করোনায় আক্রান্ত

আপনি বেঁচে থাকলে অনেক কম টাকায় গরিব সেবা পাবে

গত ২৫ মে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন গনস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী। শুরুর দিকে তার শারীরিক অবস্থা  ভালোর দিকে  থাকলেও গতকাল বৃহস্পতিবার তার স্বাস্থ্যের কিছুটা অবনতি হয়েছে।

তার জন্য দশ হাজার টাকা দামের আটটি ইনজেকশন নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি দেশের গরিব জনগনের কথা ভেবে তিনি সেগুলি কিছুতেই গ্রহণ করবেন না। তার বক্তব্য, ৮০হাজার টাকা খরচ করে এদেশের সাধারন মানুষ করোনা চিকিৎসা নিতে পারবেন না।

 এ বিষয়ে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ে অকুতভয় কন্ঠস্বর ও দৈনিক দেশ রূপান্তরের চিফ রিপোর্টার উম্মুল ওয়ার সুইটি  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরীর কাছে আবারো দেশের ও জনগনের কথা ভেবে জাফর উল্লাহ চৌধুরীর  সুস্থতার জন্য তাকে ইঞ্জেকশন গুলো নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছে।

নিচে তার পোষ্টটি হুবুহু তুলে ধরা হলো:

 

অনুরোধ আপনি ইঞ্জেকশন নিন
আপনি বেঁচে থাকলে অনেক কম টাকায় গরিব সেবা পাবে
ডাক্তার জাফরুল্লাহর কাছে আকুল আবেদন।

মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ ফিল্ড হসপিটাল দিয়ে শুরু তরুণ ডাক্তার জাফরুল্লাহ র। এরপর যুদ্ধপরবর্তী সেবাখাত কে সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে কাজ করতে থাকেন কমরেড। বাংলাদেশ ফিল্ড হসপিটাল স্বাধীনতা পরবর্তীতে গণস্বাস্থ্যে রূপ নেয়। গাজীপুরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তরুণ চিকিৎসকের পরিকল্পনার প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে তাকে জমি দেন।
এরপরের ইতিহাস আমরা সবাই জানি। ৭৫ সালের ১৫আগস্ট থেকে একটা লম্বা সময় এক প্রশাসনের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। তাতেও থেমে থাকেননি জাফরুল্লাহ।সমাজ বিনির্মাণের এই উদ্যোগ তার কাজের গতি কমে ছিল কিন্তু চিন্তার গতি ধাবমান।
সামরিক সরকারের সময়ই হাজার ১৯৮২ সালে ওষুধ নীতি প্রণয়নের প্রস্তাব করেন এবং চাপ দেন। এভাবে চিকিৎসা কে স্বাস্থ্য সেবা খাতে রূপ দেওয়ার জন্য লড়াই করতে থাকেন।


স্বাস্থ্যখাতকে সাধারণ মানুষের উপযোগী করতে ইউটিউব বাবন থেকে শুরু করে অনেক পরিকল্পনা নেন।
হ্যাঁ যেটুকু না বললেই নয়, রাজনৈতিক সচেতন জাফরউল্লাহ বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন। একদিন তার সঙ্গে কথা বললাম,বললাম আপনি কি সরাসরি রাজনীতি করতে চান এতে তো বিশাল সময় ব্যয় হয়। অকাতরে তিনি বললেন, রাজনীতি ছাড়া কিছুই হয় না। আর রাজনীতিক সরকার মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা যত বোঝেন অন্যরা তা বোঝেন না। আমি রাজনীতিবিদ দের দিয়ে আমার পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন করিয়ে নিতে চাই।


৮০ বছর বয়সী জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জীবনে অনেক গল্প আছে। এগুলোতে আর না যাই।
এইযে বিশ্ব মহামারী চলছে এর মধ্যেও থেমে নেই জাফরুল্লাহ। আরেক প্রতিভাবান মানুষ ড বিজন কে নিয়ে করোনা কিট উদ্ভাবন করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে একটি অনুমোদনের নির্দেশ দিয়েছেন। অনেকদিন দরবার চড়াই-উৎরাইয়ের পর সেই ব্যবহারের অনুমতি পেলো। স্বাস্থ্য খাতের জন্য জাফরুল্লাহর অনেক বড় বড় পরিকল্পনা বাকি।
প্রাণশক্তি হীন মানুষের অভাব যখন সারা পৃথিবীতে। মানুষের পাশে দাঁড়ানোর লোক যখন কমে গেছে তখন ডাক্তার জাফরুল্লাহ কে আমাদের অনেক দরকার।


এরমধ্যে প্রাণ শক্তি সম্পন্ন মানুষ আক্রান্ত হলেন করোনায়। দুইবার প্লাজমা নিলেন। বয়স হয়েছে, কিডনিতে সমস্যা। মাঝে মাঝে শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। তার জন্য দশ হাজার টাকা দামের আটটি ইনজেকশন নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি সেগুলি কিছুতেই গ্রহণ করবেন না। তার বক্তব্য, ৮০হাজার টাকা খরচ করে এদেশের সাধারন মানুষ করোনা চিকিৎসা নিতে পারবেন না।
আজ সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখলাম, জাফরুল্লাহ শরীরের অবনতি হয়েছে। মনে হল, এক্ষুনি ছুটে গিয়ে বলি, সাধারণ মানুষগুলোকে আশা জাগাতে আপনাকে আমাদের বড্ড প্রয়োজন। এই বিশাল জনগোষ্ঠীর প্রাণের আকুতি কাছে আশি হাজার টাকা কয়টি পয়সার মতো।

 

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর শারীরিক অবস্থার আপডেটঃ
জুন ৫, ২০২০, শুক্রবার, সকাল ৭:৩০ মিনিট

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জন্য সক‌লে দোয়া কর‌বেন। উনার শরীর ভা‌লো না। রাতে উনার শ্বাস:কষ্ট ছিল। আপনা‌দের সক‌লের দোয়া খুব প্র‌য়োজন।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বর্তমা‌নে উনার স্থা‌পিত প্র‌তিষ্ঠান গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতা‌লে চি‌কিৎসা নি‌চ্ছেন ।

গণস্বাস্থ্য কে‌ন্দ্রের বীর চি‌কিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী‌দের প্র‌তি বি‌শেষ ক‌রে ব্রিগেডিয়ার অধ্যাপক ডা. মামুন মুস্তাফি, অধ্যাপক ডা. নজীব এবং তা‌দের দল এর প্র‌তি অকৃ‌ত্তিম ভা‌লোবাসা ও শ্রদ্ধা।

নিউজ ঢাকা

আরো পড়ুন,করোনায় বাতিল ফ্রেঞ্চ লিগ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

লঞ্চ ডুবির ঘটনায়

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চ ডুবির ঘটনায় ৩৩ লাশ উদ্ধার

রাজধানীর শ্যামবাজার এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীতে অর্ধশত যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড নামে একটি লঞ্চ ডুবির ঘটনায় …