পনেরো পেরিয়ে ষোল’তে জবি

অপূর্ব চৌধুরীঃ ব্রাহ্ম স্কুল থেকে কালের পরিক্রমায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রূপান্তরিত হওয়া অন্যতম সেরা এই উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ (২০ অক্টোবর )। বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারী থাকায় এবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে ও ভার্চুয়ালভাবে দিনটি উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এবারের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে থাকছে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের উদ্ধোধন। যাতে প্রায় এক হাজার ছাত্রীর আবাসন ব্যবস্থা থাকবে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মোঃ ওহিদুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা গেছে, সকাল ৯.১০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে জাতীয় পতাকা,বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনা করা হবে এবং ৯.১৫ মিনিটে বেলুন উড়িয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের শুভ উদ্ধোধন করা হবে।
সকাল ৯.৩০ মিনিটে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের উদ্ধোধন করবেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল আলোচনাসভা এবং সংগীত বিভাগের উদ্যোগে পরবর্তীতে ভার্চুয়াল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে।

সার্বিক বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, অতি অল্প সময়ের মধ্যেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় একটি ঈর্ষনীয় স্থানে পৌঁছে গিয়েছে।প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মধ্যে এখানে মেধাবীরা ভর্তি হচ্ছেন।শিক্ষক,শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যৌথ প্রচেষ্টাতেই এগিয়ে যাচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ইতিমধ্যেই জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভালো জায়গায় অবস্থান তৈরী করে নিয়েছে।

নানা রকম প্রতিবন্ধকতা ছাপিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে দেশের ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। কেরানীগঞ্জে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ক্যাম্পাসের কাজ চলমান রয়েছে৷শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বর্তমান ক্যাম্পাসে মেডিকেল সেন্টার সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। পরিবহন সংকট কাটানোর লক্ষ্যে দূরপাল্লার বিভিন্ন রুটসহ আশেপাশের এলাকায় বাস সার্ভিস বাড়ানো হয়েছে৷ প্রতিষ্ঠার শিক্ষার্থীদের অন্যতম সেরা দাবি হিসেবে চলতি বছরের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন। যা ধারাবাহিকভাবে অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে প্রত্যেক বছর৷

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৮৫৮ সালে ব্রাহ্ম স্কুল নামে যাত্রা শুরু করে এই প্রতিষ্ঠানটি। ১৮৭২ সালে জমিদার কিশোরীলাল রায় চৌধুরী তার বাবার নামে জগন্নাথ স্কুল নামকরণ করেন।১৯০৮ সালে এটি প্রথম শ্রেণির কলেজের রূপ পায়।দেশ স্বাধীনতার আন্দোলন,সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা এই প্রতিষ্ঠানটি ২০০৫ সালে জাতীয় সংসদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৫ পাশের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

শেষ হলো আরসিবিসির ভার্চুয়াল মেগা ইভেন্ট

  স্টাফ রিপোর্টারঃ প্রতিষ্ঠার পর থেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি রাজশাহী কলেজের ছাত্রছাত্রীদের দক্ষতা উন্নয়নে কাজ করে …

error: Content is protected !!