বাবুবাজার ব্রীজে প্রকাশ্যে দিন দুপুরে ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা

দ্বিতীয় বুড়িগঙ্গা সেতু তথা বাবুবাজার ব্রীজের ওপর দিন দুপুরে প্রকাশ্যেই ঘটছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। গত এক সপ্তাহে অন্তত তিনটি ছিনতায়ের ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এই ব্রীজের ওপর দিয়ে যাতায়াতকারী লোকজন। ব্রীজের দুই পাড়ের সিড়ির গোড়ায় ছিনতাই নিয়মিত ঘটলেও প্রশাসন তেমন তৎপরতা নেই বলে অভিযোগ করেছে অনেকেই।

একাধিক পথচারী ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ব্রীজের দুই পাড়ের সিড়ির সামনে দুইটি সক্রিয় ছিনতাইকারী চক্র রয়েছে । এরা সুযোগ বুঝে ধারালো অস্ত্র দিয়ে পথচারীদের আহত করে তাদের সাথে থাকা মালামাাল লুটে নিয়ে সিড়ি দিয়ে নিচে নেমে পালিয়ে যায়। কোন পথচারী যদি সেচ্ছায় তার সাথে থাকা জিনিসপত্র দিয়ে দেয় , তাহলে এইসব ছিনতাইকারীরা তাদের কোন ক্ষতি করে না। কোন পথচারী যদি তার সাথে থাকা জিনিস দিতে একটু আপত্তি করে , তাহলে তাকে ছুড়িকাঘাত করে তার সাথে থাকা মালামাল লুট করে নিয়ে যায় ছিনতাইকারী চক্রটি।

ব্রীজের উপরে ছাড়াও ব্রীজের নিচে জিনজিরা বেড়িবাধ এলাকা ও ঈমামবাড়ি কবরস্থানের সামনে গভীর রাতে ও ভোরে ছিনতাই হয় বলে জানা গেছে। এলাকাবাসী আরো জানান এসব ঘটনার কিছু প্রশাসনকে অবগত করা হয়, কিছু ঘটনা প্রশাসন জানেই না। তবে যে সকল ঘটনা প্রশাসনকে অবগত করা হয় তারা পরবর্তীতে তেমন সুরাহা পান না। তাই অনেকেই প্রশাসনকে জানাতে আগ্রহ প্রকাশ করেন না।

গত ৬ অক্টোবর ব্রীজের ওপরে ছিনতাইকারী চক্রের কবলে পড়েন পুরান ঢাকার বঙ্গবাজার মার্কেটের মো: আজিজুর রহমান আলম (৩৩) (০১৮১৩১০২৪৬৩) নামে এক জিন্স প্যান্ট ব্যবসায়ী । নিউজ ঢাকাকে আলম জানান, ৬ অক্টোবর তিনি তার দোকানের জন্য মাল কিনে কেরানীগঞ্জের কালিগঞ্জ থেকে রিক্সায় করে বঙ্গবাজার মার্কেটের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন। বিকাল ৫টার কিছু পরে তাকে বহন কারী রিক্সাটি ব্রীজের ওপর বৌ বাজার সংলগ্ন সিড়ির কাছাকাছি আসলে জ্যামে পরে। এসময় ২০-২২ বছরের ৪-৫ জন ছেলে তাকে ধারালো ছুড়িসহ ঘিরে ফেলে, এ সময় জোড়পূর্বক তার মোবাইল, মানিব্যাগ ও প্রায় ২০ হাজার টাকার মাল ছেলেগুলো ছিনিয়ে নিয়ে যায়। আলম বাধা দিতে চাইলে ছিনতাইকারীরা তার আঙুলে ছুড়িকাঘাত করে। আশে পাশে অনেকে থাকলেও ধারালো ছুড়ির ভয়ে কেউ ছিনতাইকারীদের সামনে আসে নি। এ ঘটনায় আলম দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করে।

০৩ অক্টোবর ব্রীজের ওপর হামলার শিকার হন মো: ওবাইদুল রহমান (০১৬৮১৮০২৫১৩) নামে কালিগঞ্জ গার্মেন্টস পল্লীর এক কাপড় ব্যবসায়ী। ওবাইদুল জানান, ৩ তারিখে দুপুর ১টার দিকে তিনি ইসলামপুর থেকে প্রায় ৬০ হাজার টাকার কাপড় কিনে রিক্সায় করে কেরানীগঞ্জ আসছিলেন। ব্রীজের ওপর দিয়ে বাবু বাজার সিড়ির কাছে আসতেই তিনজন ছিনতাইকারী তার রিক্সাটি আটকিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কিলঘুষি দিতে থাকে। তাদের সকলের কাছে ধারালো অস্ত্র ছিলো। কিছু বুঝে উঠার আগেই ছিনতাইকারীরা তার সাথে থাকা কাপড় নিয়ে দ্রæত ঘটনা স্থল থেকে হাওয়া হয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় অবগত করেছেন কিনা জানতে চাইলে ওবাইদুল বলেন, ব্রীজের উপর প্রায় ই ব্যবসায়ীদের সাথে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। থানায় জানিয়ে তেমন লাভ হয় না। তাই জানাই নি। ভাগ্যে ছিলো না তাই ছিনতাই হয়ে গেছে বলে দীর্ঘশ্বাস ফেলেন ওবাইদুল।

৪ অক্টোবর ভোরে ছিনতাইকারীর কবলে পড়েন আবুল হাসান নামে এক প্রাত ভ্রমনকারী । তিনি বলেন, ভোর বেলা হাটাহাটি করার উদ্দেশ্যে ব্রীজের উপর উঠেছিলাম। কিছু দূর না যেতেই কিছু বখাটে যুবক আমাকে ঘিরে ধরে। সাথে দুই হাজার টাকার মতো ছিলো নিয়ে গেছে। কপাল ভালো আমাকে আহত করে নি। তিনি আরো বলেন, এরা একটা সক্রিয় সিন্ডিকেট। এদের কাজ ই সুযোগ বুঝে মানুষ চিনে আটকিয়ে ছিনতাই করা।

এলাকাবাসীর দাবি অচিরেই ব্রীজের উপর প্রশাসনের পাহাড়া জোরদার করা হোক। এবং ছিনতাইকারী নির্মুলে প্রশাসন যথাযথ পদক্ষেপ নিক। এদের দ্রুতই গ্রেপ্তার করতে না পাড়লে সামনে পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যাবে বলে সংশয় প্রকাশ করেছে অনেকে।

এ বিষয়ে সদ্য যোগদানকৃত কেরানীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহাবুদ্দিন কবির বলেন, ছিনতায়ের ঘটনায় যে জিডিটি হয়েছে, তার আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আর যারা জিডি করে নি, বা ভুক্তোভোগী যারা আছে তারা আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সর্বোচ্চ সহযোগীতা করবো। এবং ব্রীজের উপরে ছিনতাই রোধে টহল জোড়দার করা এবং পেট্রেলিং টিমের ব্যবস্থা করা হবে।#

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

টাঙ্গাইলে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরায় ১৮ জেলের কারাদন্ড

  নাসির উদ্দিন,টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধিঃ সরকারের নিষেধাজ্ঞা অনমান্য করে যমুনা নদী থেকে ইলিশ মাছ ধরায় …

error: Content is protected !!