নূন্যতম যোগ্যতা

ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের নতুন ভর্তি নীতিমালা বাতিলসহ ৮ দফা দাবি

“পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ডিপ্লোমা কোর্সের ভর্তির ক্ষেত্রে কোন রকমের বয়সের সীমাবদ্ধতা রাখা হবে না এবং ছেলেদের ভর্তির ক্ষেত্রে নূন্যতম যোগ্যতা জিপিএ ৩.৫০ থেকে কমিয়ে ২.৫০ ও মেয়েদের ক্ষেত্রে জিপিএ ৩ থেকে কমিয়ে ২.২৫ করার সিদ্ধান্ত নেয়” শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এমন সিদ্ধান্তে তীব্র অাপত্তি জানিয়েছেন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা।

সোমবার (৬ জুলাই) পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ডিপ্লোমা কোর্সের শিক্ষার্থীদের সংগঠন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের ব্যানারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এমন সিদ্ধান্ত বাতিলসহ ৮ দফা দাবি জানানো হয় এবং দাবি বাস্তবায়নে ৬ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার বৃদ্ধির লক্ষে এবং বিদেশ ফেরত দক্ষ কর্মীদের প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেওয়ার জন্যে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের ফলে এসএসসি পাশ উত্তীর্ণরা পলিটেকনিক ভর্তির অাগ্রহ হারাবে। ভর্তিতে অনিহা দেখাবে মেধাবীরাও। ফলে পলিটেকনিক সেক্টর ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে যাবে।

এ বিষয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের অাহবায়ক ইয়াসির আরাফাত জানান,
মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ১ জুলাই হটোকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা কারগারি শিক্ষার উদ্দেশ্যর সাথে সাংঘর্ষিক৷ ২০২৩ সালের মধ্যে কারিগরি শিক্ষাকে ৩০ শতাংশ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কে সাধুবাদ জানায় কিন্তু শিক্ষার গুনগতমানের প্রতি প্রাধান্য না দিয়ে যদি শুধু সংখ্যার দিককে প্রধান্য দেওয়া হয় তবে কারিগরি শিক্ষার উদ্দেশ্য ব্যহত হবে। তাই অামরা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ভর্তি নীতিমালায় যে পরিবর্তন অানতে চাচ্ছে তা প্রত্যাহারসহ ৮ দফা দাবি জানাচ্ছি।

এছাড়া তিনি আরও বলেন, কারিগরি শিক্ষা ব্যবস্থায় যেসব সংকট বিদ্যামান তা দুই একদিনে তৈরি হয়নি, দীর্ঘ দিনের চাপা এসব ন্যায দাবি বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সহ নীতি নির্ধারকদের বিবেচনা করার অাহবান করছি।

এর অাগে, রোরবার (৫ জুলাই) ইন্সটিটিউট অফ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এর সভাপতি একেএমএ হামিদের সভাপতিত্বে এক ভার্চুয়াল সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এমন সিদ্ধান্তে তীব্র অাপত্তি জানানো হয়।

তাদের ৮দফা দাবি সমূহ হলো: ১.গত ০১ জুলাই মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি ঘোষিত ভর্তির নীতিমালায় ভর্তির আবেদনের নূন্যতম যোগ্যতা ছেলেদের ক্ষেত্রে ৩.৫ থেকে কমিয়ে ২.৫ এবং মেয়েদের ক্ষেত্রে ৩.০০ থেকে কমিয়ে ২.২৫ করা, এবং ভর্তির বয়সসীমা শিথিলের সিদ্ধান্ত অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে এবং পুর্বের নুন্যতম গ্রেড পয়েন্ট ও বয়স সীমার শর্ত বহাল রাখতে হবে। ২. SSC গ্রেড পয়েন্ট এর উপর ভিত্তি করে প্রচলিত বর্তমান ভর্তির নীতিমালা পরিবর্তন করে পুনরায় ২০১০ প্রবিধানের ন্যায় ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করতে হবে। ৩. সকল পলিটেকনিক ও TSC গুলোর শিক্ষক সংকট নিরসনে অনতিবিলম্বে পর্যাপ্ত শিক্ষক নিয়োগ এবং সকল ইন্সটিটিউটের ল্যাব সংস্কার, দক্ষ ল্যাব সহকারি নিয়োগ এবং পর্যাপ্ত যন্ত্রাংশ সরবরাহ করতে হবে।

৪. ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এর সিলেবাসকে যুগোপযোগী সংস্কার পূর্বক ইংরেজি এবং প্রাকটিক্যাল বিষয়াদির উপর বাড়তি গুরুত্বারোপ করতে হবে। ৫.শিক্ষামন্ত্রীর পূর্ববর্তী ঘোষণা অনুযায়ী সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিপ্লোমা শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার জন্য ভর্তির সুযোগ অবিলম্বে কার্যকর করতে হবে। ৬.দক্ষ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে সহজ শর্তে ঋণ প্রদান ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতা নিশ্চিত করতে হবে। ৭. সকল ডিপার্টমেন্টের জন্য সরকারি চাকরিতে আবেদনের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে, অন্যথায় পর্যাপ্ত কর্মসংস্থানের সুযোগ না থাকা ডিপার্টমেন্ট গুলো অনতিবিলম্বে বন্ধ করতে হবে। ৮. ৪র্থ শিল্প বিপ্লব বাস্তবায়ন কল্পে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে মাঠ পর্যায়ে কর্মরত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের সুনির্দিষ্ট বেতন কাঠামো নির্ধারণ করতে হবে।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,জনসেবার নামে প্রতারনা, আহসান হাবীব পেয়ারের পর এবার ইফরীত জাহিন কুঞ্জ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

উদ্যত শির লুটিয়ে দাও

  লেখক ডাক্তার রফিকুল ইসলাম হে বিশ্ব! থমকে দাড়ালে কেন? চমকে গেলে কেন? কোথায় তোমার …

error: Content is protected !!