পরিত্যক্ত ভবনের

নাটোরে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিদ্যালয় ভবন ভাঙার অভিযোগ

সরকারি অনুমতি ছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ভবনের বারান্দা, দেওয়াল ও খুঁটি ভাঙ্গার অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে এলাকাবাসী ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে সমালোচনার ঝড়।

বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) বিকেলে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, লালপুর উপজেলার পাইকপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ভবনের দেওয়াল, বারান্দা ও খুঁটি ভাঙ্গা হচ্ছে। শ্রমিকরা জানায়, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাদের ভবন ভাঙতে বলেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, নতুন ভবন হওয়ার পর থেকে পুরাতন ভবনটি কয়েক বছর ধরে অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে। এটা সরকারি সম্পদ টেন্ডার বা অকশন ছাড়া ভাঙ্গা সম্ভব নয়। তবুও কিসের জোরে বিদ্যালয়ের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক ভবনটি ভাঙ্গার অনুমতি দিয়েছে তা বলতে পারবো না।

সরকারি অনুমতি ছাড়া ভবন ভাঙার কথা স্বীকার করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরজাহান জানান, সরকারি নির্দেশনা ছাড়া পরিত্যক্ত ভবন ভাঙা বা সেখান থেকে ইট নেওয়া যাবে না এটা জানা ছিলো না। স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির (এসএমসি) রেজুলেশনে শহিদ মিনার করার জন্য সামনের কয়েকটি পিলার ভাঙার কথা আছে। এজন্য ভাঙার নির্দেশ দিয়েছিলাম,আমি একা সিদ্ধান্ত নেইনি এসএমসি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ইউসুফ আলী জানান, পুরাতন ভবন ভাঙার আদেশের ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ভালো বলতে পারবেন। আমার কাছে সরকারি ভবন ভাঙ্গা সম্পর্কিত সে রকম লিখিত কোন আদেশ নাই। আর বিল্ডিং ভাঙ্গিনি শুধু বারান্দার পিলার ও খুঁটি ভাঙা হয়েছে।

লালপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, সরকারি কোন সম্পদ অনুমতি ব্যতিত ভাঙার বা দখলে নেওয়ার সুযোগ কারো নেই। অনুমতি ব্যতিত সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক এটা করতে পারেন না। অবশ্যই তদন্ত করে তাদের ব্যাপারে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মুল বানীন দ্যুতি জানান, সরকারি সম্পদ নিয়ম-নীতির বাহিরে ভাঙার কোন সুযোগ নেই। আমি খবর নিয়ে দেখছি।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,আমাদের সচেতনতাই হতে পাড়ে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

প্রধান শিক্ষক এখন গরু খামারের কেয়ারটেকার

তাসনীমুল হাসান মুবিন,স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহের ত্রিশালের আলহেরা একাডেমী এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক …

error: Content is protected !!