সিনোভ্যাকের টিকার ট্রায়ালে অর্থায়ন করবে না বাংলাদেশ

করোনা প্রতিরোধে চীনা কোম্পানি সিনোভ্যাক বায়োটেক লিমিটেডের উৎপাদিত ভ্যাকসিন ট্রায়ালে যৌথ অর্থায়ন করছে না বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সিনোভ্যাকের টিকাটির ট্রায়াল হওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশে। তবে এ ট্রায়ালের জন্য বাংলাদেশ থেকে ৭০ লাখ ডলারের মতো অর্থায়ন চায় চীনা কোম্পানিটি।

আইসিডিডিআরবি এ ট্রায়াল চালাবে বলে সিদ্ধান্ত হলেও হঠাৎ করে বিষয়টি থেমে যায়। সিনোভ্যাক সরকারের কাছে অর্থায়ন চাওয়ার পরই পুরো বিষয়টি অনিশ্চয়তায় পড়েছে।

তবে এক চিঠিতে বাংলাদেশ সরকার অনুমোদন দিতে বিলম্ব করায় এই সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছে সিনোভ্যাক।

চীনা কোম্পানিটি জানায়, বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ অন্য দেশে খরচ হয়েছে। তাই তারা সরকারের অর্থ সহায়তা চাচ্ছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এ ট্রায়ালে যৌথ অর্থায়ন করব না। এটা তাদের সঙ্গে চুক্তিতে ছিল না। তারা যখন আমাদের কাছে ট্রায়ালের প্রস্তাব দিয়েছিল সেখানে অর্থ সহায়তার বিষয়টি ছিল না। ‘

তিনি বলেন, ‘চুক্তি অনুসারে তারাই পুরো ট্রায়ালের খরচ বহন করবে। তারা আমাদের বিনামূল্যে এক লাখ ১০ হাজার ভ্যাকসিন দেবে। তারা আমাদের প্রযুক্তি সহায়তাও দেবে, যেহেতু আমাদের ওষুধ কোম্পানিগুলো তাদের সেই টিকা বানাতে পারে। ’

এই কারণে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের প্রক্রিয়াটি থেমে গেল কি না জানতে চাইলে জাহিদ মালেক বলেন, ‘এটা নির্ভর করছে সিনোভ্যাকের ওপর। কোম্পানিটি চাইলে নিজেদের খরচে এখনো ট্রায়াল চালাতে পারে বাংলাদেশে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনা টিকার ট্রায়াল স্থগিত

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক খ্যাতনামা ওষুধ উৎপাদক প্রতিষ্ঠান জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনা টিকার ট্রায়াল সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। …

error: Content is protected !!