নিজের জনপ্রিয়তা বাড়ানোর রহস্য জানালেন কাজী সালাউদ্দিন

 

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচন আসলেই সমালোচনার তীরটা বেশি থাকে কাজী মো. সালাউদ্দিনের দিকে। এবার যা ছিল অতীতের চেয়ে অনেক বেশি। কিন্তু এই তুমুল সমালোচনার মুখেও তিনি সফলভাবেই অতিক্রম করেন ভোটের বাধা। মজার বিষয় হলো প্রতিটি নির্বাচনেই তিনি আগেরবারের চেয়ে বেশি ভোট পেয়ে সহজভাবে জয়ী হয়েছেন।

নির্বাচনের আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে মুন্ডুপাত করেছেন কাজী মো. সালাউদ্দিনের। তখনই তিনি জবাবে বলেছিলেন, ‘আমি জনপ্রিয় বলেই এত সমালোচনা।’

অনেকে অবশ্য বলেছিলেন ভোটের পর এই বড় মুখ থাকবেন না কাজী মো. সালাউদ্দিনের। ব্যালটেই প্রমাণ হবে তিনি জনপ্রিয় কি না। শনিবার ভোটে তিনি প্রতিপক্ষদের বিপুল ভোটে হারিয়ে আরেকবার নিজের জনপ্রিয়তা প্রমাণ করেছেন।

চতুর্থবারের মতো বাফুফে সভাপতি হয়ে রোববার বিকেলে ফুটবল ভবনে আসলে তার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল এত সমালোচনার পরও তিনি এত বেশি ভোটে জেতেন কিভাবে। প্রতিবার ভোট বৃদ্ধি পাওয়া মানেই তো জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পাওয়া। কোন ক্যারিশমায় এটা করে থাকেন তিনি?

‘আমাকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া অনেক কিছু বলেছে; কিন্তু ভোট দেন তারা, যারা ফুটবল নিয়ে কাজ করে, ফুটবলের সঙ্গে সরাসরি জড়িত-যেমন ক্লাব ও জেলা। ভোট তো কোনো দোকানদারও দেয় না, কোটিপতিও দেয় না, কোনো রিকশাওয়ালাও দেয় না। ফুটবলের সঙ্গে সরাসরি জড়িতরা ভোট দেয়ার মানেই তো আমি ফুটবলের জন্য কিছু করছি। তাতেই আমার জনপ্রিয়তা বাড়ছে, কমছে না। তাই সোশ্যাল মিডিয়া কি বললো না বললো সেটা বিষয় না। আমার সমস্যা হবে যখন আমার ভোট কমতে থাকবে’- জাগো নিউজের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় বলছিলেন চতুর্থবারের মতো সভাপতি নির্বাচিত হওয়া কাজী মো. সালাউদ্দিন।

চারটি নির্বাচন করে একটিতে কাজী সালাউদ্দিন জিতেছেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায়, অন্য তিনটিতে ভোটের মাধ্যমে। প্রতিটি নির্বাচনে ভোট বৃদ্ধি পাওয়া প্রসঙ্গে কাজী মো. সালাউদ্দিন বলেছেন, ‘আমি ২০০৮ সালে যে ভোট পেয়েছিলাম ২০১৬ সালে পেয়েছিল তার চেয়ে বেশি। আবার এই ২০২০ সালের নির্বাচনে পেলাম আরো বেশি। অর্থাৎ যারা ফুটবল করেন তাদের কাছে আমি ঠিকই আছি।’

আপনার অনেক সমালোচনা হয়েছে। ভোটে জিতে কি তার জবাব দিলেন? এমন এক প্রশ্নের উত্তরে কাজী মো. সালাউদ্দিন বলেছেন,‘আমি এখানে জবাব দিতে আসিনি। সমালোচনা আপনি করতেই পারেন, বুঝে করেন আর না বুঝে করেন। এটা তো কোন প্রশ্ন হলো না। ফুটবলের সঙ্গে সরাসরি জড়িত সংস্থা ক্লাব, জেলা ও বিশ্ববিদ্যালয় সব মিলিয়ে ১৩৯ জনের ভোট। আগের চেয়ে এবার আরও বেশি পেয়েছি। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাকে বকাবকি করছে। এটা হয়তো তাদের অভ্যাস।’

এই যে দিনদিন আপনার জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে কি আমরা আগামীতেও দেখতে পাবো যে আরো বিপুল জনপ্রিয়তা নিয়ে এসে ফুটবলের সেবা করবেন? ‘আমি এখন ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলতে চাই না। আমি এখন বর্তমান নিয়ে কথা বলছি। এখন শুধু কাজ নিয়ে কথা বলবো’-জবাবে বাফুফে সভাপতি।

চতুর্থবার সভাপতি নির্বাচিত হয়ে প্রথম চেয়ারে বসে কাজী মো. সালাউদ্দিন কিছু অগ্রাধীকার ভিত্তিতে কাজের কথা বললেন। ‘নির্বাচন করে প্রথম আসলাম। এখন আমার কাছে অগ্রাধীকার ভিত্তিতে অনেক কাজ আছে। আমার প্রায়রিটি হলো অ্যাডমিনিস্ট্রেশন স্ট্রং করা। দ্বিতীয় কাজ হলো লিগসহ অন্যান্য টুর্নামেন্টের সূচি ঠিক করা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যতটা সম্ভবতাড়াতাড়ি লিগ শুরু করা।’

কবে নাগাদ লিগটা শুরু হতে পারে? ‘আমি সবেমাত্র চেয়ারে বসলাম। এজন্যই এখন আপনাকে ইন্টারভিউ দিতে চাচ্ছিলাম না। কারণ, আপনারাতো আমাকে বসে প্লেটে ভাতটা ঢালতে দেবেন। তার পর তো কিভাবে খাবো। আমিতো বসলাম মাত্র। আমি যদি কমিটির সঙ্গে কথা না বলে এখনই এতকিছুর উত্তর আপনাকে দেই তা ঠিক হবে না’-বলেছেন চতুর্থবারের মতো বাফুফের সভাপতি নির্বাচিত হওয়া কাজী মো. সালাউদ্দিন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কী তাহার নাম, কী পরিচয়?

  আইপিএলে প্রথমবারের মতো এক ম্যাচে দুটি সুপার ওভার হয়েছে রোববার। মাঠের মধ্যে যখন লোকেশ …

error: Content is protected !!