জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ ছাড়া অন্য কেউ চাকরির আবেদন করে না : উপাচার্য

জবির উপাচার্য ড . মীজানুর রহমান বলেছেন , জগন্নাথ বিশ্ব বিদ্যালয়ে চাকরির জন্য ছাত্রলীগের বাহিরে কেউ আবেদন করে না। নিয়োগের সময় বাধ্য হয়ে ছাত্রলীগের রেফারেন্স কারীদের ই চাকুরি দিতে হয়। যদি ছাত্রলীগের সবাই আবেদন করে তা হলে ছাত্রলীগ ই নিয়োগ পাবে এটাই স্বাভাবিক। যে ই আসে আমাদের কাছে সেই বলে আমি ছাত্রলীগ করেছি।

২৭/০৪/১৭  বিকালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কক্ষে সাংবাদিকদের চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োগ সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসকল কথা বলেন।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন সহকারী প্রক্টর মহিউদ্দিন মাহি এবং ড. মোস্তফা কামাল।

তিনি আরো বলেন, আমার সময়কালে শুধু মাত্র আওয়ামীলীগ অনুসারীদেরকেই নিয়োগ দেয়ার কারনে অনেকেই  আমার সমালোচনা করেছেন।

আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই আমার সময়কালে জামাত-শিবিরের কেউ এ বিশ্ব বিদ্যালয়ে নিয়োগ পাবে না।

এদের কোন স্থান আমার কাছে নাই।

ফেব্রুয়ারিতে জবি তে ১২ জন ছাত্রলীগ নেতাকে দিনভিত্তিক মজুরিতে নিয়োগ দেয় জবি প্রশাসন।

কোন নিয়োগ বিঞ্জপ্তি ছাড়া কীভাবে এদের নিয়োগ দেয়া হলো এমন প্রশ্ন করলে উপাচার্য বলেন,

আমাদের নিয়ম আছে প্রয়জোন মতো যে কোন টাইমে দিনভিত্তিক ৫শ/৬শ টাকা রোজে লোক নিতে পারবো।

নতুন অনেক গুলা বিভাগ খোলা হয়েছে যেখানে লোকবল দরকার।

সে চিন্তা মাথায় রেখেই ১৫/২০ হাজার টাকা বেতনে কয়েক জন কে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তবে তাদের এখোনো পারমানেন্ট করা হয় নাই

এদের যে পারিশ্রমিকের কথা বলা হচ্ছে তা একজন কেরানীর বেতনের চেয়েও কম

তাছাড়া তারা প্রত্যেকেই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাষ্টার্স/অনার্স করা। তাদের নির্দিষ্ট কোন পদে চাকুরি দেয়া হয় নাই।

যখন যেভাবে দরকার সেভাবেই তাদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, ২ বছর আগে  বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের উপর এক নিষেধাঞ্জা জারি করে।

নিষেধাঞ্জা থাকা অবস্থায় কীভাবে নিয়োগ দেয়া হলো এমন প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য বলেন, কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে ফেব্রুয়ারিতে নিয়োগকৃত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কোন সম্পর্ক নেই। ওই নিয়োগের নিষাধাঞ্জা এখোনো বলবত আছে।

২০১৫ সালের ২০ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন জবিতে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের নিষেধাজ্ঞা জারি করে ।

এর মধ্যে কীভাবে নিয়োগ দেয়া হলো এমন প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগে নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে ফেব্রুয়ারিতে নিয়োগকৃত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কোন সম্পর্ক নেই।

ওই নিয়োগের নিষাধাজ্ঞা আদেশ এখন বলবৎ।

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ভূমি কর্মকর্তাকে লাঞ্চিত করার প্রতিবাদে ইন্দুরকানীতে মানববন্ধন

  ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি: পিরোজপুরের নাজিরপুরের মাটিভাঙা ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ সাখাওয়াত হোসেনকে সরকারি …

21 comments

  1. Howdy, i read your blog from time to time and i own a similar one and i was just wondering if you get a lot of spam responses? If so how do you stop it, any plugin or anything you can advise? I get so much lately it’s driving me crazy so any help is very much appreciated.|

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!