সর্দি সারানোর ৫টি ঘরোয়া উপায়

 

করোনাভাইরাস নামক মহামারী এখনও আমাদের চারপাশে ঘিরে আছে। স্বাস্থ্যকর খাবার, নিয়মিত শরীরচর্চা এবং নির্বিঘ্ন ঘুম আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। তবে সবকিছু নিয়মমাফিক করা আমাদের জন্য কিছুটা কষ্টকর। দিনে গরম রাতে ঠান্ডার এই সময়ে সর্দি লাগা অস্বাভাবিক নয়। বিভিন্ন ওষুধ সর্দি সারাতে সহায়তা করে। তবে খাবারের তালিকায় কিছু প্রাকৃতিক খাবার রাখাও গুরুত্বপূর্ণ। যা সর্দির বিরুদ্ধে আরও ভালোভাবে লড়াই করতে সহায়তা করে।

ওষুধ না খেলেও এই ঠান্ডার সমস্যা সাত দিনের মধ্যে সেরে যায়। তবে অনবরত হাঁচি, গলা ব্যথা, নাক বন্ধ, মাথা ভার হয়ে থাকা, মাথা ঘোরা এবং কান বন্ধ থাকার মতো বিষয়গুলো সহ্য করা কষ্টকর। টাইমস অব ইন্ডিয়া প্রকাশ করেছে এমন কিছু ঘরোয়া প্রতিকারের কথা, যা আপনাকে সর্দি থেকে দূরে রাখবে।

আদা চা: ঠান্ডার সমস্যা সারাতে আদা চায়ের মতো আর কিছুই আমাদের এতটা স্বস্তি দেয় না! মশলা চা বা আদা চা গলা খোলার দুর্দান্ত উপায়। আদা শ্লেষ্মা ঝিল্লির প্রদাহকে কমিয়ে দেয় যা নাকের ভেতর এবং সাইনাস গহ্বরকে সীমাবদ্ধ করে। এটি শ্লেষ্মা কাটাতে সহায়ক।

হাইড্রেটেড থাকুন: সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর মধ্যে একটি হলো, আপনি যখন সর্দিতে আক্রান্ত হন তখন হাইড্রেটেড থাকা দরকার। পানি, বিভিন্ন ফলের রস, স্যুপ কিংবা হালকা গরম লেবু-পানিতে কিছু মধু মিশিয়ে খেলেও তা পানিশূন্যতা কাটাতে সাহায্য করবে। অ্যালকোহল, কফি এবং এরিটেড পানীয়গুলোএড়িয়ে চলুন যা ডিহাইড্রেশনকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

গরম পানির ভাপ: ইউক্যালিপটাস বা টি ট্রি অয়েলে কয়েক ফোঁটা বা দুটি একসাথে পানিতে মিশিয়ে গরম ভাপ নিলে তা আপনার বন্ধ নাক খুলে দেবে। কয়েক ফোঁটা ইউক্যালিপটাস বা টি ট্রি অয়েল ফুটন্ত গরম পানির সঙ্গে মিশিয়ে একটি পাত্রে ঢেলে নিন। এবার আপনার মুখটি পাত্র বরাবর ধরে রাখুন যেন নিঃশ্বাসের সঙ্গে গরম ভাপ নেয়া সহজ হয়। খেয়াল রাখবেন, গরম পানি পড়ে যেন কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে।

হালকা গরম পানিতে গার্গলিং: প্রতি কয়েক ঘণ্টা পরপর লবণ মেশানো হালকা গরম পানিতে গার্গল করুন। এটি আপনার ঘা এবং ক্ষতিকারক গলায় কিছুক্ষণের জন্য স্বস্তি এনে দেবে। খেয়াল রাখবেন, পানি যেন খুব বেশি গরম না হয়।

ভিটামিন সি: ভিটামিন সি রয়েছে এমন প্রচুর ফল এবং শাকসবজি খেতে হবে। এটি ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। লেবুপানি, কমলা, শাকসবজি, কাঁচা মরিচ এবং অন্যান্য ফল এবং শাকসবজি ভিটামিন সি এর ভালো উৎস। লেবুর রস ও মধু চায়ে যোগ করে পান করলে তা কফ কমাতে সহায়তা করে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

প্রতিদিন লবণ পানি দিয়ে গার্গল করা উচিত কেন?

  যখন আপনি গলা ব্যথা বা মাড়ি থেকে রক্তঝরা সমস্যায় ভোগেন, তখন লবণ ও পানির …

error: Content is protected !!