যশোরে খেজুর রস সংগ্রহের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত গাছিরা

 

যশোর প্রতিনিধি (মামুন হোসেন):”যশোরের যশ খেজুরের রস” প্রবাদ বাক্যটি আজও রয়েছে চিরাচরিত। দিনে কিছুটা গরম হলেও সন্ধ্যা হলেই শীতের আগমনী বার্তা নিয়ে আসে। সকালের শিশির ভেজা পথ, যা শীতের আগমনের বার্তা আরও জোরালো হচ্ছে। এরই মধ্যে যশোরের গাছিরা আগাম খেজুর গাছ ছোলতে শুরু করেছে। যারা খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে তাদের ‘গাছি’ বলা হয়।

শীতের মৌসুম শুরু হতে না হতেই খেজুরের রস আহরণের জন্য গাছিরা খেজুর গাছ প্রস্তুত করতে শুরু করেছে। গাছিরা হাতে দা নিয়ে ও পিঠে ডোঙ্গা বেঁধে নিপুন হাতে গাছ চাঁছাছোলা করছে। এরই মধ্যে কয়েকজন গাছে নলি মারতে শুরু করেছে। কয়েকদিন পরই গাছিদের খেজুর গাছ কাটার ধুম পড়ে যাবে।


শীতের মৌসুম আসলে যশোরে খেজুরগাছ কাটার উৎসব শুরু হয়। খেজুরের গুড় তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে গাছিরা। তাদের মুখে ফুটে ওঠে হাসি। শীতে মৌসুম মানেই খেজুর গুড়ের মৌ মৌ গন্ধে ভরে ওঠে পুরো এলাকায় । যশোরের বিভিন্ন উপজেলায় চলছে মাঠে মাঠে খেজুরগাছ থেকে রস সংগ্রহের প্রস্তুতি। এবার আবহাওয়া ভালো থাকার কারণে গুড় তৈরিতে গাছিরা বেশি লাভবান হবে বলে ধারণা করছে তারা।

উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের গাছি রওনক ইসলাম ও নাসির উদ্দীন এবং কুদরত আলী জানান, আমরা বহু বছর ধরে খেজুর গাছ কেটে আসছি। আগের তুলনায় মাঠে খেজুর গাছের সংখ্যা অনেক কম। তাই খেজুরগাছ থেকে রস সংগ্রহের প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নেমেছি সীমিত সংখ্যক গাছিরা। আগের মতো এখন আর এ কাজে ভালো লাভ হয় না। আগে এলাকার সব মাঠে ও গ্রামের আনাচে-কানাচে প্রচুর পরিমাণ খেজুর গাছ ছিল। বর্তমানে ইটভাঁটায় খেজুর গাছ দিয়ে ইট পোড়ানোর ফলে প্রতি বছর খেজুর গাছ নিধন হচ্ছে। কিন্তু সেই তুলনায় খেজুর গাছ লাগানো হচ্ছে না। গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী খেজুর গুড়ের উৎপাদন কমে যাওয়ায় গ্রামীণ অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। খেজুর গাছ থেকে গুড় উৎপাদন একটা বাড়তি আয়ের উৎস ছিল। তাই গাছিরা অন্যান্য কাজের সঙ্গে তাদের খেজুর গুড় তৈরির কাজ ধরে রেখেছে।

শুধুমাত্র খেজুর গাছ থেকে সুমিষ্ট রস-গুড় এবং নানা প্রকার সুস্বাদু খাবার পেতে নয়, পরিবেশ বাঁচাতে ও প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা করতে আমাদের উচিত নির্বিচারে খেজুর গাছ না কাটা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

মোংলায় ইজারা না দেয়ায় শত্রুতার জেরে মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ

মোঃমাসুদ পারভেজ, বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ- বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার ৫নং সুন্দরবন ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের একটি মৎস …

error: Content is protected !!