করোনায় নিস্তব্ধ রাজশাহী কলেজ ক্যাম্পাস, প্রতীক্ষায় শিক্ষার্থীরা

কিছুদিন আগেও যে ক্যাম্পাস শিক্ষার্থীদের আড্ডা আর কোলাহলে মুখরিত থাকত, কিন্তু এখন পুরো ক্যাম্পাসে শুনশান নিরবতা। নেই কোনো কোলাহল। দেখা যায় না হাজারো শিক্ষার্থীর প্রানোচ্ছল সেই ছুটে চলা। কারণ যে, বিশ্বব্যাপী মহামারীতে রূপ নেয়া করোনার প্রকোপ পড়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের বিদ্যাপিঠ দেশ সেরা রাজাশাহী কলেজও।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে গত ১৭ মার্চ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। সে নির্দেশনা অনুযায়ী এদিনই রাজশাহী কলেজের সব একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ফলে ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী সবার অনুপস্থিতিতে কোলাহলের ক্যাম্পাস এখন পুরোটাই ফাঁকা। তাইতো নিস্তব্ধতায় ঢেকে গেছে সবুজের মাঝে গাঢ় লাল দালানের পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস।

চেনা ক্যাম্পাস আর কলেজ হোস্টেল গুলো আজ বড্ড অপরিচিত। নেই ক্লাসে দেরি হওয়ার তাড়া কিংবা অফ পিরিয়ডে সেমিনারে বসে পড়াশুনা। নেই প্রেজেন্টেশন, এসারমেন্ট, ক্লাস টেষ্ট বা ইনকোর্সের বাড়তি চাপ। সব কিছু যেন থেমে আছে। ক্যাম্পাসের রবীন্দ্র চত্বর, পুকুর পাড়, ছায়াবীথি, লাইব্রেরি, খোলা মাঠ, ক্যান্টিন এসব জায়গায় দেখা মিলত প্রাণখোলা হাসিতে আড্ডায় মুখরিত শিক্ষার্থীদের। পরিচিত সেই চত্তরগুলো অাজ শিক্ষার্থীর শূন্যতায় যেনো যৌবন হারিয়েছে। শিক্ষার্থী শূন্যে খাঁ খাঁ করছে শিক্ষার্থীদের প্রিয় আড্ডার এইসব জায়গাগুলো। যে বাসের জন্য দাঁড়িয়ে থেকে শিক্ষার্থীরা বাসে করে ক্যাম্পাসে আসার জন্য দীর্ঘ প্রতিযোগিতা, সেই বাসে সিট ধরার জন্য নেই তাড়াহুড়ো। তারুণ্যের অনুপস্থিতিতে স্পন্দনহীন হয়ে পড়ে আছে সহস্র প্রাণের কলরবে মুখরিত রাজশাহী কলেজ ক্যাম্পাস।

জানা যায়, ঈদ কিংবা পূজার ছুটিতেও এর আগে এমন মানবশূণ্য হয়নি ক্যাম্পাস। কিন্তু এইবার করোনাভাইরাসের কারণে আতংক ও সচেতনতায় বাড়িতে অবস্থান করছে সবাই। প্রতিবছর রমজান মাসে বিভিন্ন সংগঠনের ইফতার মাহফিলে বৈচিত্র্যময় হয়ে উঠতো, কিন্তু এবার রমজান মাস শেষের পথে থাকলেও প্রতিকূল পরিস্থিতির জন্য এবার অার রাজশাহী কলেজ মেতে উঠতে পারে নি চিরচেনা সেই ইফতার মাহফিলে।

কলেজের বাংলা ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী মরিয়ম নেসা বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে চিরচেনা ক্যাম্পাস তার রূপ হারিয়েছে। জানি না কতদিন পর ক্যাম্পাস তার আগের অবস্থা ফিরে পাবে। এ পরিস্থিতিতে ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় কলেজের শিক্ষকসহ সকল বন্ধুদের মিস করছি বলে জানান ওই শিক্ষার্থী।

এছাড়া রসায়ন ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী হাবিব অাদনান বলেন, করোনা দূর্যোগের বন্ধুদের সাথে ইফতার মাহফিল হলো না, সবার সাথে অনেক দিন দেখা নাই। অাশা করি সবাই সুস্থভাবে ফিরে আসবে প্রিয় ক্যাম্পাসে। খুব দ্রুতই এই পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পেয়ে ক্লাসে ফিরতে পারবো।

এমতাবস্থায়, শিক্ষার্থীরা মিস করছে ক্যাম্পাসের সেই কোলাহল মহূর্তগুলো। ছুটে যেতে চাইছে প্রিয় ক্যাম্পাসে। কিন্তু করোনা ভাইরাস শিক্ষার্থী ও তাদের প্রাণপ্রিয় ক্যাম্পাসের মাঝে বিস্তৃত দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা দ্রুতই সেই দেয়াল গুড়িয়ে দিয়ে অাবারো লাল দালানের ক্যাম্পাসকে করে তুলবে প্রাণোচ্ছল। ক্যাম্পাসের নির্জনতা ও নিস্তব্ধতা চিরতরে ঢেকে দিয়ে ফিরবে লাল কংক্রিটের ক্লাশে, অার এমনি প্রতীক্ষায় শিক্ষার্থীরা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

এশিয়ার একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে জবির “ইন্সট্রুমেন্টাল এক্সেস এওয়ার্ড” অর্জন

এশিয়ার একমাত্র এবং বাংলাদেশের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে “ইন্সট্রুমেন্টাল এক্সেস এওয়ার্ড-২০২০” অর্জন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের …

error: Content is protected !!