গুফা ’য় বাবার দেখভাল করার জন্য ২০০ সুন্দরী শিষ্যা !

গুফা ’য় বাবার দেখভাল করার জন্য ২০০ সুন্দরী শিষ্যা !

এক হাজার একর জমির ঠিক মাঝখানে আয়নায় ঘেরা একটি প্রাসাদ। প্রাসাদটির নাম বাবা কি গুফা।

দামি সব কিছু দিয়ে সাজানো ব্যয়বহুল সেই প্রাসাদেই বাস করেন গুরমিত রাম রহিম সিংহ।

গুফায় তাকে ঘিরে রয়েছে প্রায় ২০০ জনের ও অধিক তরুনী বাছাই করা শিষ্যা। সবার ই চুল খোলা । সকলের পরনে সাদা রংয়ের কাপড়। আর এরাই রাম রহিমের যত্ন এবং দেখভাল করেন। আর এমন ই দুই শিষ্যাকে ধর্ষনের মামলায় দোষী প্রমানিত হয়েছেন বাবা রাম রহিম।

বাবার গুফায় অতিথি হওয়া বিহারের সাংবাদিক পুষ্পরাজ জানিয়েছে, ঐ খানে আছে মেয়েদের স্কুল পারীলোক। স্কুলের সব ছাত্রীই অনেক সুন্দরী। কারন বাবাজি মনে করেন অনেক সুন্দর হলেই মেধাবী হয়।

বাবাজির গুফা তে যাওয়ার অনুমতি আছে মাত্র কয়েকজনের ই। তাও আঙুলের ছাপ চোখের মনির বায়োমেট্রিক সিকিউরিটির পর।

ধর্মগুরু হলেও বাবাজি সব সময় পছন্দ করেন রং বেরং এর জামা। তার জন্য রয়েছে আলাদা ফ্যাশন ডিজাইনার।

বাবাজি রাম রহিমের রয়েছে ১০০ টি বিলাশ বহুল গাড়ি । কালো রঙের ফোর্ড এনডেভার রয়েছে প্রায় ১৬ টি। কোথাও যাবার আগে বাবা নিজেই ঠিক করেন তিনি কোন গাড়িতে উঠবেন। আর আশ্রমের মধ্যে তিনি নিজের ব্যাটারী চালিত গাড়িতে ঘুরেন।

সিরসায় ডেরা সচ্চা সৌদার এই সদর দফতরকে আশ্রম না বলে ছোট খাট একটা শহর বলা যেতে পারে। কি নাই এতে ? হোটেল, সিনেমা, রেস্তোরা, হাসপাতাল,পত্রিকা ছাপা খানা থেকে সব ই আছে এতে। নিরাপত্তার জন্য রয়েছে নিজস্ব কন্ট্রোল রুম।

রাম রহিমের দাপট ডেরা-র বাইরেও  কম নয়।দেশ বিদেশে প্রায় ৪৬ টি আশ্রম রয়েছে রাম রহিমের। নিজেকে মেসেঞ্জার অফ গড দাবী করেন তিনি।শ্যাম্পু-তেল-সাবান সহো অনেক পন্য সামগ্রীর ব্যবসা চলে এই আশ্রম থেকে। প্রতিদিন প্রায় ৩০ হাজার লোক আশ্রমে জড়ো হয় রাম রহিমের প্রবচন শুনতে। মাত্র ৬ মিনিট ভক্তদের উদ্দ্যশে উপদেশ দেন রাম রহিম। তার পরেই মঞ্চে শুরু হয় ডিজে গান।

ধর্মগুরু অবশ্য সংসারী ও। তার রয়েছে এক পুত্র এবং দুই কন্যা । এ ছাড়া একটি কন্যা দত্তক ও নিয়েছেন। মেয়েরা তার সিনেমায় অভিনয় ও করেছেন। ছেলের বিয়ে দিয়েছেন কংগ্রেসের এক নেতার মেয়ের সংগে। বড় মেয়ের রয়েছে দুই ছেলে। আদর করে বাবাজি তাদের নাম  দিয়েছেন—সুবাহ-এ-দিল  সুইটলাক ও ।

আরো পড়ুন: কালকি কোয়েচলিন এবার ইনস্টাগ্রামে পোশাক খুলে ছবি পোস্ট করলেন

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ডিজিটাল কেরানীগঞ্জ গড়তে দক্ষিন কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগ অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে

এক সময় কেরানীগঞ্জ ছিলো বাত্তির নিচে অন্ধকার। ২০০৮ সালে নির্বাচনে নসরুল হামিদ বিপু কেরানীগঞ্জ থেকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!