ভালোবাসার প্রতীক

এক রাতের অতিথি নাইট কুইন, দেখা মিললো লালপুরে

ফুল ভালোবাসার প্রতীক। প্রিয়তমার গলায় মালা কিংবা খোঁপায় ভালোবেসে ফুল গুঁজে দেয়ার সৌন্দর্য-অনুভূতি অনন্য। সব ধরনের শুভ কাজেও ফুলের ব্যবহার রয়েছে। তবে মানুষভেদে ফুলের পছন্দে তারতম্য দেখা যায়। কেউ গোলাপ, কেউ হাসনাহেনা, কেউবা গ্রামবাংলার মেঠো পথের ধারে ফোটা অজানা ফুলের ভালোবাসায় মুগ্ধ হন। তবে যে ফুল বছরে একবার ফোটে, সেই ফুল নিয়ে সবার কৌতূহল থাকবে এটাই স্বাভাবিক। তেমনই একটি ফুল নাইট কুইন।

রাত গভীরতার সাথে সদ্য কলি থেকে একটি করে পাপড়ি ফুলটি থেকে বেরোতে থাকে, সঙ্গে ছড়াতে থাকে মৃদু অথচ মন কেড়ে নেয়া সুগন্ধ। ফুল ও প্রকৃতিপ্রেমী মানুষ মাত্রই এই ‘নাইট কুইন’ ফুলটির সৌন্দর্য, সুগন্ধ ও বৈচিত্রময় এক রাতের ব্যাতিক্রমী জীবনকাল নিয়ে ফুল ফোটা থেকে ঝরে পড়া পর্যন্ত সময়কালকে দেখতে এবং উপভোগ করার মতো অভিজ্ঞতার জন্য অনেক কিছুর বিনিময়েও অপেক্ষায় থাকে।

এই ‘নাইট কুইন’ ফুলটি বর্তমানকালে অতি দূর্লভ না বলা গেলেও বলা যায় দূর্লভও বটে। অনেক ধৈর্য, পরিশ্রম এবং অপেক্ষার পরই নাইট কুইন ফুল ফোটা দেখার সৌভাগ্য হয় তাও আবাে বেশিক্ষণের জন্য না। যে রাতে ফুলটি ফুটলো আবার রাতটি শেষের সাথেই সে ঝরে পড়ে। ফুলটি দেখতে যেমন সুন্দর তেমনি গন্ধেও অতুলনীয়। সাদা রং এর ফুলের ভেতর ঘিয়ে রং এর আবরণ ও সুমিষ্ট গন্ধ নাইট কুইনকে দিয়েছে রাজকীয় রানীর সরল কিন্তু অমোঘ অভিব্যক্তি। সর্বোপরি, এইসব কারনগুলোর জন্যই ‘নাইট কুইন’ ফুলকে বলা হয় রাতের রাণী।

এক রাতের এই দুর্লভ ফুলের দেখা মিললো নাটোরের লালপুর উপজেলার বাওড়া গ্রামের অাবু সাঈদের ফুলের টবে। দীর্ঘ সময় পেড়িয়ে আবারও বৃহস্পতিবার (১১জুন) রাত ৮ টার পর দেখা মিলল নাইট কুইনের। যে কারণে ফুলটির পরিপূর্ণ রূপ দেখতে আগ্রহী ছিলেন স্থানীয় অনেকে।

এবিষয়ে অাবু সাঈদ জানান, শখের বসে প্রায় ১৫-২০ বছর অাগে নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলস এমডি বাংলো থেকে নিয়ে এসে রোপন করেন তিনি। কয়েক বছর পর থেকেই ফুল ফোটে। এ বছর একসাথে ৫ টি ফুল ফোটেছে।

পাথরকুচির মতো পাতা থেকেই এই ফুলগাছের জন্ম হয়। আবার পাতা থেকেই ফুলের গুটি। কয়েকদিন পর গুটি থেকে কলি হয়। যে রাতে ফুলটি ফুটবে, সেদিন সন্ধ্যা থেকেই একটু একটু করে ফোটার প্রস্তুতি নিতে নিতে গভীর রাতে তার অপার সৌন্দর্য নিয়ে হাজির হয় ফুলটি এবং রাত শেষ হওয়ার সাথে সাথে ভোরের আলোয় মিলিয়ে যায় এর সৌন্দর্য।। অার এর গন্ধও চমৎকার বলে জানান তিনি।

ইতিহাসে জানা যায়, গাছটির বৈজ্ঞানিক নাম Epiphyllum Oxypetalum। ইংরেজিতে Dutchman’s Pipe ও Queen of The Night নামেও পরিচিত। বিরল ক্যাকটাস জাতীয় এ ফুলটির আদি নিবাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চল এবং মেক্সিকো। এছাড়া নাইট কুইন নিয়ে নানা গল্প শোনা যায়। সর্বাধিক প্রচলিত গল্প হলো, দুই হাজার বছর আগে বেথেলহেমে যিশুখ্রিস্টের জন্মের রাতে নগরীর প্রতিটি বাড়িতে নাইট কুইন ফুটেছিল। এ কারণে একে ‘বেথেলহেম ফ্লাওয়ার’ নামেও ডাকা হয়। এছাড়া একে সৌভাগ্যের প্রতীকও বলা হয়। তবে সৌভাগ্য আর গল্প যাই থাকুক অপার সৌন্দর্যই ফুলটিকে ‘ফুলের রানী’ উপাধি দিয়েছে তা বলায় যায়।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,প্রযুক্তির মাধ্যমে জবিতে বিশ্ব ভোঁদড় দিবস পালিত

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ঠাকুরগাঁওয়ে ট্রাক্টর দিয়ে ধানক্ষেত নষ্টের অভিযোগ

সুমন হাসান বাপ্পি ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে বিবাদমান জমি দখল নিতে ধান ক্ষেত ট্রাক্টর/ মাহেন্দ্র দিয়ে …

error: Content is protected !!