রংপুরে লাঙ্গল নামেই পরিচিত সেরাজুল

 

এম হামিদুর রহমান লিমন, রংপুর প্রতিনিধি : রংপুর জাতীয় পার্টির দূর্গ। রংপুর এর বেশীর ভাগ মানুষেই লাঙ্গল বা এরশাদ ভক্ত বলে দাবী রংপুর বাসীর।

জানা যায়, রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার ২নং রানীপুকুর ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত উমর আলী মন্ডলের ছেলে মোঃ সেরাজুল ইসলাম (৬৫) নামের এক ব্যাক্তি এরশাদকে ভালবেসে সরকারী নির্বাচন থেকে শুরু করে উপজেলা বা ইউনিয়ন নির্বাচন এলেই নিজের মাথায় চুল কেটে লাঙ্গল এর প্রতিক আর্ট করে ঘুড়ে বেরায় রংপুর এর নির্বাচনি এলাকায়। এই কারণে বা তার এই কর্মের জন্য নিজেকে লাঙ্গল নামে পরিচয় লাভ করিয়েছেন এলাকাবাসির কাছে। আরো জানা যায়, তাকে এলাকায় সেরাজুল নামে কেউ চেনে না। তবে লাঙ্গল নামে তাকে খুজলে এলাকার শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পযন্র্Í সবাই চিনে বা জানে লাঙ্গল সেরাজুলকে।

সেরাজুল ইসলাম ওরুফে লাঙ্গল বলেন, আমি পেশায় একজন অটোভ্যান চালক। আমি লাঙ্গলকে ভালবাসি এবং আমার বয়স যখন আট তখন থেকেই আমি জাতীয় পার্টি করি বলে দাবী সেরাজুল ইসলাম এর। তিনি আরো জানান, আমাকে পল্লীবন্ধু হুসাইন মোহাম্মাদ এরশাদ এ পযন্র্Í কিছু দেয় নি। তার পরেও আমি দলকে ভালবাসি। আমার বাড়ী নাই ঘড় নাই। এরশাদ মোড়ে পাঁচ মাথার একটি দোকান ঘড় ভাড়া নিয়ে জীবন জাপন করছি। তবে তিনি দাবি করেন যে দল আমাকে কিছু না দিলেও আমি দলকে ভালবেসে নির্বাচন এলে মাথায় চুল লাঙ্গল কাট দিয়ে দলের সকল সমাবেশ ও নির্বাচনী এলাকায় ভ্যান নিয়ে ঘুড়ে বেড়াই।

এলাকাবাসীরা জানান, সেরাজুল ইসলাম পাগল না। তিনি দলকে ভালবেসে লাঙ্গলকে ভালবেসে নির্বাচন এলেই তিনি লাঙ্গল কাট দিয়ে ঘুড়ে বেরায়। প্রথম দিকে আমরা তাকে নিয়ে মজা করলেও। তাকে নিয়ে হাসা হাসি করলেও এখন এটা আমাদের কাছে স্বাভাবিক হয়ে গেছে বলে জানান এলাকাবাসী।তবে এলাকাবাসিরা দাবী করেন তাকে দেখে আমাদের শিক্ষা নেয়া উচিৎ যে ভালবাসলে নিঃস্বার্থ ভাবেই ভালবাসা উচিৎ যেটা আমরা কেউ করিনা। হউক সেটা দল কিংবা ব্যাক্তি। তবে সেহেতু সেরাজুল গরিব তার থাকার কোন জায়গা নেই তাই রংপুর জেলা, মাহানগড় সহ মিঠাপুকুর উপজেলা ও রানীপুকুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টি শাখার নেতা কর্মিও দের তার জন্য আবাশনে বা গুচ্ছগ্রামে থাকার ব্যাপবস্থা করার জন্য দাবী করছি।

আরো জানা যায় যে, সেরাজুল ইসলাম এরশাদ মোড়ে আব্দুলের দোকান ঘড় ভাড়া নিয়ে তার স্ত্রী, দুই ছেলে আর ছেদের বৌদের নিয়ে ভাড়ায় থাকে। তিনি সারাদিন ভ্যান চালিয়ে যে টাকা আয় করে তা দিয়ে দোকান ঘড়ের ভাড়া দিয়ে তিন বেলা দুই মুটো খেতে পাড়ে না। সেরাজুল কে যদি রংপুর জেলা, মাহানগড় সহ মিঠাপুকুর উপজেলা ও রানীপুকুর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টি শাখার নেতা কর্মিরা তার থাকার জন্য আবাশনে বা গুচ্ছগ্রামে থাকার ব্যাপবস্থা করে দেয় তাহলে সেরাজুল তিন বেলা ভাল করে খেতে পারবে বলে দাবী এলাকাবাসীর।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

টাঙ্গাইলে ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু

  নাসির উদ্দিন,টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি : ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার চরভাবলা এলাকায় মোটরসাইকেল …

error: Content is protected !!