সাত মাস পর প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে ক্রিকেটাররা

 

করোনার কারণে দীর্ঘ সাত মাস পর প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে ফিরেছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম দিন শেষে ২২৯ রানে অলআউট হয়েছে ওটিস গিবসন একাদশ। ফিফটি হাঁকিয়েছেন ওপেনার সাইফ হাসান ও সৌম্য সরকার। আর রায়ান কুক একাদশের হয়ে তিনটি করে উইকেট শিকার করেছেন পেসার তাসকিন আহমেদ ও স্পিনার তাইজুল ইসলাম। শনিবার সকাল সাড়ে নয়টায় শুরু হবে দ্বিতীয় দিনের খেলা।

এই দিনটার অপেক্ষায় চাতকের মতো বিসিবি’র দিকে তাকিয়ে ছিল গোটা দেশ। অবশেষে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ; প্রাণ ফিরল মিরপুরে। ২২ গজে ফিরল উইলোর মিষ্টি শব্দ।
দ্বিতীয় ধাপের ক্যাম্পে বিসিবি’র সূচিতে থাকা তিন প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথমটিতে দু’দলের নামটা গুরুদের নামে। নাজমুল হোসেন শান্তর নেতৃত্বে ওটিস গিবসন একাদশ আর রায়ান কুক একাদশের দায়িত্ব টেস্ট ক্যাপ্টেন মুমিনুলের কাঁধে। আনুষ্ঠানিক টস নয়, নিজেদের মধ্যে সমঝোতার ভিত্তিতে ব্যাটিংয়ে গিবসন বাহিনী।

শুরুতেই হোঁচট খায় শান্ত’র দল। দলীয় ১৪ রানেই তাসকিনের শিকার হয়ে সাজঘরে ইমরুল কায়েস। অভিজ্ঞ এই ওপেনার ৭ রান করে ফিরলেও দারুণ দায়িত্ববান দুই তরুণ সাইফ আর শান্ত। ৯৯ রানের জুটি গড়ে বিপর্যয় সামাল দেন তারা। সাইফ ফিফটি হাঁকালেও এক রান আগেই প্যাভিলিয়নে অধিনায়ক। দারুণ ডেলিভারিতে এলবির ফাঁদে ফেলে নিজের দ্বিতীয় শিকার তাসকিনের। সঙ্গী হারিয়ে বেশিক্ষণ টেকেননি সাইফ। ৬৪ রানে তাইজুলের বলে ফেরেন এই ওপেনার।
থিতু হতে পারেননি লিটন। এই বাঁহাতি হার্ডহিটারকে ফেরান পেসার খালেদ। তবে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে এগুতে থাকেন সৌম্য সরকার। স্কোর বোর্ডে গতি আনে এই দুই পরীক্ষিত সৈনিকের উইলো। বৃষ্টি বিঘ্নিত দিনের ওয়েট উইকেটটার ফায়দা ভালোভাবেই লুটেছেন তাসকিন। পঞ্চপান্ডবের এই অলরাউন্ডারকে সোহানের ক্যাচে পরিণত করেন এই স্পিডস্টার। সাইফউদ্দিনের ডেলিভারিটা বাজে শটে মুশফিকের হাতে তুলে ফেরেন সৌম্য। তবে ততক্ষণে নামের পাশে যোগ হয়েছে ৫১ রান।

বাকি ৪ উইকেট তুলে নিতে খুব বেশিক্ষণ সময় নেননি মুমিনুল বাহিনী। তাইজুল পরপর দুই বলে ফেরান মোসাদ্দেক আর মুস্তাফিজকে।
এদিন একটা নতুন আবিষ্কারের মুখোমুখি টাইগার ক্রিকেট। মুশফিক-রিয়াদদের পর মিডল-অর্ডারে যার ব্যাটে আস্থা রাখতে শুরু করেছিলো ভক্তরা সেই মিঠুন হাজির ভিন্নরূপে। সাত মাস পর মাঠে ফেরার দিনে তার স্পিনার স্বত্তার আত্মপ্রকাশ। মিঠুনের ভেলকি সামলাতেই পারেননি নাইম-এবাদতরা। মাত্র ৫ রান দিয়ে ২ উইকেট শিকার করেন মোহাম্মদ মিঠুন। আর তাতেই ২২৯ রানে গুটিয়ে যায় ওটিস গিবসন একাদশ।
প্রথম দিনে দুই দফা বৃষ্টির বাঁধা পাওয়ায় নির্ধারিত সময় সাড়ে চারটার পরেও প্রায় আধঘণ্টা ম্যাচ চালিয়ে গেছেন আম্পায়াররা। শনিবার সকালটা শুরু করবেন রায়ান কুক একাদশের ক্রিকেটাররা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কী তাহার নাম, কী পরিচয়?

  আইপিএলে প্রথমবারের মতো এক ম্যাচে দুটি সুপার ওভার হয়েছে রোববার। মাঠের মধ্যে যখন লোকেশ …

error: Content is protected !!