তুফানের

তুফানের ফাঁসির দাবিতে ধানমন্ডিতে সড়ক অবরোধ

বগুড়ায় এক ছাত্রীকে ধর্ষণ এবং নির্যাতনের প্রতিবাদে ধর্ষক তুফানের ফাসির দাবিতে রাজধানীর ধানমন্ডিতে মানববন্ধন ও সড়ক অবোরধ করেছে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আজ বেলা ১১টায় সাধারন শিক্ষার্থীদের ব্যানারে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীরা ধর্ষকের শাস্তি আইন করে ফাঁসি দেওয়ার দাবি জানান। স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও বিভিন্ন বিভাগের সাধারন ছাত্র-ছাত্রীরা অংশ নেয় মানববন্ধনে।

মানববন্ধনে স্টামফোর্ড স্টুডেন্ট ওয়েলফেয়ারের উপদেষ্ঠা রেহানা আক্তার বলেন, ‘আজকে ধর্ষন আমাদের সমাজে ভয়াবহ ভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। শুধুমাত্র বগুড়ার একজন তুফান নয়, বরং সমগ্র বাংলাদেশ জুড়ে রয়েছে হাজারো তুফান । পত্রিকার পাতা খুললেই আমরা ধর্ষনের খবর দেখি প্রতিদিন ই। তিনি বলেন, এভাবে অরাজগতা চলতে দেওয়া যায় না।  এ দেশ থেকে ধর্ষকদের ঝাটিয়ে বিদায় করতে হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক নাহিদ নিয়াজি, মহসিনুল করিম, নাঈম জালাল উদ্দিন, , লেকচারার ইমরান খান প্রমুখ এ সময় ধর্ষনের বিরুদ্ধে নিজেদের মতামত তুলে ধরেন । রাখিল খন্দকার কর্মসূচিতে শিক্ষার্থীদের পক্ষে মুখপাত্রের দ্বায়িত্ব পালন করেন । তিনি বলেন, ‘আজকে সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে ছাত্রছাত্রীদের সাথে নিয়ে আমরা ধর্ষনের বিরুদ্ধে রাস্তায় দাঁড়িয়েছি। ধর্ষনকারীর পরিচয় সে একজন অমানুষ, তার কোন সমাজ নেই, দল নেই, দেশ নেই। ‘ধর্ষনের সাজা হবে মৃত্যুদন্ড’ আমরা এমন আইনের বাস্তবায়ন চাই।

সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী ছাইফুল ইসলাম মাছুম মানববন্ধনে অংশ নিয়েছিল । তিনি বলেন, ‘ধর্ষনের দায় এড়াতে অনেকে নারীর পোশাকের দোষ দিয়ে থাকেন। কিন্তু তিন বছরের শিশুরাও ধর্ষন থেকে আজ রেহাই পাচ্ছেনা । অধিকাংশ ক্ষেত্রে ঘটনাগুলো ধামাচাপা দেওয়ায় ক্ষমতার অপব্যবহার করে । ধর্ষনের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলছে। এমন বাস্তবতায় রাষ্ট্র দায় এড়াতে পারে না।’

উল্লেখ্য, বগুড়া শহরের একটি বিদ্যালয় থেকে কলেজে ভর্তির আশ্বাস দিয়ে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্রীটিকে   গত ১৭ জুলাই  বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করেন শহর শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক তুফান সরকার। এর ১০ দিন পর তুফান সরকারের স্ত্রী আশা ও তার বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকির নেতৃত্বে ‘একদল সন্ত্রাসী’ মেয়েটি ও তার মাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়।

মা ও মেয়ের মাথা ন্যাড়া করে বেধড়ক পেটানো হয় শহরের চকসূত্রাপুর এলাকায় কাউন্সিলর রুমকির বাড়িতে।  ধর্ষণের শিকার মেয়েটি ও তার মা হাসপাতালে চিকিৎসাধীণ রয়েছে।

সানমুন আহমেদ।

নিউজ ঢাকা ২৪ ডটকম।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

Check Also

ময়মনসিংহের ত্রিশালে যে কারণে সন্তানের লাশ নিতে রাজি হননি পিতা

তাসনীমুল হাসান মুবিন,ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত আরাফাত হোসেনের (১৭) লাশ দাফন করতে নিতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!