ফরিদপুর পৌর নির্বাচনে মাদক সম্রাট উজ্জলের জনপ্রতিনিধি হওয়ার খায়েস

ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ

দেশের বিভিন্নস্থানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাদক বিরোধি সাড়াশি অভিযানে অনেক মাদক কারবারী গা ঢাকা দিয়েছে। অথচ ফরিদপুরে দেদারছে চলছে মাদকের কেনাবেচা। এই জেলায় মাদক ব্যবসায়ীরা থানা-পুলিশ ম্যানেজ করে ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদক ব্যবসা করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

ফরিদপুর শহরের রেলস্টেশনের পাশে ডগ বস্তির আলোচিত সেই চুরির দায়ে বিতাড়িত হওয়া কাজেম ডাকাতের ছেলে ইয়াবা সম্রাট উজ্জল, এখন শহরের ইয়াবাসহ সবধরনের মাদকের সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রন করেন সে। শুধু শহর নয়, পুরো জেলায় মাদকের অবিসংবাদিত ডন এই উজ্জ্বল। জেলার সব জায়গায় মাদক সরবরাহ করে সে। বিভিন্ন সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে তার বাড়ি থেকে পুলিশ ইয়াবা, হেরোইন, ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে। তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারি, হত্যাসহ একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। কিন্তু কতিপয় কিছু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে উজ্জল তার মাদকের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

শুধু তাই নয় প্রতিদিনই রেলস্টেশনের পাশে ডগ বস্তিতে মাদকের হাট বসায় উজ্জল। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে একাধিকবার নিউজ হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে বার বার বলা হয়েছে, আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে পাওয়া যাচ্ছেনা উজ্জ্বলকে । কয়েক মাস আগে মানিক নামের এক যুবক তাকে মাদক ব্যবসায় বাধা দেওয়ায় তাকে হত্যা করে উজ্জল।

এলাকাবাসী জানান, মাদক বেচা-কেনার পথে যারা বাধা দিয়েছে বা প্রতিবাদ করেছে, তাদের অধিকাংশই উজ্জলের সাজানো মামলায় হয়রানীর স্বীকার হয়েছে। স্থানীয়রা উজ্জলের টাকা আর ক্ষমতার দাপটে এখন ভয়ে চুপ হয়ে আছেন।

স্থানীয় জন প্রতিনিধিরা বলছেন, উজ্জলের কারণে অতিষ্ঠ পুরো এলাকা। সে মাদকের মাধ্যমে যুব সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। জেলা শহরে চুরি-ডাকাতি আর সন্ত্রাসের হার কম থাকলেও অনেক বেড়েছে ইয়াবা সেবন আর বেচা-কেনা। তার নিকটস্থ এক ওয়ার্ড কাউন্সিলর পাথৗ বলেন, উজ্জল এলাকাটা নষ্ট করে দিচ্ছে। তার বাড়ি থেকে পুলিশ অনেকবার ইয়াবা, ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে। অনেক মামলা আছে তার বিরুদ্ধে।

ইয়াবা আর মাদক বিক্রির মাধ্যমে হঠাৎ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েউঠা উজ্জলের এখন ইচ্ছা জনপ্রতিনিধি হওয়ার। তবে নির্বাচনী অর্থনৈতিক সহযোগিতা করতে সাথে আছেন একাধিক মাদক মামলার আসামি ফরিদপুর জেলার চিহ্নিত গাঁজা-ইয়াবা ব্যাবসায়ী শিল্পী এবং চিহ্নিত হিরোইন-ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী শাহীদা। তার এসব অপকর্ম ধামাচাপা দিতেই ফরিদপুর পৌরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হতে নির্বাচনে দেদারছে বিলাচ্ছে নগদ টাকা, একাধিক মামলার আসামি হওয়া সত্বেও প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়োচ্ছে এলাকায়। নির্বাচনী প্রচার প্রচারনায় কমিশনের বিভিন্ন বিধি নিষেধ থাকলেও কোনটাই মানছেন না উজ্জল।

রেলবস্তিতে বেড়ে উঠা হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান উজ্জলের মাদক ছাড়া নেই অন্য কোন ব্যবসা-বাণিজ্য। কোন বাধা ছাড়াই ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ায়, ফুলে-ফেঁপে উঠছে উজ্জলের টাকা আর সম্পদের পরিমান। একাধিকবার গ্রেপ্তার হলেও পুলিশ মামলার গ্রাউন্ড এতো হালকা করে দেয় যে, পরে সহজেই জামিনে বের হয়ে আসে উজ্জল। আবার শুরু করে ইয়াবা মাদক বেচা-কেনা। একাধিকবার ফরিদপুরের বোয়ালমারী থানা পুলিশ ও র‌্যাব–৮ উজ্জলের বাড়িতে অভিযান চালায়। সেখানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ মাদক উদ্ধার করা হয়। বোয়ালমারী থানাসহ বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে।

তাই মাদকের ভয়াল থাবা থেকে যুব সমাজকে রক্ষার জন্য উজ্জলের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার নেয়ার দাবিতে সোচ্চার এলাকাবাসী।

বোয়ালমারী থানার অফিসার ইনচার্জ জানান, বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখে উজ্জলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন।

কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ বলেন, মাদক ব্যবসায়ীরা কেউ ছাড় পাবে না। উজ্জলকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ফরহাদনগর আ’লীগে তৃণমূলে আস্থার প্রতীক যুবলীগ নেতা কাউসার

নিজস্ব প্রতিবেদক: ফেনী সদর উপজেলার ফরহাদনগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর তৃণমূল নেতাকর্মীদের আস্থা ও …

error: Content is protected !!