শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা নিয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদের ‘তথ্য বিভ্রাট’

করোনা মোকাবেলায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের বিরুদ্ধে তথ্য বিভ্রাটের অভিযোগ উঠেছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে খোলা ‘করোনা মোকাবেলায় জবিয়ানদের পাশে জবিয়ান’ নামক গ্রুপ থেকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সহযোগিতার তথ্য নিজেদের সংগঠনের তথ্যে সংযুক্ত করে।

গতকাল রবিবার ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতার একটি তথ্য ‘কোটা সংস্কার চাই ( বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ)’ এর ফেসবুক গ্রুপে প্রদান করে। সে তথ্যে উল্লেখ থাকে ছাত্র অধিকার পরিষদ জবি শাখার পক্ষ থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩১৪ জন শিক্ষার্থীকে ৪ লাখ ২২ হাজার টাকা ও ৬৮ শিক্ষার্থীকে খাদ্যসামগ্রী প্রদান করা হয়। এর ভিত্তিতে একটি জাতীয় পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ হলে ‘করোনা মোকাবেলায় জবিয়ানদের পাশে জবিয়ানরা’ গ্রুপের উদ্যোক্তারা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করে।

জানা যায়, দেশে করোনা সংকটের শুরুর দিক থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত সাধারণ শিক্ষার্থীদের সহযোগিতার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘করোনা মোকাবেলায় জবিয়ানদের পাশে জবিয়ানরা’ নামে একটি গ্রুপ খোলে। এ গ্রুপের উদ্যোক্তাদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত সাধারণ শিক্ষার্থী, সাংবাদিক, ছাত্রলীগ কর্মী ও ছাত্র অধিকার পরিষদের জবি শাখার আহ্বায়ক রাইসুল ইসলাম নয়ন ছিলেন। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে খোলা এই গ্রুপে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা আর্থিক সহযোগিতা করেন। কিন্তু গত রবিবার সাধারণ শিক্ষার্থীদের সহযোগিতার এ তথ্য ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাদের সংগঠনের নামেও সেই অর্থের তথ্য উল্লেখ করে। পরে এটি ভাইরাল হলে ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ এর আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ‘কোটা সংস্কার চাই ( বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ)’ এর ফেসবুক গ্রুপে তার আগের দেয়া তথ্যটি পরিবর্তন করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি, প্রেসক্লাব, ছাত্র অধিকার পরিষদ জবি, শাখা ছাত্রলীগ, আমরা জকসু চাই ও বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রকে এ সহযোগিতার উদ্যোক্তা হিসাবে তথ্য প্রদান করে।

হাসান আল মামুনের দেয়া তথ্যটি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি, শাখা ছাত্রলীগ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের নজরে আসলে তারা এটির প্রতিবাদ জানায়। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি এক প্রতিবাদ বার্তায় জানায় ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ- এ আহ্বায়ক হাসান আল মামুন করনা সংকটে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (জবিসাস) বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ এর সহযোগী উদ্যোক্তা হিসাবে যে তথ্যটি উল্লেখ করেছেন তা সম্পূর্ণ ভুল। বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি কোনপ্রকার রাজনৈতিক সংগঠন বা ছাত্রসংগঠনের সহযোগী হিসাবে কাজ করেনি। এরকম মানবিক উদ্যোগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (জবিসাস) সদস্যরা তাদের পেশাগত ও নৈতিক দায়িত্ব পালন করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মাহাদী সেকেন্দার বলেন, সাংস্কৃতিক কেন্দ্র সবসময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশে সহায়তার কাজ করেছে। কোন সংগঠনের সহযোগী হিসাবে কাজ করেনি।

‘করোনা মোকাবেলায় জবিয়ানদের পাশে জবিয়ানরা’ খোলা গ্রুপের উদ্যোক্তা ও ছাত্রলীগ কর্মী নাজমুল হাসান মুন্না বলেন, আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরাই উদ্ধুদ্ধ হয়েই শিক্ষার্থীদের সহযোহিতায় এগিয়ে আসি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ও সাবেক ভাইয়েরা এখানে এগিয়ে আসে। এখানে কোন সংগঠনের ব্যানার ছিল না।

এ বিষয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য ক্যাম্পাসে ছাত্র অধিকার সংরক্ষন পরিষদের ব্যানারে সহযোগিতা করা হয়েছে। আমরা এই ধারণায় তথ্যটি দেই। এখানে আমাদের যোগাযোগ ও তথ্য সঙ্কট ছিল। পরে আমরা সেটি সংশোধন করি। বিষয়টি নিয়ে আমরা দুঃখিত।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

কেরানীগঞ্জে স্বাস্থ্যবিধি কিংবা সামাজিক দুরুত্ব কিছুই মানা হচ্ছে না !

জীবন ও জীবিকার তাগিদে সরকার গত ৩১ মে থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব কিছু খুলে …

error: Content is protected !!