গঠনতন্ত্র বহির্ভূতভাবে জেএনইউডিএস এর সভাপতিকে অপসারণের অভিযোগ

জবি প্রতিনিধিঃজগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির (জেএনইউডিএস) নির্ধারিত গঠনতন্ত্র ও কার্যনির্বাহী কমিটির বিরুদ্ধে গিয়ে বর্তমান সভাপতিকে অপসারণ করে সহ-সভাপতিকে সভাপতির দায়িত্ব হস্তান্তর করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি।

বৃহস্পতিবার সংগঠনটির প্রচার সম্পাদক নুরুজ্জামান নিয়ন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিবাদ ও নিন্দা জানানো হয়।

প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জেএনইউডিএস-এর বর্তমান সভাপতিকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে সহ-সভাপতিকে দায়িত্ব প্রদান করেছে যা সম্পূর্ণরূপে সংগঠনটির গঠনতন্ত্র ও সংবিধান বিরোধী।

জেএনইউডিএস-এর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ছাত্রত্ব থাকা অবস্থায় যেকোন কমিটির নির্বাচিত সকল কার্যনির্বাহী সদস্য সম্পূর্ণ ১ (এক) বছর দায়িত্ব পালন করে থাকেন। মেয়াদোত্তীর্ণ হবার পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পরবর্তী নির্বাচন তাফসিল ঘোষণার আগ পর্যন্ত উক্ত কমিটি আগের মতই ধারাবাহিকভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করেন। গঠনতন্ত্রের কোন বিষয়ে স্পষ্ট দিক নির্দেশনা না থাকলে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কমিটির দুই-তৃতীয়াংশের মতামতের ভিত্তিতে সমস্যা সমাধান করা হয়।

কিন্তু হঠাৎ করে কমিটির সাথে কোন প্রকার আলোচনা না করেই সভাপতিকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। যা জেএনইউডিএস-এর গঠনতন্ত্র বিরোধী। এরকম সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

জানা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির মডারেটর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃ্বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুমন কুমার মজুমদার কার্যনির্বাহী কমিটিকে না জানিয়ে গত ১৯ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে বর্তমান সভাপতিকে সরিয়ে সহ-সভাপতিকে সংগঠনের নতুন সভাপতি করার অনুমতি নেয়। পরবর্তীতে গত ৮ ডিসেম্বর কার্যনির্বাহী কমিটিকে এই বিষয়টি জানানো হয়।

এবিষয়ে জেএনইউডিএস এর বর্তমান সভাপতি মোঃ জোনায়েদ হোসাইন ইমন বলেন, সংগঠনের গঠনতন্ত্রের বাইরে গিয়ে সভাপতি পদ থেকে আমাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।এই সংক্রান্ত অনুমতি গত ১৯ নভেম্বর আসলেও আমি গত ৮ ডিসেম্বর বিষয়টি অবগত হই। কিন্তু এখন পর্যন্ত আমার হাতে কোন চিঠি আসেনি।

এসময় তিনি আরও বলেন কার্যনির্বাহী কমিটির কেউ এই বিষয়ে অবগত ছিল না। বিষয়টি আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে লিখিতভাবে জানিয়েছি। আশা করি প্রশাসন অতি দ্রুত এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিবেন।

তবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির কোন গঠনতন্ত্র নেই দাবি করে সংগঠনটির মডারেটর সুমন কুমার মজুমদার বলেন, নতুন গঠনতন্ত্র কিছুদিনের মধ্যে আমার হাতে আসবে।

তিনি আরও বলেন,ডিবেটিং সোসাইটির বর্তমান কমিটির মেয়াদ এবং বর্তমান সভাপতির ছাত্রত্ব শেষ হওয়ায় আমি প্রশাসনকে বিষয়টি জানানোর ফলে সবকিছু বিবেচনা করে প্রশাসন এই সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

বিষয়টির  তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির  বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক দ্বীন ইসলাম বলেন, এর পূর্বে ডিবেটিং সোসাইটির কমিটি নিয়ে এমন ঘটনা কখনো ঘটেনি।  আমরা ইতিমধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিতভাবে বিষয়টি জানিয়েছি। আশা করি দ্রুত এ বিষয়ে  সিদ্ধান্ত আসবে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

জবি রোভার স্কাউট গ্রুপের বার্ষিক দোয়া মাহফিল সম্পন্ন

জবি প্রতিনিধি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট গ্রুপের বার্ষিক দোয়া মাহফিল জুম ওয়েবিনারে সম্পন্ন হয়েছে। দোয়া …

error: Content is protected !!