কেরানীগঞ্জে শাশুড়ির সাথে ঝগড়া করে গৃহবধুর আত্মহত্যা ; নিহতের পরিবারের দাবী হত্যা

ঢাকার কেরানীগঞ্জে শাশুড়ির সাথে ঝগড়া করে সাহেরা খাতুন (২৮) নামে এক গৃহবধু আত্মহত্যা করেছে। তবে নিহতের পরিবার দাবী তাকে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন পশ্চিম বরিশুরের মাদারীপুর গ্রামে।

নিহতের বাবা মো: আলী জানান, তার মেয়ের সাথে ফয়েজ হোসেন হৃদয়ের বিয়ে হয়েছে ৭ বছর আগে। হৃদয় পেশায় একজন সিমেন্ট ব্যবসায়ী। বিয়ের পর স্বামীর সাথে কোন ধরনের ঝগড়া ঝাটি না হলেও শাশুড়ির সাথে কখোনোই বনি বনা ছিলো না সাহারার। প্রায় দিনই শাশুড়ি ছোট খাট বিষয় নিয়ে সাহেরার উপর মানসিক অত্যাচার করতো এবং ঝগড়া করতো। আজ সকালে সাহেরার শশুড় বাড়ির পাশের বাড়ির এক লোক মারফত জানতে পারি যে ও নাকি আত্মহত্যা করেছে।

আমি এটা কখোনোই মানি না। আমার মেয়ে আত্মহত্যা করার মতো না। ওকে ওর শাশুড়ি পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করেছে। ওর জামাই গতকাল রাতে বাসায় ই ছিলো। অথচ তারা বলছে ও নাকি তাবলীগ জামাতে ছিলো গতকাল। ওরা মেয়ের মৃত্যুর খবরটা পর্যন্ত আমাদের দেয় নি। পুলিশ আসার আগে তারা নিজেরাই ঘরের দরজা খুলেছে। আমি এ ঘটনার সুষ্ট তদন্ত সহ বিচার চাই। শাশুড়িই ওকে হত্যা করেছে।

নিহতের জামাই ফয়েজ হাসান হৃদয় বলেন, গতকাল তিনি তাবলীগ জামাতে ছিলেন। সাহেরার সাথে তার শেষ কথা হয় গতকাল রাত ১১ টায়। সাহেরা তখন তাকে জানিয়েছিলো, হৃদয়ের মায়ের সাথে নিচ তলার একটা ভাড়াটিয়ার ছোট বাচ্চাকে নিয়ে তার কথা কাটাকাটি হয়েছে গতকাল রাতেই। হৃদয় তখন ফোন করে সাহেরাকে ও তার (হৃদয়ের) মাকে দুজনকেই শান্তনা দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করেন।

আজ সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে হৃদয়ের মা হৃদয়কে কল দিয়ে বিষয়টা জানালে হৃদয় দ্রুতই জামাত থেকে বাসায় চলে আসে। মাঝে মাঝে শাশুড়ির সাথে ঝগড়া হলেও এত ছোট ঘটনায় যে আত্মহত্য করবে এটা হৃদয় বুঝতে পারে নি বলে জানায় হৃদয়।

 

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এস আই শ্যামল কুমার নন্দী জানায়, আজ সকালে খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলানো অবস্থায় সাহারার লাশ উদ্ধার করি। সুরতহাল রিপোর্ট শেষে লাশের ময়না তদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর সঠিক কারন জানা যাবে।#

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

বালিয়াকান্দিতে সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে রাজমিস্ত্রির কারাদন্ড

  শেখ রনজু আহাম্মেদ রাজবাড়ী প্রতিনিধি: নামজারী কেসের মূল আবেদনকারীর বৈধ প্রত্যয়ন ছাড়াই আইন বহির্ভুত …

error: Content is protected !!