেক আয়োজনের মধ্য দিয়ে।দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বিকেলে নগরীর ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডে সাকরাইন উৎসব-১৪২৭ এর উদ্ধোধন করেন।এবার দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৭৫টি ওয়ার্ডে আয়োজিত হয়েছে সাকরাইন উৎসব।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ডেঙ্গুতে মারা গেলেন জবি শিক্ষক সাঈদা নাসরিন

জবি প্রতিনিধি: ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাঈদা …

error: Content is protected !!