অসুস্থতার কারণেই নির্বাচন থেকে নাম প্রত্যাহার করেছেন বাদল

কারও চাপে নয়, শারীরিক অসুস্থতার কারণেই বাফুফে নির্বাচন থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানিয়েছেন বাফুফে বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি বাদল রায়। নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ায় তৃণমূলের সংগঠকদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন সাবেক এই ফুটবলার। বাফুফে সভাপতি পদপ্রার্থী কাজী সালাউদ্দিন আর শফিকুল ইসলাম মানিককে নিয়ে কোনো মন্তব্যও করেননি এই প্রবীণ সংগঠক।

এই চাপা কান্নাই বলে দেয় অনেক কিছু। ফুটবলকে ভালোবেসে যৌবনটা কাটিয়ে দিয়েছেন মাঠে। বুট জোড়া তুলে রেখেছিলেন যখন, তখন বাংলাদেশের ফুটবল দক্ষিণ এশিয়ার দাপুটে দল। দিনে দিনে অর্জনের মুকুট থেকে খসে পড়েছে পালক, শ্রী হারিয়েছে রেকর্ড বুক। ঘরোয়া কাঠামো ঘুণে খেয়েছে। তাই খেলোয়াড়ের টুপি খুলে সংগঠকের টুপি মাথায় দিয়েছিলেন বাদল রায়।
লম্বা সময় বাফুফের সহ-সভাপতির চেয়ারটায় বসে আছেন। ২০১৬’র নির্বাচনে কাজী সালাউদ্দিনের প্যানেলে থাকলেও চারটা বছর ভালো কাটেনি। নিজের মতো করে ফুটবলের উন্নয়নে কাজ করতে পারেননি নানা জটিলতায়। তাই এবার সভাপতি পদেই লড়তে চেয়েছিলেন। তবে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের নির্ধারিত সময়েরও ১ ঘণ্টা পর একটা হাতে লেখা চিঠি হাতে ফেডারেশনে আসেন তার স্ত্রী মাধুরী রায়। এরপর থেকেই চাউর, প্রতিপক্ষের চাপেই নাকি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বাদল রায়।
এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ফুটবলের জন্য পাশে থাকতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার শরীরের ওপর চাপ হয়ে যাচ্ছে। আমি অফিসিয়ালি প্রত্যাহার করে নিলাম।
নির্বাচন করছেন না। তৃণমূলের সংগঠকদের কাছে তাই ক্ষমা চেয়েছেন বাদল। তবে ফুটবলের উন্নয়নে কাকে দেখতে চান বাফুফে বসের চেয়ারে? সালাউদ্দিন নাকি মানিক কার প্রতি থাকবে মৌন সমর্থন?
তিনি আরো বলেন, তাদের কারো ব্যাপারেই আমার কোনো মন্তব্য নেই। তবে সবাই জেনো চিন্তা ভাবনা করেই ভোট প্রদান করে।
তবে কাগজে কলমে এখনও সভাপতি প্রার্থী হিসেবে বলবৎ আছেন বাদল রায়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

সাকিব অন্যদের মতোই একজন খেলোয়াড়’

  দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন সাকিব আল হাসানের ফেরার অপেক্ষা ফুরোচ্ছে। আর এক সপ্তাহ …

error: Content is protected !!